কোভিড-১৯: এডিবি থেকে মিলছে আরও ৫০ কোটি ডলার

  • জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-05-07 17:31:39 BdST

bdnews24

করোনাভাইরাস মহামারী অভিঘাত থেকে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাত ও অর্থনীতিকে রক্ষায় এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি) অতিরিক্ত আরও ৫০ কোটি ডলার ঋণ দিচ্ছে।

বর্তমান বিনিময় হার অনুযায়ী বাংলাদেশি মুদ্রায় এর পরিমাণ প্রায় চার হাজার ২৫০ কোটি টাকা।

বৃহস্পতিবার ম্যানিলায় সংস্থাটির সদর দপ্তরে বোর্ড সভায় এ ঋণ অনুমোদন করা হয়েছে বলে এডিবির এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

এডিবি কোভিড-১৯ মহামারী মোকাবেলায় সদস্য দেশগুলোর জন্য গত ১৩ এপ্রিল যে দুই হাজার কোটি (২০ বিলিয়ন) ডলারের অতিরিক্ত সহায়তার ঘোষণা করেছিল। সেই তহবিল থেকেই বাংলাদেশের জন্য এই ঋণ অনুমোদন দেওয়া হল।

এডিবির প্রেসিডেন্ট মাসাতসুগু আসাকাওয়া বলেন, বাংলাদেশের আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতির নেতিবাচক পরিবর্তনকে দ্রুত পুনরুদ্ধারের জন্য এই সহযোগিতা।

“এডিবি বাংলাদেশ সরকারের সঙ্গে, বিশেষ করে এই মহামারীতে দরিদ্র এবং সবচেয়ে ঝুকিপূর্ণ জনগোষ্ঠীর উন্নয়নে অংশীদারিত্বের সঙ্গে কাজ করতে চায়।”

“এই প্যাকেজে বিশেষ করে বেকার, ক্ষুদ্র ও মাঝারি উদ্যোক্তা এবং অনানুষ্ঠানিক খাতকে বেশি গুরুত্ব দেওয়া হবে।”

এডিবি আশা করে, এই ঋণের অর্থে বাংলাদেশের দেড় কোটির বেশি দরিদ্র এবং ঝুঁকিতে থাকা মানুষ উপকৃত হবে। বিশেষ করে দেশের রপ্তানি শিল্পে জড়িত ১৫ লাখ শ্রমিকের (যাদের বেশির ভাগ নারী) বেতনের যোগান দেওয়া দেওয়া যাবে।

এছাড়াও এই প্যাকেজের অর্থ দিয়ে মহামারীর চিকিৎসায় নিয়োজিত ডাক্তার, নার্স এবং হাসাপাতালের কর্মচারীদের বিশেষ ভাতার ব্যবস্থা করা হতে পারে।

এই প্যাকেজের অর্থ সরকারের সামাজিক নিরপত্তা বেষ্টনী কর্মসূচির আওতায় বৃদ্ধ ও বিধবাদের অতিরিক্ত ভাতা ও এই কর্মসূচি সম্প্রসারণে ব্যয় করা যেতে পারে বলেও জানিয়েছে এডিবি।

এছাড়া এডিবির এই ঋণ সহায়তা থেকে সারাদেশের অন্তত ২০ লাখ দরিদ্র্য মানুষের প্রত্যেককে ২৩ ডলার বা প্রায় দুই হাজার টাকা করে দেওয়া যাবে। আর ঝুঁকিতে থাকা দশ লাখ পরিবারকে দুর্যোগকালীন সময়ে খাদ্য সহায়তা হিসেবে প্রতি মাসে ২০ কেজি করে চাল দেওয়া হবে।

মহামারীতে ক্ষতিগ্রস্ত শিল্প কারখানাসহ ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প খাতে কম সুদে ঋণও এই অর্থ থেকে দেওয়া যাবে বলে এডিবি জানিয়েছে।