পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলাকে ‘নৌকার ঘাঁটি’ দেখতে চান পরশ

  • চট্টগ্রাম ব্যুরো, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2022-05-28 20:16:07 BdST

চট্টগ্রামের আগের নির্বাচনগুলোতে ‘আশানুরূপ’ ফল না আসলেও আগামীতে এমন চিত্র বদলাতে চ্যালেঞ্জ নিতে চান যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ।

তার লক্ষ্য চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলাকে ‘নৌকার ঘাঁটিতে’ রূপান্তরিত করা।

শনিবার পটিয়া আদর্শ ‍উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সম্মেলনের উদ্বোধনী অধিবেশনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

এক দশক পর হচ্ছে সংগঠনের জেলা ইউনিটের এ সম্মেলন হচ্ছে।

তিনি বলেন, “আমরা একটা চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করতে চাই। কোনো এক অদৃশ্য কারণে আমরা চট্টগ্রামে প্রতিটি নির্বাচনে আশানুরূপ ফলাফল আনতে ব্যর্থ হয়েছি। এই চট্টগ্রাম দক্ষিণ জেলার ছয়টি নির্বাচনী আসনের মধ্যে ২০০৮ সালে নৌকার জোয়ারের সময় মাত্র দুটি আসনে জয়লাভ করতে পেরেছিলাম। আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে দক্ষিণ জেলাকে নৌকার ঘাঁটিতে রূপান্তরিত করা।”

সম্মেলনে নেতা নির্বাচন প্রসঙ্গে পরশ বলেন, “একটা লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নিয়ে চট্টগ্রামে সম্মেলন করতে এসেছি। আমাদের প্রত্যাশা আপনারা জনদরদী, দেশপ্রেমী ও কর্মীবান্ধব নেতৃত্ব নির্বাচন করবেন। যারা প্রকৃত মুক্তিযুদ্ধের চেতনা লালন করেন।

চট্টগ্রাম যুবলীগের সম্মেলন ঘিরে তোড়জোড়  

“আগামীর নেতৃত্ব কেমন হবে সেটাই বড় প্রশ্ন। কে নেতৃত্বে আসবে, সেটা নয়। যোগ্য ও বলিষ্ঠ নেতৃত্ব থাকলে অনেক প্রতিকূলতাকে জয় করা যায়।”

যুবলীগ চেয়ারম্যান বঙ্গবন্ধু কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বের ধারাবাহিকতা রক্ষায় অব্যাহতভাবে রাজপথে থাকতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহ্বান জানান। তিনি ষড়যন্ত্র মোকাবিলায় সচেতন থাকার তাগিদ দেন।

পরশ বলেন, “সবাই সহযোগিতা করলে এই দশকের মধ্যে এদেশ সুইজারল্যান্ড, নরওয়ে ও কানাডার মত দেশ হতে খুব একটা দেরি নাই।

তখন আর বিদেশে টাকা পাচার করবে না। বা সেকেন্ড হোমও করবে না। যারা টাকা পাচার করেছে তারা আবার টাকা ফেরত আনবে।”

বিএনপির উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, “পদ্মা সেতু হয়ে গেছে। প্রশ্ন হচ্ছে এ নিয়ে জনগণের ভালোবাসায় আপনারা একাত্মতা প্রকাশ করতে পারেন কি না? জনগণের মন-মনন ভালোলাগায় আপনাদের সহমর্মিতা নেই। শুধুমাত্র অ্যান্টি আওয়ামী সেন্টিমেন্ট দিয়ে রাজনীতি হয় না। সময় অনেক পাল্টে গেছে।“

সম্মেলনে প্রধান বক্তা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মাইনুল হোসেন খান নিখিল বলেন, “একটা শুদ্ধি অভিযানের মধ্য দিয়ে পরশ-নিখিল যুবলীগের দায়িত্বে এসেছে। তাদের দিয়ে ক্যাসিনো ও কমিটি–বাণিজ্য হবে না। আমাদের হাত দিয়ে সন্ত্রাসী, মাদকসেবী ও চাঁদাবাজদের নাম কখনও আসবে না।“

দক্ষিণ জেলা যুবলীগের ত্রিবার্ষিক সম্মেলনে তিনি ‘সৎ ও পরিচ্ছন্নদের’ কমিটিতে দেখতে চান।

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক আবু সাঈদ আল মাহমুদ স্বপন, উপ প্রচার সম্পাদক আমিনুল ইসলাম, হুইপ সামশুল হক চৌধুরী, দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান, সাংসদ নজরুল ইসলাম চৌধুরী ও মোস্তাফিজুর রহমান চৌধুরী, যুবলীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শেখ ফজলে নাঈম ও মো. বদিউল আলম, সাংগঠনিক সম্পাদক সাইফুর রহমান সোহাগ।

দক্ষিণ জেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পার্থ সারথী চৌধুরীর সঞ্চালনায় প্রথম অধিবেশনে সভাপতিত্ব করেন জেলা যুবলীগের সভাপতি আ স ম টিপু সুলতান চৌধুরী।