স্বাস্থ্যে সর্বোচ্চ বরাদ্দ সম্ভবপর নয়: পরিকল্পনামন্ত্রী

  • জাফর আহমেদ, জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-05-19 19:13:56 BdST

bdnews24

কোভিড-১৯ মহামারীকালে দেশের স্বাস্থ্য ব্যবস্থার দৈন্য ফুটে ওঠায় আসছে বাজেটে এখাতে বরাদ্দ অনেক বাড়ানোর দাবি ‍উঠলেও ‘বাস্তবসম্মত নয়’ বলে তা নাকচ করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী আবদুল মান্নান।

মঙ্গলবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের সভার পর সংবাদ সম্মেলনে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নে বলেন, “সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ হচ্ছে যাকে টাকা দেব, সে কোথায় কীভাবে খরচ করবে?

“তারা একটা গ্রহণযোগ্য বিশ্বাসযোগ্য ভালো মানের প্রকল্প নিয়ে আসুক। তার (স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের) দক্ষতার প্রশ্ন আছে, তার ব্যবহার করার সক্ষমতার প্রশ্ন আছে।”

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সভাপতিত্বে এই বৈঠকেই আগামী অর্থবছরের বার্ষিক উন্নয়ন কর্মসূচিতে (এডিপি) বরাদ্দ অনুমোদন হয়।

আগামী অর্থবছরের জন্য স্বাস্থ্য খাতে ১৩ হাজার ৩৩ কোটি টাকা বরাদ্দ রাখা হয়েছে, যা মোট এডিপির ৬ দশমিক ৩৫ শতাংশ।

খাতগুলোর মধ্যে বরাদ্দের নিরিখে স্বাস্থ্য সপ্তম অবস্থানে রয়েছে। আগের মতোই সর্বোচ্চ বরাদ্দ রাখা হয়েছে যোগাযোগ খাতে।

স্বাস্থ্যে বরাদ্দ বাড়িয়ে ২ লাখ ৫ হাজার কোটি টাকার এডিপি  

এবার হোক স্বাস্থ্য বাজেট: আতিউর  

নতুন বাজেটে স্বাস্থ্য খাতে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দেওয়ার আহ্বান জানিয়ে সম্প্রতি সাবেক গভর্নর আতিউর রহমান বলেছিলেন, স্বাস্থ্য খাতকে খোলনলচে বদলে ফেলতে হবে, এজন্য এই খাতকে অগ্রাধিকার দিয়ে বাজেট সাজাতে হবে।

পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, “স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের সক্ষমতা থাকলেও খাওয়ার একটা মাত্রা আছে। এক বেলায় তিন বেলার ভাত খেতে পারবে না।

“এসব বিচার করে যে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে, তা গত অর্থবছরের তুলনায় এক হাজার কোটি টাকা থেকে বেশি মনে হয় (আসলে প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকা বেশি)।”

মান্নান বলেন, “কৃষির জন্যও একই কথা বলা আছে, তাদের জন্যও দরজা খোলা। আজকেও মাননীয় প্রধানমন্ত্রী তিন বার বলেছেন, কৃষি এবং স্বাস্থ্য উচ্চ অগ্রাধিকার পাচ্ছে। আমাদেরকেও বলেছেন, আপনার তাদের প্রকল্প আসলে দ্রুত প্রক্রিয়া করবেন।”

আগামী অর্থবছরের এডিপিতে কৃষি খাতের জন্য ৮ হাজার ৩৮২ কোটি টাকার বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। চলতি অর্থবছরে তা ছিল ৬ হাজার ৬২৪ কোটি টাকা।