পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

অভিযোগ ‘সুনির্দিষ্টভাবে’ করুন: এনবিআর চেয়ারম্যান

  • নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2022-01-25 17:55:18 BdST

ভ্যাট ও আয়কর নিয়ে মাঠ পর্যায়ের ব্যবসায়ীদের ‘হয়রানির’ অভিযোগ সুনির্দিষ্টভাবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডে (এনবিআর) করার পরামর্শ দিয়েছেন সংস্থার চেয়ারম্যান আবু হেনা মো. রহমাতুল মুনিম।

মঙ্গলবার এনবিআর সম্মেলন কক্ষে এক সংবাদ সম্মেলন ব্যবসায়ীদের অভিযোগের বিষয়ে এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ পরামর্শ দেন।

এনবিআর চেয়ারম্যান বলেন, “অনেক অভিযোগ আছে, কোথায় করেছেন? অন্য কোনো এক জায়গায় করেছেন। আমার কাছে অভিযোগ নিয়ে আসেননি। অভিযোগ তো আমাদের কাছে করতে হবে।

“সুনির্দিষ্ট অভিযোগ আমাদের কাছে দেন। দেখেন, আমরা সেটার প্রতিকার করি কি না, ব্যবস্থা নিই কি না।”

ঢালাও অভিযোগ না করার পরামর্শ দিয়ে তিনি আরও বলেন, “অভিযোগ করার জায়গা থাকতে হবে নির্দিষ্টভাবে, সে জায়গায় করেন। অভিযোগ করার সুনির্দিষ্ট কারণ লেখা থাকবে।”

শনিবার এফবিসিসিআইয়ের এক মতবিনিময় সভায় ব্যবসায়ীরা অভিযোগ করেন, কোভিড মহামারীতে বিপর্যস্ত ব্যবসা-বাণিজ্যের মধ্যেও রাজস্ব আদায় করতে তাদেরকে নানাভাবে হয়রানি ও ভীতির পরিবেশ তৈরি করছেন রাজস্ব কর্মকর্তারা।

তা নিয়ে পরদিন সাংবাদিকদের প্রশ্নে অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তাফা কামাল বলেছিলেন, ব্যবসায়ীদের কোনো অভিযোগ যদি থাকে, তারা যেন সরাসরি তার কাছে যান। সে অনুযায়ী আলাপ-আলোচনার ভিত্তিতে পদক্ষেপ নেবেন তিনি।

বুধবার আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস উপলক্ষে আগের দিন ডাকা সংবাদ সম্মেলনে ব্যবসায়ীদের অভিযোগের বিষয়ে প্রশ্নের উত্তর দেন এনবিআর চেয়ারম্যান মুনিম।

রাজস্ব আদায়ে নিয়োজিত কিছু কর্মকর্তার ‘অনিয়ম ও অবিচারে’ জড়িত থাকার কথা স্বীকার করে তিনি বলেছেন, অভিযোগ পেলে সে বিষয়েও প্রতিকারের ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, “আমরা তো অনেক অফিসার, অনেক মানুষ, তাদের মধ্যে দুয়েকজন তো কোনো কারণে অন্যায়-ভুল করে থাকতে পারে, হতেই পারে; বা লোভের বশবর্তী হয়ে কিছু একটা করতেই পারে। আপনারা আসেন আামাদের কাছে, আমরা প্রতিকারের ব্যবস্থা নিব।”

কাস্টমসে পণ্য খালাসে দেরি নিয়েও সুনির্দিষ্ট অভিযোগ দিতে বলেন এনবিআর চেয়ারম্যান।

“আমরাও শুনেছি এ ধরনের কথা, জেনারেল কথা, আমরা কোনো অভিযোগ পাইনি। এই রকম জেনারেল কথার কীভাবে জবাব দেব? আমরা আহ্বান করছি, সুস্পষ্ট অভিযোগ দেওয়ার জন্য, কোন সময় কোন ঘটনা ঘটছে, সেটার জন্য সাফার করানো হচ্ছে, অভিযোগ দেন, আমরা ব্যবস্থা নেব।”

ভ্যাট-কর নিয়ে অভিযোগ সরাসরি জানতে চান অর্থমন্ত্রী  

ঋণ শ্রেণিকরণে সময় না বাড়ালে ৫০% ব্যবসায়ীই খেলাপি হবেন: এফবিসিসিআই  

চিকিৎসক ও আইনজীবীদের নেওয়া টাকার জন্য রশিদ চায় দুদক  

এনবিআর সদস্য সাদিক বলেন, কিছু ক্ষেত্রে কাগজপত্রে ঘাটতি থাকার কারণে আমদানি পণ্য খালাসে বিলম্ব হয়। সেটা প্রতিকারেরও সুনির্দিষ্ট ব্যবস্থা এনবিআরের রয়েছে।

তিনি বলেন, চট্টগ্রাম কাস্টমসে প্রতিদিন বিল অব এন্ট্রি দাখিল হয় সাড়ে সাত হাজার। এর মধ্যে পাঁচ হাজারের বেশি হচ্ছে রপ্তানি বিষয়ক। আর আমদানির বিল অব এন্ট্রি হচ্ছে দুই হাজারের মতো।

“দুই হাজার বিল অব এন্ট্রির মধ্যে দুয়েকটাতে হয়ত চালান ছাড়ে বিলম্ব হতেই পারে। কারণ অনেকগুলো ক্ষেত্রে দেখা যায় যে, বিভিন্ন সংস্থার প্রত্যয়নপত্র দাখিল করতে হয়। কিন্তু কাস্টমস অ্যাসেসমেন্ট করে রেভিনিউ আদায় করে পণ্যটা ছাড় দিয়ে দেবে, সেগুলা নাই। অনেক ক্ষেত্রে কন্ডিশনাল ইমপোর্ট থাকে।”

আমদানি শুল্ক ও কর প্রত্যাহার করার পরও করোনাভাইরাসের সুরক্ষা সরঞ্জামের ক্ষেত্রে করারোপ করার পেছনে ছাড়পত্র না থাকাকে কারণ হিসেবে দেখান এনবিআর সদস্য সাদিক।

তিনি বলেন, “এক্ষেত্রে ড্রাগ অ্যাডমিনিস্ট্রেশনের প্রত্যয়নপত্র আনতে হবে। যারা আনতে পেরেছে, তাদেরটা ছাড় করা হয়েছে। যারা আনতে পারে নাই, তাদেরটা ছাড় করা হয়নি। শর্ত পূরণ করলে ছাড় করে দেওয়া হবে।”

‘চিকিৎসকদের রসিদের চিঠি এনবিআরকে কেন?’

চিকিৎসক ও আইনজীবীরা সেবাগ্রহীতাদের কাছ থেকে যে অর্থ নেন, তা যথাযথভাবে করের আওতায় আনার সুপারিশ করে গত অগাস্টে এনবিআরকে চিঠি দিয়েছিল দুর্নীতি দমন কমিশন (দুদক)।

সেসময় দুদক সচিব আনোয়ার হোসেন হাওলাদার সাংবাদিকদের বলেছিলেন, “আমরা চাইছি যে ডাক্তার এবং আইনজীবী, তারা ক্লায়েন্টদের থেকে যে টাকা গ্রহণ করেন, তাদের সেবার জন্য, এই ক্ষেত্রে যদি তাদেরকে (সেবাগ্রহীতা) রসিদ দেওয়া হয়, অর্থ গ্রহণ করে যদি রসিদ দেওয়া হয়, তাহলে এটি এনবিআরের হিসাবে আসে।

তখন ট্যাক্স ফাইলটা আপডেট করা সহজ হবে। সরকারের রাজস্ব আয় রাড়বে।”

সেই পরামর্শ এনবিআরকে না দিয়ে চিকিৎসক ও আইনজীবীদের নিয়ে কাজ করা মন্ত্রণালয় বা বিভাগকে দেওয়ার পরামর্শ দেন এনবিআর চেয়ারম্যান মুনিম।

দুদকের চিঠির অগ্রগতির বিষয়ে এক প্রশ্নে তিনি বলেন, “রিসিট দিয়ে করতে হবে, এটা এককভাবে এনবিআর কেন? এটা যদি স্বাস্থ্য বিভাগ থেকে বাস্তবায়ন করে, আমরা স্বাস্থ্য বিভাগ পর্যন্ত লিখতে পারি, ব্যক্তিবিশেষ ডাক্তারের কাছে এনফোর্স করা আমাদের জন্য সুখকর বিষয় হবে না।

“দুদক বরং এই সুপারিশটা দিতে পারত, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কাছে, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কাছে। আমরাও আমাদের তরফ থেকে এই সুপারিশটা স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের কাছে করতে পারি। এখনও করি নাই, আমরাও এটা পর্যালোচনা করছি, দুদকের এই সুপারিশের প্রেক্ষিতে রেভিনিউ আদায়ের জন্য কোন কার্যক্রম গ্রহণ করা যায়।”

করোনাভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ার কারণে সীমিত পরিসরে আন্তর্জাতিক কাস্টমস দিবস উদযাপন করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন এনবিআর চেয়ারম্যান।

দিবসটি উপলক্ষে সকাল ১১টায় হোটেল ইন্টারকন্টিনেন্টালে এনবিআর আয়োজিত সেমিনারে প্রধান অতিথি থাকবেন কৃষিমন্ত্রী আব্দুর রাজ্জাক।