পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

করের অঙ্ক না বাড়িয়ে আওতা বাড়িয়ে আয় বাড়ানোর চেষ্টায় মেয়র রেজাউল

  • চট্টগ্রাম ব্যুরো, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2022-01-25 20:52:30 BdST

bdnews24

চট্টগ্রামের সিটি মেয়র এম রেজাউল করিম চৌধুরী বলেছেন, নগরবাসীর করের অঙ্ক বাড়ানো হবে না, শুধু আওতা বাড়ানো হবে।

মঙ্গলবার চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের (সিসিসি) স্থায়ী কমিটিগুলোর সিদ্ধান্ত পর্যালোচনা বিষয়ক সভায় সভাপতির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

সভায় হোল্ডিংট্যাক্স বা গৃহকর পুনর্মূল্যায়নে স্থগিতাদেশ প্রত্যাহার বিষয়ে নগরবাসী বিভ্রান্ত না হওয়ার আহ্বান জানিয়ে মেয়র রেজাউল বলেন, “নগরবাসীর উপর কোনো কর বাড়ানো হবে না, শুধু করের আওতা বাড়ানো হবে। তবে সর্বশেষ গৃহকর পূনমূল্যায়নে অসংগতিতে কেউ আপিল করলে তাদের জন্য সহনীয় পর্যায়ে কর নির্ধারণ করা হবে।”

এছাড়াও সভায় মেয়র সিটি কর্পোরেশনের বিধিবিধানের আওতায় কর আদায়ের যে খাতগুলো আছে সে খাতগুলো থেকে কর আদায়ের উদ্যোগ নেওয়ার কথা বলেন।

সিসিসির আবেদনে চার বছর আগে হোল্ডিংট্যাক্স পুনঃমূল্যায়নের উপর দেওয়া স্থগিতাদেশ গত ১৮ জানুয়ারি প্রত্যাহার করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়।

২০১৬-১৭ অর্থ বছরে চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন গৃহকর পুনর্মূল্যায়নের কার্যক্রম গ্রহণ করেছিল। তবে বিভিন্ন মহলের বিরোধিতা ও আন্দোলনের কারণে ২০১৭ সালের ১০ ডিসেম্বর স্থানীয় সরকার বিভাগ তা স্থগিত রাখার নির্দেশনা দেয়।

গৃহকর বাড়ানোর সুযোগ পেল চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশন

চট্টগ্রামে ফের আলোচনায় ‘হোল্ডিং ট্যাক্স’

গৃহকরের হার নয় আদায়ের পরিধি বাড়াতে চান রেজাউল  

সিটি নির্বাচনে নিজের ইশতেহারে ‘বাড়িওয়ালা ভাড়াটিয়া কেউ যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না হন, সেভাবে যৌক্তিক হারে গৃহকর নির্ধারণ করার’ প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন রেজাউল।

বর্ধিত গৃহকরের বিরুদ্ধে আন্দোলনকারী করদাতা সুরক্ষা পরিষদ বলছে, বর্ধিত কর দেওয়া নগরবাসীর পক্ষে সম্ভব নয়। তাই আবারও আন্দোলন হবে।

সভায় নগরীর সৌন্দর্য বর্ধন প্রকল্প বিষয়ে মেয়র রেজাউল বলেন, “অপ্রয়োজনীয় যাত্রী ছাউনির নামে দোকানপাট নির্মাণ করলে নগরবাসীর চলাচলে দুর্ভোগ সৃষ্টি হয়। অনুমোদনহীন যাত্রী ছাউনি ও বিলবোর্ড স্থাপনের ব্যাপারে কঠোর হতে হবে।

সৌন্দর্যবর্ধনে চসিকের সঙ্গে চুক্তি অনুযায়ী কাজ শেষ না করায় সাতটি প্রতিষ্ঠানের চুক্তি বাতিল করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

সিসিসির নিজস্ব যানবাহন বিষয়ে সভায় মেয়র বলেন, “লক্ষ্য করা গেছে যে সিটি করপোরেশনের প্রচুর যানবাহন সঠিক মেরামত না হওয়ার ফলে অকেজো হয়ে পড়ে আছে। এ যানবাহনগুলোর সার্বিক তথ্য সংগ্রহ করে নিজস্ব মেকানিক দ্বারা সম্ভব না হলে প্রয়োজনে আউটসোর্সিং এর মাধ্যমে মেকানিক নিয়োগ দিয়ে মেরামতযোগ্য যানবাহনগুলো সচল করার উপর গুরুত দিতে হবে।”

সরকারি প্রতিষ্ঠানের কাছে বর্ধিত ‘হোল্ডিং ট্যাক্স’ চান সুজন

সিসিসি: দায়ের ভারে ন্যুব্জ, টাকার খোঁজে সুজন  

প্রয়োজনে সিসিসির নিজস্ব অর্থায়নে একটি ওয়ার্কশপ তৈরি করে গাড়িগুলো মেরামত ও রক্ষণাবেক্ষণের ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও বলেন তিনি।

সিসিসির ভারপ্রাপ্ত সচিব ও প্রধান রাজস্ব কর্মকর্তা মো. নজরুল ইসলামের সঞ্চালনায় সভায় আরো বক্তব্য রাখেন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ শহীদুল আলম, কাউন্সিলর মো. ইসমাইল, আবদুস সালাম মাসুম, মো. আব্দুল মান্নান, মো. ওয়াসিম উদ্দিন চৌধুরী, জহর লাল হাজারী, শৈবাল দাশ সুমন, মো. সলিমুল্লাহ বাচ্চু, আতাউল্লাহ চৌধুরী, মো. মোবারক আলী, কাজী নুরুল আমিন, গাজী শফিউল আজিম প্রমুখ।