পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

সিআরবিতে হাসপাতাল নিয়ে সিদ্ধান্ত দেবেন প্রধানমন্ত্রী: রেলমন্ত্রী

  • চট্টগ্রাম ব্যুরো, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-09-24 21:14:54 BdST

চট্টগ্রামের সিআরবিতে হাসপাতাল প্রকল্প নিয়ে সর্বশেষ সিদ্ধান্ত প্রধানমন্ত্রী দেবেন বলে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন।

শুক্রবার সন্ধ্যায় চট্টগ্রাম সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

চট্টগ্রাম সফরে এসে মন্ত্রী যখন সন্ধ্যায় সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলছিলেন তখন সার্কিট হাউসের অদূরে সিআরবিতে হাসপাতাল প্রকল্প বাতিলের দাবিতে সমাবেশ করছিলেন আন্দোলনকারীরা।

রেলমন্ত্রী বলেন, “আমাদের তো সর্বোচ্চ একজন গার্ডিয়ান আছেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী। সিদ্ধান্ত দেওয়ার জন্য যিনি সবার উপরে। সে জায়গা থেকে আমরা নিরাপদ। উনি সর্বশেষ যে সিদ্ধান্ত দেবেন সেটা সবার জন্য শিরোধার্য।

“প্রাথমিক অবস্থায় আমরা খতিয়ে দেখব এরপর প্রধানমন্ত্রীতো উপরে আছেনই।”

চটগ্রাম নগরীর ঐতিহ্যবাহী সিআরবি এলাকায় ৫০০ শয্যার হাসপাতাল ও ১০০ আসনের মেডিকেল কলেজ স্থাপনের জন্য ইউনাইটেডের সঙ্গে চুক্তি করেছে রেলওয়ে।

পরে জুলাই মাসে প্রকল্প এলাকার জমি হাসপাতাল নির্মাণকারী প্রতিষ্ঠানের কাছে বুঝিয়ে দেওয়া উদ্যোগ নেওয়া হলে আন্দোলন শুরু হয়। চট্টগ্রামের রাজনীতিবিদ, বিভিন্ন শ্রেণি পেশার মানুষ এই প্রকল্প সিআরবিতে না করার দাবিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন।

রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন কক্সবাজারে রেলের প্রকল্প পরিদর্শন শেষে শুক্রবার চট্টগ্রামে আসেন। নগরীর রেলওয়ে অফিসার্স ক্লাবে সন্ধ্যায় একটা কর্মশালার উদ্বোধন করার আগে সার্কিট হাউসে সাংবাদিকদের সঙ্গে কথা বলেন তিনি।

শুক্রবার শুরুতে তাকে প্রশ্ন করা হয় সিআরবিতে হাসপাতাল প্রকল্প নিয়ে আন্দোলন চলছে, সরকারের সিদ্ধান্ত কী? এখানে হাসপাতাল হবে না কি হবে না?

জবাবে মন্ত্রী বলেন, “এটাকে যতটা গুরুত্ব দিয়ে বা যেভাবে আপনারা তুলে ধরছেন কিংবা যা হচ্ছে- এটা আমার মনে হয় অতটা করার কোনো অর্থ নেই।

“আপনারা জানেন যে জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সবসময় জনগণের কল্যাণের জন্য কাজ করে যাচ্ছেন। আপনারা চট্টগ্রামের মানুষ যদি কোনো স্থাপনা না চান সেটা আমাদের জোর করে চাপিয়ে দেওয়ার তো কোনো প্রয়োজন নেই।”

আন্দোলনের বিষয়ে প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, “যখন বিদ্যুৎ হয়। তখন বিদ্যুৎ নিয়ে কতকিছু আমাদের দেশে গেছে। আমাদের একশ্রেণির মানুষ আছে যাদের কোনো কাজই ভালো লাগে না। খতিয়ে দেখার প্রয়োজন আছে উদ্দ্যেশ্য প্রণোদিতভাবে নাকি সত্যিকারভাবে চট্টগ্রামের মানুষের স্বার্থে কথা বলা হচ্ছে। চট্টগ্রামে তো কয়েকজন মন্ত্রী আছেন, এমপিরা আছেন। উনারা তো প্রতিনিধিত্ব করেন…।”

সিআরবি আন্দোলন নিয়ে নগর আওয়ামী লীগ নেতাদের বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে তিনি বলেন, “সেটা মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আছেন।”

প্রকল্প নিয়ে তথ্যগত কোনো ভুল হচ্ছে কিনা সেটাও একটু খতিয়ে দেখা দরকার মন্তব্য করে রেলমন্ত্রী বলেন, “যে কথাগুলো বলে, অভিযোগ দিয়ে যে আন্দোলনের কথা বলা হচ্ছে, সেটার ভিত্তি কতটুকু? সেটুকু আমাদের যাচাই বাছাই করার জন্য সময় দিতে হবে।”

যাচাই বাছাই চলছে কিনা জানতে চাইলে রেলমন্ত্রী বলেন, “এখন পর্যন্ত আনুষ্ঠানিকভাবে কয়েকদিন পূর্বে আমরা একটা অভিযোগ পেয়েছি। আন্দোলন তার পূর্বেই শুরু হয়েছে। তার পূর্বেই পেপার পত্রিকায় সেখানে দেখতেছি। কিন্তু কী নিয়ে আন্দোলন তা আনুষ্ঠানিকভাবেও রেলের কাছে কোনো দরখাস্ত করেনি। মন্ত্রীর বরাবরেও কোনো দরখাস্ত করেনি। আমাদের জিএম বা ডিজি মহোদয়ের কাছেও করা হয়নি। সচিব আছেন, করা হয়নি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছেও কোনো দরখাস্ত করা হয়নি।

“তাহলে কী কারণে বা কেন আন্দোলন। উনারা দরখাস্ত বা অভিযোগ দেওয়ার পরও যদি জোর করে কিছু হয়, তখন না আন্দোলনের প্রশ্ন আসবে।”

সিআরবিতে শহীদদের কবরের স্থানে হাসপাতাল নির্মাণ প্রকল্প বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, “আমি তো সে বিতর্কে যেতে চাইছি না। বলছি যে, অভিযোগ আনুষ্ঠানিকভাবে পাইনি। যখন বলা হয়েছে অভিযোগ কী সেটা বলেন। সে অভিযোগ আনুষ্ঠানিকভাবে গতকালকে বোধহয় আমরা পেয়েছি। এখন সেটা বিবেচনা করব।

“সরকারের সিদ্ধান্ত হল ‘পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপকে’ এনকারেজ করা। সরকারের যত প্রকল্প আছে নীতিগতভাবে তার ৩০ শতাংশ যেন পিপিপিতে বাস্তবায়ন করা যায়। স্থানীয় এবং বৈদেশিক বিনিয়োগ উৎসাহিত করার জন্য সরকার সে প্রচেষ্টা করছে।

“তারই আওতায় রেলের পক্ষ থেকে এ প্রকল্প। আরও অনেকগুলো প্রকল্প ছিল। এটি ম্যাচিউর হয়েছে। এখন চুক্তি হচ্ছে, প্রকল্প তৈরি হচ্ছে, এটা নিয়ে যাচাই বাছাই হচ্ছে। সে পর্যায়ে কিন্তু কোনো…।”

২০১৩-১৪ সাল থেকে এটার প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে উল্লেখ করে রেলমন্ত্রী বলেন, “তখন কিন্তু কেউ আপত্তি তোলেনি। এটা যখন বাস্তবায়ন পর্যায়ে আসলো তখনই আপত্তি আসছে। আপত্তিগুলোর কারণ তো আমাদের আগে জানাবে।“

 

আরও পড়ুন

সিআরবিতে হাসপাতাল হতে দেবেন না বঙ্গবন্ধুকন্যা, আশা অনুপম সেনের  

গানে গানে সিআরবির রক্ষার আবাহন  

সিআরবিতে হাসপাতাল: গাছে পাখির বাসা বেঁধে প্রতিবাদ  

হাসপাতাল প্রকল্পটি সিআরবি থেকে সরাতে রেলমন্ত্রীকে চিঠি  

সিআরবিতে হাসপাতালের বিরোধিতায় মেয়র রেজাউলও  

সিআরবিতে অনুমোদনহীন স্থাপনা নির্মাণে ব্যবস্থা: সিডিএ  

সিআরবি ‘সংরক্ষিত এলাকা’, হাসপাতালের অনুমোদন ‘দেবে না’ সিডিএ