দূরত্ব মেনে কাজ করতে হবে: হাছান মাহমুদ

  • চট্টগ্রাম ব্যুরো, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-05-28 20:31:43 BdST

bdnews24

অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড মাসের পর মাস বন্ধ রেখে কোনো দেশ টিকে থাকতে পারে না বলে মন্তব্য করেছেন তথ্যমন্ত্রী হাছান মাহমুদ।

বৃহস্পতিবার রাঙ্গুনিয়া উপজেলা পরিষদে করোনাভাইরাসের কারণে কর্মহীন খেলোয়াড়দের মধ্যে সরকারের পক্ষ থেকে উপহার সামগ্রী বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ মন্তব্য করেন।

হাছান মাহমুদ বলেন, “করোনাভাইরাস খুব সহসা পৃথিবী থেকে যাবে বলে মনে হচ্ছে না। অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড মাসের পর মাস বন্ধ রেখে কোনো দেশ টিকে থাকতে পারে না। সেই কারণে উন্নত দেশগুলোতেও আস্তে আস্তে নানা কর্মকাণ্ড শুরু করা হয়েছে, মানুষ কাজে ফিরে গেছে।

“আমাদেরকেও ধীরে ধীরে সেই কাজটি করতে হবে। তবে মাথায় রাখতে হবে সেই কাজটি করতে গিয়ে আমরা যেন আবার জনসমাগম না করি এবং শারীরিক দূরত্বটা বজায় রাখি।”

তিনি বলেন, “কর্মকাণ্ড শুরু হলেও আমাদেরকে অবশ্যই সচেতন থেকে শারীরিক দূরত্ব বজায় রেখে কাজকর্মগুলো করতে হবে। না হয় আমরা নিজেদেরকে সুরক্ষা দিতে পারব না। মনে রাখতে হবে আমার সুরক্ষা আমার হাতে।

“এটি একটি খেটে খাওয়া মানুষের দেশ। এখানে কোটি কোটি মানুষ খেটে খায়। করোনা ভাইরাসের কারণে আজকে দুই মাসের বেশি সমগ্র বাংলাদেশে প্রায় সমস্ত কর্মকাণ্ড বন্ধ। অনেকে অনেক শঙ্কা-আশঙ্কার কথা বলেছিলেন, সেই শঙ্কা-আশঙ্কাগুলোকে মিথ্যে প্রমাণ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং তার সরকার।”

কোভিড-১৯ সংক্রমণের পর সরকারি ছুটি চলাকালে দেশের ইতিহাসে ‘বৃহত্তম’ ত্রাণ কার্যক্রম পরিচালিত হয়েছে বলে দাবি করেন তথ্যমন্ত্রী।

আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ বলেন, “মানুষ সরকারের কাছে চায়নি, কোথাও যেতে হয়নি, এক টাকা খরচ ছাড়া ও কোনো দেনদরবার ছাড়া মানুষের মোবাইল ফোনে টাকা চলে এসেছে। এটি কখনও কেউ ভাবেনি। ইতিমধ্যে দেশের প্রায় সাত কোটি মানুষ নানাভাবে সরকারি সাহায্য-সহায়তার আওতায় এসেছে। বাংলাদেশের ইতিহাসে এমন ঘটনা কখনও ঘটেনি।

“এইভাবে ত্রাণ তৎপরতা আশপাশের কোনো দেশে হয়েছে কিনা আমার জানা নেই। প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে এমন বৃহত্তম ও সুপরিকল্পিত ত্রাণ কার্যক্রমের কারণে দেশের একজন মানুষও আল্লাহর রহমতে অনাহারে মৃত্যুবরণ করেনি।”

হাছান মাহমুদ জানান, সরকারের পাশাপাশি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে সারাদেশে প্রায় এক কোটি বিশ লাখ মানুষের কাছে ত্রাণ পৌঁছে দেওয়া হয়েছে।

সরকারি-বেসরকারি মিলিয়ে রাঙ্গুনিয়ার ৬০ হাজারের বেশি মানুষের পরিবারে ত্রাণ পৌঁছে গেছে বলে জানান ওই এলাকার সাংসদ হাছান মাহমুদ।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. মাসুদুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মো. শফিকুল ইসলাম, ভারপ্রাপ্ত স্বাস্থ্য কর্মকর্তা বিশ্বজিৎ বণিক, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শামসুল আলম তালুকদার, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান ইদ্রিছ আজগর, নজরুল ইসলাম তালুকদার, ইকবাল হোসেন চৌধুরী মিল্টন, উপজেলা যুবলীগের সভাপতি আরজু সিকদার প্রমুখ।