মিতু হত্যা: স্বামী বাবুল আক্তার আবার আলোচনায়

  • লিটন হায়দার ও মিন্টু চৌধুরী বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-05-12 00:11:41 BdST

মাহমুদা আক্তার মিতু হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় তার স্বামী সাবেক এসপি বাবুল আক্তারকে পিবিআইর জিজ্ঞাসাবাদ নতুন করে আলোচনার জন্ম দিয়েছে।

হত্যাকাণ্ডের পাঁচ বছর পর মঙ্গলবার দুপুরে চট্টগ্রাম মহানগরীর পাহাড়তলী এলাকায় পিবিআই মেট্রো অঞ্চলের কার্যালয়ে উপস্থিত হন বাবুল আক্তার। যিনি এক সময় চট্টগ্রাম মহানগর পুলিশে উপকমিশনারের দায়িত্বে ছিলেন।

বাবুল আক্তারকে রাত অবধি জিজ্ঞাসাবাদের পর তা সোশাল মিডিয়াসহ নানা অঙ্গনে নতুন করে আলোচনা সৃষ্টি করে। তাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলেও খবর আসে বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে।

তবে এ বিষয়ে মামলার তদন্ত সংস্থা পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) কোনো কর্মকর্তাই সরাসরি কথা বলছেন না।

পিবিআই সদর দপ্তরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (লিগ্যাল অ্যান্ড মিডিয়া) আবু ইউসুফ রাত সোয়া ৯টায় বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “বাবুল আক্তারকে তদন্ত কর্মকর্তা জিজ্ঞাসাবাদ করছেন। তাকে এখন পর্যন্ত গ্রেপ্তার করা হয়নি।”

এরপর বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদ শেষ হলেও তাকে পাহাড়তলীর পিবিআই কার্যালয় থেকে বের হতে দেখা যায়নি। গভীর রাতে পিবিআই কার্যালয়ে তালা ঝুলানো ছিল এবং বাবুল ভেতরেই রয়েছেন বলে পিবিআই কর্মকর্তাদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পিবিআই মেট্রো অঞ্চলের পরিদর্শক সন্তোষ কুমার চাকমা রাতে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের জিজ্ঞাসায় বলেন, “এ বিষয়ে পরে জানতে পারবেন।”

এর আগে তিনি বলেছিলেন, “হত্যা মামলার বাদী হিসেবে তিনি (বাবুল আক্তার) আমাদের কাছে এসেছিলেন। বিষয়টি তদন্তাধীন হওয়ায় উনার সাথে কী কথা হয়েছে, তা বলা যাবে না।”

বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদের বিষয়ে পিবিআই প্রধান, পুলিশের উপ-মহাপরিদর্শক বনজ কুমার মজুমদার সন্ধ্যায় বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেছিলেন, “মামলার প্রয়োজনে আমরা তাকে ডেকে নিয়ে কথা বলছি। এটাকে জিজ্ঞাসাবাদ বা তদন্তের বিষয়ে জানতে চাওয়া, যে কোনো কিছুই বলা যেতে পারে।”

মাহমুদা আক্তার মিতুর লাশ হত্যাকাণ্ডস্থলে।

মাহমুদা আক্তার মিতুর লাশ হত্যাকাণ্ডস্থলে।

২০১৬ সালের ৫ জুন সকালে চট্টগ্রাম নগরীর জিইসি মোড়ে ছেলেকে স্কুল বাসে তুলে দিতে যাওয়ার সময় সড়কে খুন হন পুলিশ কর্মকর্তা বাবুল আক্তারের স্ত্রী মিতু।

পদোন্নতি পেয়ে পুলিশ সদরদপ্তরে যোগ দিতে ওই সময় ঢাকায় ছিলেন বাবুল। তার ঠিক আগেই চট্টগ্রাম নগর গোয়েন্দা পুলিশে ছিলেন তিনি।

হত্যাকাণ্ডের পর নগরীর পাঁচলাইশ থানায় অজ্ঞাত পরিচয় কয়েকজনকে আসামি করে মামলা করেন বাবুল আক্তার নিজেই।

শুরুতে মেয়েজামাইয়ের পক্ষে বললেও কিছুদিন পর অবস্থান বদলান বাবুল আক্তারের শ্বশুর পুলিশের সাবেক পরিদর্শক মোশাররফ হোসেন। তিনি অভিযোগ তোলেন, তার মেয়েকে হত্যার পেছনে তার জামাইয়ের যোগসাজশ রয়েছে বলে তার সন্দেহ।

ওই ঘটনার পর পুলিশের চাকরি ছাড়তে দৃশ্যত বাধ্য হওয়া বাবুল অবশ্য বরাবরই এই অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন।

স্ত্রী হত্যার পর দুই ছেলে-মেয়েকে নিয়ে প্রথমে ঢাকায় শ্বশুরবাড়িতে উঠেছিলেন বাবুল। পরে বেসরকারি একটি প্রতিষ্ঠানে যোগ দিয়ে ছেলে-মেয়েকে নিয়ে আলাদা বাসায় ওঠেন।

চার বছরেও মিতু হত্যা মামলার জট খোলেনি  

মিতু হত্যা: দুই প্রশ্নের উত্তরের খোঁজে পিবিআই  

জিজ্ঞাসাবাদ থেকে গুঞ্জন, চাকরি থেকে অব্যাহতি

চট্টগ্রাম এবং তার আগে কক্সবাজারে বিভিন্ন জঙ্গি অভিযানে নেতৃত্ব দেওয়া বাবুল আক্তারের স্ত্রী ২০১৬ সালে খুন হওয়ার পর জঙ্গিদের দিকেই ছিল সন্দেহের তীর।

স্বামী বাবুল আক্তারের সঙ্গে মাহমুদা খানম মিতু।

স্বামী বাবুল আক্তারের সঙ্গে মাহমুদা খানম মিতু।

কিন্তু তার কিছুদিন পর দৃশ্যপট পাল্টে যায় ওই বছরের ২৪ জুন গভীর রাতে ঢাকার বনশ্রীর শ্বশুরের বাসা থেকে ঢাকা গোয়েন্দা পুলিশের কার্যালয়ে নিয়ে বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদ করার পর।

তবে ওই বিষয়ে পুলিশের স্পষ্ট কোনো বক্তব্য না আসায় নানা গুঞ্জন ডালপালা মেলতে থাকে। বাবুলকে বরখাস্ত করা হয়েছে বলেও খবর রটে।

পরদিন বিকালে ডিবি কার্যালয় থেকে ছাড়া পেয়ে শ্বশুরবাড়িতে ফিরে বাবুল বলেছিলেন, ‘আলোচনা করতে’ তাকে ডেকে নেওয়া হয়েছিল।

তার প্রায় এক মাস পর স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল জানান, এসপি বাবুল চাকরি থেকে অব্যাহতি চেয়ে আবেদন করেছেন।

তারও ২২ দিন পর স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক প্রজ্ঞাপনে জানানো হয়, বাবুলের আবেদনে তাকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

বাবুল আক্তারকে নিয়ে দিনভর নাটকীয়তা  

বাড়ি ফিরেছেন বাবুল আক্তার

বাবুল আক্তারকে জিজ্ঞাসাবাদ নিয়ে পুলিশের রাখঢাক  

স্ত্রী হত‌্যায় আলোচিত পুলিশ কর্মকর্তা বাবুল আক্তারকে অব‌্যাহতি  

শ্বশুরের অভিযোগ, বাবুলের জবাব

হত্যাকাণ্ডের পরের বছর অর্থাৎ ২০১৭ সালের ফেব্রুয়ারিতে এসে বাবুলকে নিয়ে সন্দেহের কথা বলেন তার শ্বশুর মোশাররফ।

তিনি বলেন, “এখন যেসব শুনছি, তার কিছুটাও যদি সত্য হয় তাহলে তো বুঝব, স্ত্রী মারা যাওয়ার পর বাবুল আমার বাসায় থেকে অভিনয় করেছে।

“আসলে তখন তো আপনারা তাকে প্রশ্ন করতে পারেন নাই। আমিই আপনাদের প্রশ্নের জবাব দিয়েছি। আসলে ভুলটা আমারই হয়েছে। এটা তার এক ধরনের কৌশল ছিল।”

কেন বাবুলকে সন্দেহ- তার জবাবে তিনি বলেছিলেন, বাবুলের অন্য নারীর সঙ্গে সম্পর্ক ছিল বলে তার মেয়েকে খুন হতে হয়েছে।

চট্টগ্রামে গিয়ে আগের তদন্ত কর্মকর্তার সঙ্গেও কথা বলেছিলেন মিতুর বাবা মোশাররফ হোসেন ও মা সাহেদা মোশাররফ নীলা।

চট্টগ্রামে গিয়ে আগের তদন্ত কর্মকর্তার সঙ্গেও কথা বলেছিলেন মিতুর বাবা মোশাররফ হোসেন ও মা সাহেদা মোশাররফ নীলা।

নিজের এলাকার এক নারীর সঙ্গে বাবুল আক্তারের সম্পর্কের অভিযোগ উঠেছিল তখন।  ওই নারীর স্বামী পুলিশের এসআই আকরাম হোসেন লিটনের মৃত্যুর তদন্তও দাবি করেন মোশাররফ। তার ভাষ্য, ওই খুনের তদন্ত তার মেয়ে খুনের জট খুলে দিতে পারে।

তিনি তখন বলেছিলেন, “এখন যা শুনছি, এমন অভিযোগ বাবুলের বিরুদ্ধে আজীবন ছিল। শ্বশুর বাড়ির আত্মীয়-স্বজনরা মাহমুদাকে (মিতু) অত্যাচার করত। ঘটনার ১৫ দিন আগেও বাবুল আক্তারের বাসায় একটা অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেছিল। এখন তো ঢাকায়, নোয়াখালী, বিদেশেও তার পরকীয়ার কথা শুনি।”

“বাবুল আক্তারের পরকীয়া, মিতুর সঙ্গে ঝগড়া, মিতুর আত্মহত্যার চেষ্টা করা, ঢাকায় বাবা মায়ের কাছে চলে আসতে চেয়েও না পারার কথাগুলো তদন্ত কর্মকর্তাকে বিশদভাবে জানানো হয়েছে,” বলেছিলেন তিনি। তখন মামলার তদন্তের দায়িত্বে ছিল ডিবি।

ওই নারী অবশ্য পরে সংবাদ সম্মেলন করে বাবুলের সঙ্গে কোনো ধরনের সম্পর্ক থাকার কথা অস্বীকার করেছিলেন।

স্ত্রী খুন হওয়ার পর স্বজনদের জড়িয়ে ধরে কান্নায় বাবুল আক্তার।

স্ত্রী খুন হওয়ার পর স্বজনদের জড়িয়ে ধরে কান্নায় বাবুল আক্তার।

পুলিশ কর্মকর্তার ছেলে বাবুল আক্তার নানা গুঞ্জনে নীরব থাকলেও শ্বশুরের সন্দেহ প্রকাশের পর এক ফেইসবুক পোস্টে জবাব দিয়েছিলেন।

‘সবাই বিচারক, আর আমি তথ্য প্রমাণ ছাড়াই খুনি’ শিরোনামে প্রায় দুই হাজারের বেশি শব্দের ওই পোস্টে তিনি লিখেছিলেন, তার শ্বশুর, শ্বাশুড়ি তার নিহত স্ত্রী মিতুর স্কুলপড়ুয়া এক খালাত বোনের সঙ্গে তার বিয়ে দেওয়ার চেষ্টা করেছিলেন। তাতে রাজি না হয়ে শ্বশুরবাড়ি ছেড়ে আসায় তার উপর ক্ষিপ্ত হন তারা।

“এতে তারা ভীষণ মনঃক্ষুণ্ণও হয়েছিলেন। বলেছিলেন, এর পরিণাম হবে খারাপ এবং আমাকে পচিয়ে ছাড়বেন তারা,” লিখেছিলেন বাবুল।

তদন্তের বিষয়ে দক্ষ হিসেবে পরিচিত সাবেক এই পুলিশ কর্মকর্তা আরও লিখেছিলেন, “বাস্তব জীবনটা কোনো চলচ্চিত্র না। আমি সুপারকপের মতো উঠে গিয়ে স্ত্রীর খুনি বের করে ফেলব?”

বাবুল আক্তারের শ্বশুর ধন্দে  

বাবুল আক্তারের বিরুদ্ধে এসআই আকরাম ‘হত্যার’ অভিযোগ  

বাবুলকেই সন্দেহ শ্বশুরের, দুই নারীকে জিজ্ঞাসাবাদের দাবি  

শ্বশুরের সন্দেহের জবাব দিলেন বাবুল আক্তার

মিতু হত্যা: ‘সঠিক’ তদন্ত চান বাবুল আক্তার  

খোঁজ মেলেনি মুছার

মিতু হত্যাকাণ্ডের মূল পরিকল্পনাকারী হিসেবে কামরুল ইসলাম শিকদার ওরফে মুছার নাম বলে আসছেন পুলিশ কর্মকর্তারা,যিনি চট্টগ্রামে বাবুলেরই ‘সোর্স’ ছিলেন।

রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ছাত্রলীগ নেতা রাশেদ হত্যাসহ ছয়টি মামলার আসামি মুছা।

হত্যাকাণ্ডের কয়েক দিন পর ২০১৬ সালের ২৬ জুন এই মামলায় মো. আনোয়ার ও মো. মোতালেব মিয়া ওরফে ওয়াসিম নামে দুজনকে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

তারা আদালতে দেওয়া জবানবন্দিতে মুছাকেই হত্যার পরিকল্পনাকারী হিসেবে উল্লেখ করেছিলেন বলে পুলিশের ভাষ্য।

জবানবন্দিতে ওয়াসিম বলেন, নবী, কালু, মুছা ও তিনি ‘সরাসরি হত্যাকাণ্ডে অংশ নেন’ এবং নবী ও কালু মিতুকে ‘ছুরিকাঘাত করে’।

মিতু হত্যার সন্দেহভাজন কামরুল ইসলাম শিকদার ওরফে মুছা ছিলেন বাবুল আক্তারের ‘সোর্স’।

মিতু হত্যার সন্দেহভাজন কামরুল ইসলাম শিকদার ওরফে মুছা ছিলেন বাবুল আক্তারের ‘সোর্স’।

মো. আনোয়ার ও মো. মোতালেব মিয়া ওরফে ওয়াসিমের জবানবন্দি আসে মুছার কথা।

মো. আনোয়ার ও মো. মোতালেব মিয়া ওরফে ওয়াসিমের জবানবন্দি আসে মুছার কথা।

এরপরই পুলিশ বাকলিয়া এলাকা থেকে ‘হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত অস্ত্র সরবরাহকারী’ ভোলা ও তার সহযোগী মনিরকে পয়েন্ট ৩২ বোরের একটি পিস্তলসহ গ্রেপ্তার করে। উদ্ধার করা পিস্তলটি মিতু হত্যাকাণ্ডে ব্যবহার হয় বলে তখন পুলিশ দাবি করেছিল।

এ ঘটনায় পুলিশের পক্ষ থেকে ভোলা ও মনিরকে আসামি করে অস্ত্র আইনে একটি মামলা দেওয়ার পাশাপাশি ভোলাকে মিতু হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার দেখানো হয়।

এ হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় সন্দেহভাজন ছয়জনকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে এবং দুজন কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন।

ভোলা ছাড়াও হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত মোটর সাইকেলের ‘সরবরাহকারী’ মুছার ভাই সাইদুল আলম শিকদার ওরফে সাকু ও মো. শাহজাহানকে বিভিন্ন সময়ে গ্রেপ্তার করে পুলিশ।

নুরুল ইসলাম রাশেদ ও নুরুন্নবী পুলিশের সঙ্গে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন।

তবে জবানবন্দিতে আসা ‘মূল পরিকল্পনাকারী’ মুছা এবং তার সঙ্গী কালুর খোঁজ পুলিশ চার বছরেও ‘পায়নি’।

তবে মুছার পরিবারের দাবি, মিতু হত্যাকাণ্ডের ১৭ দিনের মাথায় মুছাকে বন্দর থানা এলাকায় এক আত্মীয়ের বাসা থেকে পুলিশ ধরে নিয়ে যায়। তারপর আর তার খোঁজ মেলেনি।

মুছা-কালুতে আটকে বাবুল আক্তারের স্ত্রী মিতু হত্যার তদন্ত  

তদন্ত ডিবি থেকে পিবিআইতে

শুরু থেকে নগর গোয়েন্দা পুলিশ মামলাটি তদন্ত করলেও প্রায় তিন বছরেও তারা এই হত্যাকাণ্ডের কূলকিনারা করতে পারেনি।

এরপর গত বছরের জানুয়ারিতে আদালত মামলাটির তদন্তের ভার পিবিআইকে দেয়।  

পিবিআই মামলার তদন্তের দায়িত্ব নেওয়ার পরপরই দেশজুড়ে করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে লকডাউন শুরু হয়। এতে তদন্তের অগ্রগতিতে ভাটা পড়ে।

দায়িত্ব নেওয়ার এক বছরের মধ্যে পিবিআই আলোচিত এ মামলার সাক্ষী ও আসামি মিলিয়ে ১২ জনের সঙ্গে কথা বলেছে বলে তদন্ত সংশ্লিষ্ট এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। এর মধ্যে দুই আসামি চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে রয়েছেন।

মিতু হত্যার তদন্ত শেষ করতে আরও ৩ মাস সময় দিল হাই কোর্ট

ঘটনাক্রম

## ২০১৬ সালের ৫ জুন: সকালে খুন হন মাহমুদা আক্তার মিতু

## ৬ জুন: চকবাজার বড় গ্যারেজ এলাকা থেকে পুলিশ হত্যাকাণ্ডে ব্যবহৃত মোটর সাইকেলটি উদ্ধার করে। ওই দিন বাবুল আক্তার বাদী হয়ে পাঁচলাইশ থানায় হত্যামামলা করেন।

## ৮ জুন ও ১১ জুন: গোয়েন্দা পুলিশ হাটহাজারি উপজেলা থেকে আবু নসুর গুন্নু ও বায়েজিদ বোস্তামী থানার শীতল ঝর্ণা থেকে শাহ জামান ওরফে রবিন নামে দুজনকে গ্রেপ্তারের খবর জানায়। পরে পুলিশের পক্ষ থেকে জানানো হয়, মিতু হত্যাকাণ্ডে এই দুজনের সম্পৃক্ততা পাওয়া যায়নি।

## ২৪ জুন: ঢাকার বনশ্রীর শশুর বাসা থেকে বাবুল আক্তারকে ঢাকা গোয়েন্দা পুলিশ কার্যালয়ে নিয়ে প্রায় ১৪ ঘণ্টা জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

## ২৬ জুন: মো. আনোয়ার ও মো. মোতালেব মিয়া ওরফে ওয়াসিম নামে দুজনের গ্রেপ্তারের খবর প্রকাশ করে পুলিশ। ওইদিন তারা আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন।

## ২৮ জুন: বাবুল আক্তারের অন্যতম সোর্স এহেতাশামুল হক ভোলা ও তার সহযোগী মো. মনিরকে গ্রেপ্তার করা হয়। তাদের কাছ থেকে পয়েন্ট ৩২ বোরের একটি পিস্তল উদ্ধার করা হয়। যেটি মিতু হত্যাকান্ডে ব্যবহৃত হয় বলে পুলিশের দাবি।

## ১ জুলাই: মোটর সাইকেল সরবরাহ করার অভিযোগে মুছার ভাই সাইদুল আলম শিকদার ওরফে সাক্কু ও শাহজাহান নামে দুজনকে গ্রেপ্তার করা হয়।

## ৪ জুলাই: মুছার স্ত্রী পান্না আক্তার চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করে মুছাকে আদালতে হাজির করার দাবি করেন। ২২ জুন বন্দর থানা এলাকায় তাদের এক পরিচিত জনের বাসা থেকে মুছাকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে বলে তিনি জানান।

## ৫ জুলাই: ভোরে রাঙ্গুনিয়া উপজেলার ঠান্ডাছড়িতে নুরুল ইসলাম রাশেদ ও নুরুন্নবী নামে দুইজন পুলিশের সাথে কথিত বন্দুকযুদ্ধে নিহত হন।

## ১৩ অগাস্ট স্ত্রীকে নিয়ে ফেইসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে নিজের নিরবতা ভাঙেন বাবুল আক্তার।

## ৬ সেপ্টেম্বর বাবুল আক্তারকে চাকরি থেকে অব্যাহতি দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

## ১ নভেম্বর: ঢাকার বেসরকারি আল-দ্বীন হাসপাতালে সহযোগী পরিচালক হিসেবে বাবুল আক্তার যোগদান করেন।

## ২২ নভেম্বর: ভোলা ও মনিরকে অভিযুক্ত করে পুলিশের দেওয়া তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে গ্রহণ।

## ১৫ ডিসেম্বর: তদন্ত কর্মকর্তার সঙ্গে দেখা করতে চট্টগ্রাম আসেন বাবুল আক্তার।

## ২০১৭ সালের জানুয়ারি: বাবুলের বাবা-মা ও শ্বশুর মোশারফ হোসেন ও শ্বাশুড়ি সাহেদা মোশারফ নীলা চট্টগ্রাম এসে দেখা করেন তদন্ত কর্মকর্তার সঙ্গে।

## ১৪ ফেব্রুয়ারি: ভোলার লালমোহন এলাকা থেকে মিতুর মোবাইল ফোনের সিম উদ্ধার করে গোয়েন্দা পুলিশ।

## ২০২০ সালের জানুয়ারি: আদালত মামলাটির তদন্তের ভার পিবিআইকে দেয়।