পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

শাখা সম্মেলন নিয়ে চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগ নেতাদের মতভেদ

  • চট্টগ্রাম ব্যুরো বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-11-15 01:28:55 BdST

bdnews24

চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের তৃণমূলের সম্মেলন আয়োজন ও তারিখ নির্ধারণ নিয়ে জ্যেষ্ঠ নেতাদের মধ্যে মতভেদ দেখা দিয়েছে।

রোববার দলীয় কার্যালয়ে কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় এ নিয়ে উতপ্ত বাক্য বিনিময়ও হয় বলে দলীয় নেতাদের কাছ থেকে জানা গেছে।

বর্তমান মেয়র ও নগর কমিটির যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এম রেজাউল করিম চৌধুরী এবং সাধারণ সম্পাদক ও সাবেক মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন এ বিষয়ে পরস্পরবিরোধী অবস্থান নেন।

ইউনিট সম্মেলনের তারিখ নির্ধারণ নিয়ে ভিন্ন মত জানান সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন।

পরে সভায় পাঁচটি ওয়ার্ডের ইউনিট সম্মেলন শুরুর সময় নির্ধারণ করা হয়।

নগর কমিটির সম্মেলনকে সামনে তৃণমূলে ইউনিট, ওয়ার্ড ও থানা কমিটিগুলোর সম্মেলন অনুষ্ঠানের লক্ষ্য নিয়ে কাজ শুরু হয়েছে চলতি মাসে। এরআগে সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হয় সদস্য সংগ্রহ অভিযান।

কেন্দ্রীয় প্রতিনিধি দলের উপস্থিতিতে অক্টোবরে সদস্য সংগ্রহ প্রক্রিয়া নিয়ে আপত্তি তুলেছিলেন স্থানীয় কয়েকজন নেতা। এরপর এসব প্রক্রিয়া সম্পন্ন করতে তারা কিছু নির্দেশনাও দিয়ে যান।

রোববারের কার্য নির্বাহী কমিটির সভায় মেয়র রেজাউল সদস্য সংগ্রহের ক্ষেত্রে তৃণমূল শক্তিশালী করতে যুবলীগ ও ছাত্রলীগের সাবেক নেতাকর্মীদের অন্তর্ভুক্ত করা, যাচাই বাছাই প্রক্রিয়ায় স্থানীয় জ্যেষ্ঠ নেতাদের সম্পৃক্ত করা এবং ইউনিট সম্মেলনে নগর কমিটির তত্ত্বাবধানের প্রস্তাব দেন।

তিনি বলেন, “অনেক জায়গায় ওয়ার্ড কমিটিগুলো ১৫-৩০ বছর পুরনো। সেগুলো মেয়াদোত্তীর্ণ। তারাই যদি ইউনিটে কমিটি গঠনে ভূমিকা রাখেন তা কতটা ফলপ্রসূ হবে। এমনিক নগর কমিটিও মেয়াদোত্তীর্ণ।”

সাধারণ সম্পাদক আ জ ম নাছির এর বিরোধিতা করে বলেন, “যতক্ষণ পর্যন্ত সম্মেলনের মাধ্যমে পরবর্তী নগর কমিটি গঠিত হবে না ততক্ষণ পর্যন্ত এই কমিটি বৈধ।”

সভায় নগর কমিটির সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন ইউনিট সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা নিয়ে আপত্তি জানান। তিনি সবার সাথে আলোচনা করে তারিখ নির্ধারণের দাবি জানান।

সভায় উপস্থিত নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক কমপক্ষে তিনজন নেতা সভায় জ্যেষ্ঠ নেতাদের মধ্যে দ্বিমতের বিষয়টি বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোরকে নিশ্চিত করেছেন।

এক নেতা বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, “এমনকি দেওয়ানবাজার ওয়ার্ডে সদস্য হতে না পেরে কয়েকজন দলীয় কর্মী লিখিত আবেদন করেছেন। তাদের বাদ দিয়ে ইউনিট সম্মেলনের তারিখ ঘোষণা হওয়ায় আবেদনে তা স্থগিত করারও আবেদন করেন।

“মেয়র রেজাউল করিম চৌধুরী প্রশ্ন তুলেছেন, সদস্য পদ প্রদানে যাচাই বাছাইটা কারা করছেন? নির্দেশনা ছিল, এলাকায় এলাকায় যাদের দলের প্রতি আনুগত্য ছিল এবং বিভিন্ন সময়ে দলের হয়ে কাজ করেছেন তাদের যেন অন্তর্ভুক্ত করা হয়। তা করা হচ্ছে না বলে অভিযোগ করেন তিনি। পাশাপাশি নগর কমিটির সম্মেলন সামনে রেখে তৃণমূলের কমিটি গঠন প্রক্রিয়ায় সিনিয়র নেতাদের সম্পৃক্ত করতে আহ্বান জানান তিনি।”

সভায় উপস্থিত সম্পাদকমন্ডলীর এক সদস্য বলেন, “মেয়র রেজাউলের বক্তব্যের পর সাধারণ সম্পাদক নাছির বলেন, “আপনারা সভায় নিয়মিত আসেন না। আসলেও কিছুক্ষণ পর চলে যান। দায়িত্ব দিলে পালন করেন না। এভাবে হলে নগর কমিটি কী করে হবে? কেন্দ্রের নির্দেশনা অনুসরণে আমাদের বাধ্যবাধকতা আছে।”

এসব বিষয়ে জানতে রেজাউল করিম চৌধুরী ও আ জ ম নাছিরের মোবাইল ফোনে একাধিকার কল করা হলেও তারা ধরেননি।

রাতে নগর কমিটির প্রচার সম্পাদক শফিকুল ইসলাম ফারুক স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, ১৬ নভেম্বর থেকে ইউনিট সম্মেলন শুরু হবে। ইউনিট সম্মেলন শেষে ওয়ার্ড ও থানা সম্মেলন সম্পন্ন হবে।

এতে নগর কমিটির ভারপ্রাপ্ত সভাপতি মাহতাব উদ্দীন চৌধুরীকে উদ্ধৃত করে বলা হয়, “অনেক প্রতিকূলতা ও বিপর্যয় পেড়িয়ে চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগ নিজের ভিত্তিকে সুদৃঢ় করেছে। আমরা অনেক সংকট মোকাবেলা করে যে অবস্থানে আছি তা যেন আত্মকলহ ও বিবাদে বিলীন না হয়।

“কোনো ওয়ার্ডে কোনো বিতর্কিত ব্যক্তিকে সদস্য হিসেবে অন্তর্ভুক্ত করা হয়ে থাকলে তারা সদস্য পদ পাবে না। এ ধরনের কর্মকান্ড যাতে না ঘটে সে ব্যাপারে স্থানীয় নেতৃত্বকে অবশ্যই সতর্ক থাকতে হবে। নিজের বলয় ভারী করার জন্য অনুপ্রবেশকারীদের দুয়ার যদি কেউ খুলে দেয় তাদের বিরুদ্ধে ও কঠোর সাংগঠনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।”

নাছিরকে উদ্ধৃত করে বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, “সংগঠনের ত্যাগী ও নিবেদিত প্রাণ কর্মীদেরকে অবশ্যই মূল্যায়ন করা হবে। দলীয় শৃঙ্খলাকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিয়ে সাংগঠনিক সিদ্ধান্ত ও কেন্দ্রীয় নির্দেশনা মোতাবেক তৃণমূল স্তরের সাংগঠনিক কাঠামো সাজানো হবে। এক্ষেত্রে কোনো ব্যত্যয় হওয়ার আশঙ্কা নেই।”

সভার সিদ্ধান্ত অনুসারে আগামী ১৬ নভেম্বর থেকে ১৫ নম্বর বাগমানিরাম ওয়ার্ড, ৩২ নম্বর আন্দরকিল্লা ওয়ার্ড, ২০ নম্বর দেওয়ান বাজার ওয়ার্ড, ৬ নম্বর পূর্ব ষোলশহর ওয়ার্ড, ২২ নম্বর এনায়েত বাজার ওয়ার্ডের ইউনিট সম্মেলন শুরু হবে।

চট্টগ্রাম নগর আওয়ামী লীগের সম্মেলন ডিসেম্বরের পর  

চট্টগ্রাম আ. লীগকে সংগঠিত করতে কেন্দ্রের ‘পাঁচ নির্দেশনা’  

ডিসেম্বরের আগে চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের তৃণমূলে সম্মেলন  

চট্টগ্রামে দলের সাংগঠনিক দুর্বলতা দুঃখজনক: হানিফ