পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

বাঁশখালী বিদ্যুৎ কেন্দ্রে সংঘর্ষ: ভাষাগত দূরত্বও কারণ পেল তদন্ত কমিটি

  • উত্তম সেনগুপ্ত, চট্টগ্রাম ব্যুরো বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-05-23 21:00:28 BdST

bdnews24
ফাইল ছবি

বাঁশখালীতে এস আলম গ্রুপের বিদ্যুৎ কেন্দ্রে সংঘর্ষের জন্য চীনা প্রকৌশলীদের সঙ্গে বাংলাদেশি শ্রমিকদের ভাষাগত দূরত্বও কারণ হিসেবে খুঁজে পেয়েছে পুলিশের তদন্ত কমিটি।

তাই দেশি শ্রমিকদের সঙ্গে চীনা প্রকৌশলী ও অন্যান্যদের দূরত্ব কমানোর সুপারিশ করা হয়েছে তদন্ত প্রতিবেদনে।

এছাড়া নির্ধারিত সময়ে বেতন না পাওয়া, বহিরাগতদের প্রভাবও শ্রমিক অসন্তোষের কারণ হিসেবে দেখিয়েছে এই তদন্ত কমিটি।

চট্টগ্রামের বাঁশখালী উপজেলার গণ্ডামারা ইউনিয়নে এস আলম গ্রুপ ১৩২০ মেগাওয়াটের কয়লা বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করছে।

গত ১৬ এপ্রিল সেখানে বিক্ষুব্ধ শ্রমিকদের সঙ্গে পুলিশের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে পাঁচ শ্রমিক মারা যায়। পরে চিকিৎসাধীন অবস্থায় মারা যায় আরও দুজন। 

সংঘর্ষের কারণ অনুসন্ধানে পুলিশ সদর দপ্তরের নির্দেশে চট্টগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত ডিআইজি জাকির হোসেনের নেতৃত্বে একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়। এছাড়া চট্টগ্রাম জেলা প্রশাসন অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট সুমনী আক্তারকে প্রধান করে আরেকটি তদন্ত কমিটি করে।

পুলিশের তদন্ত কমিটি গত ১৯ মে তাদের তদন্ত প্রতিবেদন জমা দিয়েছে বলে জানান চট্টগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি আনোয়ার হোসেন।

২৯৯ পৃষ্ঠার তদন্ত প্রতিবেদনে ভবিষ্যতে এই ধরনের ঘটনা এড়াতে আটটি সুপারিশ করা হয়েছে।

বাঁশখালীতে বিদ্যুৎকেন্দ্রে শ্রমিক-পুলিশ সংঘর্ষ, নিহত ৫

কী ঘটেছে বাঁশখালীতে?

বাঁশখালী সংঘর্ষ: ‘আপাতত’ ৫ লাখ টাকা করে দিতে এস আলমকে হাই কোর্টের নির্দেশ  

তদন্ত কমিটির প্রধান অতিরিক্ত ডিআইজি জাকির বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, বিদ্যুৎ কেন্দ্রে বাংলাদেশি ও চীনা মিলে সাড়ে চার হাজার লোক কাজ করে। তাদের মধ্যে ভাষাগত কারণে যোগাযোগের ব্যাঘাত ঘটায় দূরত্ব তৈরি হয়েছে।

১৭ এপ্রিলের সংঘর্ষের ঘটনায় ভাষাগত জটিলতা কয়েকটি কারণের মধ্যে একটি বলে জানান তিনি।

অন্য কারণগুলো হল- মাসের ১০ তারিখের মধ্যে বেতন না পাওয়া, শ্রমিকদের বাসস্থান ও স্যানিটেশন সমস্যা, রোজায় কর্মঘণ্টা হ্রাসের দাবি, নামাজের ছুটির দাবি, কিছু কিছু কারণে চীনা প্রকৌশলীদের খারাপ আচরণ ও শ্রমিক সরবরাহে বহিরাগতদের প্রভাব।

রোজার সময় ১০ ঘণ্টার পরিবর্তে আট ঘন্টা কাজ করে সম্পূর্ণ বেতন, শুক্রবার জুমার নামাজ পর্যন্ত আধাবেলা কাজ করার দাবি জানিয়েছিল শ্রমিকরা।

নামাজের সময়ে শ্রমিকরা নামাজ পড়তে যাওয়ায় বেতন কাটার ঘটনা ঘটেছে। যা ধর্মীয় অনুভূতি হিসেবে আন্দোলন ‘বেগবান’ করেছে বলে তদন্ত কমিটির প্রতিবেদনে উঠে এসেছে।

ডিআইজি জাকির বলেন, “জনশ্রুতি আছে এক চীনা প্রকৌশলী বাংলাদেশি এক শ্রমিককে লাথি দিয়েছিল, যা সংঘর্ষ সৃষ্টির অন্যতম কারণ হিসেবে বলা হচ্ছিল। কিন্তু তদন্ত কমিটির সেটার কোনো সত্যতা খুঁজে পায়নি।”

তদন্ত কমিটির সদস্য চট্টগ্রাম রেঞ্জ কার্যালয়ের পুলিশ সুপার নেছার উদ্দিন আহমেদ বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “তদন্ত করতে গিয়ে আমরা যেটা দেখেছি শ্রমিকদের দাবি দাওয়া উপস্থাপনের মতো কোনো লোক নেই। যে কারণে শ্রমিকদের বিভিন্ন বিষয়গুলো বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ ব্যবস্থাপনায় নিয়োজিতদের কাছে সঠিকভাবে উপস্থাপন করা যায়নি।”

বিক্ষোভে যুক্ত হতে অনেক শ্রমিক রাজি ছিলেন না উল্লেখ করে তিনি বলেন, শ্রমিকরা যে নয় দফা দাবি দিয়েছে তার মধ্যে রোজায় কর্মঘণ্টা হ্রাস ছাড়া আটটি দাবি কর্তৃপক্ষ মেনে নিয়েছিল। কিন্তু দাবি মেনে নেওয়ার বিষয়টি শ্রমিকদের কাছে ‘সঠিকভাবে’ পৌঁছায়নি।

এছাড়া শ্রমিকদের বিভিন্ন দাবি তারা তাদের সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলোকে জানালেও তারা সেগুলো ‘সঠিকভাবে ব্যবস্থাপনার সঙ্গে জড়িত চীনাদের জানায় না বলেও তদন্তে উঠে এসেছে।

বিদ্যুৎ কেন্দ্রটিতে এস আলম গ্রুপের ৭০ শতাংশ এবং চীনা কোম্পানি সেফকোথ্রি পাওয়ার কনস্ট্রাকশন কোম্পানি লিমিটেডের ৩০ শতাংশ বিনিয়োগ রয়েছে।

বহিরাগতদের সম্পৃক্ততার বিষয়ে অতিরিক্ত ডিআইজি জাকির বলেন, রশিদ ও নূর আলম নামে স্থানীয় দুই ব্যক্তি শ্রমিক সরবরাহসহ বিভিন্ন বিষয়ে প্রভাব বিস্তার করতেন।

“ঘটনার দিন সকালে শ্রমিকরা বিক্ষোভ করলে রশিদ লোকজন নিয়ে তা নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করেন। এসময় এক শ্রমিকের গায়ে হাত তুলেছিলেন রশিদ। এতে কিছু শ্রমিক আরও ক্ষিপ্ত হয়ে উঠে।”

সংঘর্ষে আহত এক শ্রমিক। ফাইল ছবি

সংঘর্ষে আহত এক শ্রমিক। ফাইল ছবি

বিক্ষোভে পুলিশের গুলি চালানোর বিষয় নিয়ে তিনি বলেন, “সংঘর্ষের শুরুতে বিদ্যুৎ কেন্দ্রের নিরাপত্তার দায়িত্বে ছিলেন ১২ জন পুলিশ সদস্য। শ্রমিকরা ক্ষিপ্ত হয়ে বিভিন্ন ডাম্প ট্রাকে আগুন দেয়। পুলিশে উপর হামলা শুরু করে। পাশাপাশি বিদ্যুৎ কেন্দ্রের অস্থায়ী মসজিদের মাইক থেকে চীনা নাগরিকদের উপর হামলা করার ঘোষণা দেওয়া হয়।

“পুলিশ আত্মরক্ষার্থে প্রথমে রাবার বুলেট নিক্ষেপ করেছিল, পরে বাধ্য হয়ে আগ্নেয়াস্ত্র ব্যবহার করেছে।”

তদন্ত কমিটি বিদ্যুৎ কেন্দ্রে বহিরাগত প্রবেশ রোধ এবং নিরাপত্তা বাড়ানোর সুপারিশ করেছে।

তদন্ত কমিটির প্রধান জাকির বলেন, প্রতিবেদন বিদ্যুৎ কেন্দ্রের চারপাশে সীমানা প্রাচীর নির্মাণ, কেপিআই’র মতো করে পুলিশের পাশাপাশি নিজস্ব নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে সুপারিশ করা হয়েছে।

শ্রমিকদের সঙ্গে প্রকল্পে কর্মরত চীনা নাগরিকদের দূরত্ব কমাতে ‘শ্রমিক কল্যাণ প্ল্যাটফর্ম’ তৈরি করে কিছু দিন পরপর প্রশাসনসহ উভয় পক্ষ মিলে বৈঠকের সুপারিশও করা হয়েছে।

তদন্ত কমিটির প্রধান জানান, হাসপাতালে চিকিৎসাধীন এবং বিদ্যুৎ কেন্দ্র পরিদর্শনে গিয়ে বাংলাদেশি শ্রমিক, নির্মাণ ব্যবস্থাপনায় থাকা চীনা নাগরিক, পুলিশসহ বিভিন্ন পর্যায়ের ৬০ জনের সাক্ষ্য নিয়েছেন তারা। যাদের মধ্যে ২০ জন শ্রমিক।

ডিআইজি আনোয়ার বলেন, পুলিশ সদর দপ্তরে প্রতিবেদনটি পাঠানো হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন দেখে পুলিশ সদর দপ্তর করণীয় ঠিক করবে।

সংঘর্ষের ঘটনায় বিদ্যুৎ কেন্দ্রের পক্ষে ২২ জনের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাতনামা এক হাজার ৪০ জনকে আসামি করে একটি মামলা হয়। পাশাপাশি কারও নাম উল্লেখ না করে অন্তত আড়াই হাজার জনকে আসামি করে পুলিশের পক্ষ থেকে আর একটি মামলা করা হয়।