প্রণোদনা তহবিলের অর্থ যোগাতে বিশেষ রেপো

  • আবদুর রহিম হারমাছি, প্রধান অর্থনৈতিক প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-05-13 17:29:36 BdST

bdnews24
ঢাকার মতিঝিল

কোভিড-১৯ সঙ্কটে ব্যাংকগুলোর অর্থের জোগান বাড়াতে প্রথমবারের মত এক বছর মেয়াদী ‘বিশেষ রেপো’ চালু করেছে বাংলাদেশ ব্যাংক।

এই রেপোর (পুনঃক্রয় চুক্তি) মাধ্যমে কেন্দ্রীয় ব্যাংক থেকে নেওয়া অর্থ বা ঋণ শুধুমাত্র সরকার ঘোষিত বিভিন্ন আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নে বিনিয়োগ করা যাবে।

বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেট ম্যানেজমেন্ট বিভাগ বুধবার এক সার্কুলারে এ বিষয়ে নির্দেশনা জারি করেছে। 

ওই বিভাগের মহাব্যবস্থাপক খুরশীদ আলম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,বর্তমানে ১ দিন, ১৪ দিন এবং ২৮ দিন মেয়াদী রেপো চালু আছে। বাংলাদেশে এক বছর মেয়াদী বিশেষ রেপো এটাই প্রথম।

“কোভিড-১৯ মোকাবিলা করতে সরকার ও কেন্দ্রীয় ব্যাংক যেসব প্রণোদনা প্যাকেজ ও তহবিল ঘোষণা করেছে, তার অর্থের জোগান বাড়াতেই এ উদ্যোগ।”

বর্তমানে অন্যান্য রেপোর সুদ হার ৫ দশমিক ২৫ শতাংশ। বিশেষ রেপোর সুদ হার এর মধ্যেই থাকবে বলে জানান খুরশীদ আলম।

ভারতেও কোভিড-১৯ মোকাবিলার জন্য এ ধরনের বিশেষ রেপো চালু করা হয়েছে বলে জানান তিনি।

‘নভেল কোভিড-১৯ এর প্রভাব মোকাবেলায় ৩৬০ দিন মেয়াদী বিশেষ রেপো প্রচলন’ শীর্ষক ওই সার্কুলার ইতোমধ্যে সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো হয়েছে।

সেখানে বলা হয়েছে-

>> বিদ্যমান রেপো হারকে ভিত্তি ধরে বাংলাদেশ ব্যাংক ঘোষিত মুদ্রানীতি ও মুদ্রা বাজারের তারল্য পরিস্থিতি বিবেচনায় নিয়ে এ বিশেষ রেপোর সুদের হার ও পরিমাণ বাংলাদেশ ব্যাংকের অকশন কমিটি নির্ধারণ করে দেবে। প্রতি অকশনে এ কমিটির সিদ্ধান্তই চূড়ান্ত বলে গণ্য হবে।

>> অকশনে অংশগ্রহণকারী তফসিলি ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো তাদের ধারনকৃত এসএলআর (বিধিবদ্ধ জমা বা স্টেটিউটরি লিক্যুইডিটি রেশিও) এর অতিরিক্ত সরকারি সিকিউরিটিজসমূহ বাংলাদেশ ব্যাংকের কাছে জামানত রেখে অর্থ গ্রহণ করতে পারবে।

>> ট্রেজারি বিল এবং বন্ডের অভিহিত মূল্যের উপর যথাক্রমে ১৫ শতাংশ এবং ৫ শতাংশ মার্জিন রেখে অভিহিত মূল্যের অবশিষ্ট অর্থ রেপো হিসেবে দেওয়া হবে। রেপোর বিপরীতে বন্ধক রাখা সম্পূর্ণ সিকিউরিটিজ (বাজারমূল্য/অভিহিত মূল্য অনুসারে) ‘দায়যুক্ত’ বিবেচিত হবে এবং এই সিকিউরিটিজ অন্য কোনো ক্ষেত্রের জন্য জামানত বা সহজে বিনিময়যোগ্য সম্পদ হিসাবে বিবেচিত হবে না।

>> এ রেপোর মাধ্যমে নেওয়া অর্থ সম্প্রতি ঘোষিত বিভিন্ন আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজ বাস্তবায়নে বিনিয়োগ করতে হবে। অর্থ বিনিয়োগের খাতগুলো উল্লেখ করে মাসিক ভিত্তিতে বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেট ম্যানেজমেন্ট ডিপার্টমেন্টকে অবহিত করতে হবে।

>> এ রেপোর মাধ্যমে নেওয়া অর্থ বাংলাদেশ ব্যাংকের ডেট ম্যানেজমেন্ট ডিপার্টমেন্টের অনুমোদন ছাড়া সরকারি সিকিউরিটিজ ও বাংলাদেশ ব্যাংক বিলে বিনিয়োগ করা যাবে না।

>> প্রচলিত নিয়ম অনুসারে ব্যাংক ও আর্থিক প্রতিষ্ঠানগুলো বাংলাদেশ ব্যাংকে বিড দাখিল করবে। এ নির্দেশনা অবিলম্বে কার্যকর হবে এবং পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত এই ব্যবস্থা বলবৎ থাকবে।

কোভিড-১৯ মহামারীর ক্ষতি পুষিয়ে দিতে সরকার ও বাংলাদেশ ব্যাংক এ পর্যন্ত প্রায় এক লাখ কোটি টাকার দশটি আর্থিক প্রণোদনা প্যাকেজ ঘোষণা করেছে। সেগুলোর বাস্তবায়ন ইতোমধ্যে শুরু হয়ে গেছে।