১১ ডিসেম্বর ২০১৮, ২৭ অগ্রহায়ণ ১৪২৫

নায়করাজের সেরা পাঁচ

  • শান্তা মারিয়া, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2016-01-23 11:36:51 BdST

bdnews24

নায়করাজ রাজ্জাক তার পাঁচ দশকের অভিনয় ক্যারিয়ারে তিনশরও বেশি চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন। এর মধ্যে এমন অনেক ছবি রয়েছে যা অভিনয়, কাহিনি, পরিচালনা ও অন্যান্য কারণে দর্শকের কাছে স্মরণীয় হয়ে আছে। রাজ্জাক অভিনীত এমন পাঁচটি ছবি নিয়ে আজকের আয়োজন।

অশিক্ষিত

অশিক্ষিত মুক্তি পায় ১৯৭৮ সালে। ছবির পরিচালক ছিলেন আজিজুর রহমান। সংগীত পরিচালক ছিলেন সত্য সাহা।  ছবিতে রাজ্জাকের সঙ্গে অভিনয় করেছিলেন অঞ্জনা, রোজি সামাদ, শওকত আকবর এবং মাস্টার সুমন। ছবির কাহিনিতে দেখা যায়, গ্রামের চৌকিদার রহমত (রাজ্জাক) লেখাপড়া জানে না। অশিক্ষিত রাজ্জাককে লেখাপড়া শেখায় গ্রামের দরিদ্র অনাথ বালক মাস্টার সুমন। রাজ্জাক নাম দস্তখত করা শেখে তার কাছে। কাহিনির শেষ পর্যায়ে দুর্নীতিবাজ আড়তদারের অপরাধ দেখে ফেলায় খুন হয় সুমন। তার খুনের সাক্ষী হয় রাজ্জাক এবং তার সাক্ষ্যে শাস্তি হয় অপরাধীর। সাক্ষীর দরখাস্তে নিজ হাতে নাম সই করে রাজ্জাক। ছবিটি বাণিজ্যিকভাবে দারুণ সফল হয়। পাশাপাশি সমালোচকদের প্রশংসাও কুড়ায়। এ ছবির একটি গান ‘মাস্টার সাব আমি নাম দস্তখত শিখতে চাই’ দারুণ জনপ্রিয়তা পায়। গানটিতে কণ্ঠ দিয়েছিলেন খন্দকার ফারুক আহমেদ এবং শাম্মী আখতার। গানের কথা লিখেছিলেন গাজী মাজহারুল আনোয়ার। অশিক্ষিত রহমত চৌকিদারের ভূমিকায় অনবদ্য অভিনয় করেন রাজ্জাক। এ ছবিতে অভিনয়ের সুবাদে সেরা অভিনেতার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয় করেন তিনি।

চন্দ্রনাথ

‘চন্দ্রনাথ’ মুক্তি পায় ১৯৮৪ সালে। ছবিটির পরিচালক ছিলেন চাষী নজরুল ইসলাম। ছবিতে আরও অভিনয় করেন দোয়েল, সুচন্দা ও গোলাম মুস্তাফা। সংগীত পরিচালক ছিলেন নুরুল ইসলাম। গীতিকার রফিকুজ্জামান। কণ্ঠশিল্পী ছিলেন সাবিনা ইয়াসমিন, সুবীর নন্দী ও প্রবাল চৌধুরী।

শরৎচন্দ্র চট্টোপাধ্যায়ের উপন্যাস অবলম্বনে নির্মিত হয় এই সিনেমা। কাহিনিতে দেখা যায়, কাশিতে গিয়ে দরিদ্র তরুণী সরযূর (দোয়েল) সঙ্গে পরিচয় হয় তরুণ জমিদার চন্দ্রনাথের (রাজ্জাক)। সরযূকে ভালোবেসে তাকে বিয়ে করে গ্রামে নিয়ে আসেন চন্দ্রনাথ। কিন্তু এক সময় শোনা যায় সরযূর মায়ের চরিত্র নিয়ে বদনাম রয়েছে। সমাজের কারণে সরযূকে ত্যাগ করে কাশি পাঠিয়ে দেন চন্দ্রনাথ। তিনি নিজেও গৃহত্যাগ করেন। বেশ কয়েক বছর পর অনেক ঘটনার মধ্য দিয়ে আবার তাদের মিলন হয়। ছবিটি বাণিজ্যিকভাবে সফল এবং সমালোচকদের প্রশংসায় সিক্ত। সাহিত্যনির্ভর চলচ্চিত্রের নায়ক হিসেবে পরিশীলিত বাচনভঙ্গী, সুদর্শন অবয়ব এবং সুঅভিনয়ের কারণে চন্দ্রনাথ চরিত্রে দারুণ মানানসই ছিলেন রাজ্জাক। ছবিটি জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারের আসরে ৪টি পুরস্কার জয় করে। সেরা অভিনেতার পুরস্কার জয় করেন রাজ্জাক।

বড় ভালো লোক ছিল

ব্যতিক্রমী কাহিনির একটি চলচ্চিত্র ‘বড় ভালো লোক ছিল’। ১৯৮২ সালে মুক্তি পায় ছবিটি। পরিচালক ছিলেন মোহাম্মদ মহিউদ্দিন। ছবিতে আরও অভিনয় করেন অঞ্জু ঘোষ, প্রবীর মিত্র ও আনোয়ার হোসেন। সংগীত পরিচালক আলম খান। গানের কথা লিখেছিলেন সৈয়দ শামসুল হক। কণ্ঠশিল্পী ছিলেন রুনা লায়লা ও এন্ড্রু কিশোর।

কাহিনিতে দেখা যায় গ্রামের এক দরবেশের (আনোয়ার হোসেন) ছেলে রাজ্জাক আধুনিক শিক্ষায় শিক্ষিত। ট্রাক দুর্ঘটনায় বাবার অকাল মৃত্যুতে গ্রামে আসেন রাজ্জাক। তিনি আধ্যাত্বিক শক্তিকে স্বীকার না করলেও তার মধ্যে সেটির প্রকাশ দেখা যায়। গ্রামের মেয়ে অঞ্জু ঘোষ ভালোবাসে ট্রাক চালক প্রবীর মিত্রকে। অঞ্জুকে দেখে তার প্রতি প্রলুব্ধ হন রাজ্জাক। কিন্তু এই ঘটনার পর তার আধ্যাত্বিক ক্ষমতা চলে যায়। পরে নিজের ভুল বুঝতে পেরে সুপথে ফিরে আসেন তিনি এবং মানবসেবায় আত্মনিয়োগ করেন। জটিল এই চরিত্রে চমৎকার অভিনয় উপহার দেন নায়করাজ।

ছবির গানগুলো দারুণ জনপ্রিয়তা পায়। ‘হায় রে মানুষ রঙিন ফানুস’, ‘আমি চক্ষু দিয়া দেখতাছিলাম জগৎ রঙিলা’ ইত্যাদি গান লোকের মুখে মুখে ফেরে। ছবিটি ৬টি বিভাগে জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার জয় করে। সেরা অভিনেতার পুরস্কার ঘরে তোলেন রাজ্জাক।

কি যে করি

১৯৭৬ সালে মুক্তি পায় 'কি যে করি'। রাজ্জাক-ববিতা জুটি অভিনীত ছবিটির পরিচালক ছিলেন জহিরুল হক। সংগীত পরিচালক ছিলেন আলম খান। গীতিকার ছিলেন মুকুল চৌধুরী। সংগীতশিল্পী ছিলেন সাবিনা ইয়াসমিন ও মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী।

ছবির কাহিনিতে দেখা যায় অত্যাচারী বাবার হাতে মাকে জীবন দিতে দেখে শৈশব থেকেই পুরুষকে ঘৃণা করেন ববিতা। কিন্তু তার দাদার উইল অনুসারে সম্পত্তি পেতে হলে বিয়ে করতে হবে। তাই তিনি ফাঁসির আসামী রাজ্জাককে বিয়ে করেন। কিন্তু ঘটনাক্রমে আদালতে খালাস পান রাজ্জাক। এর পর জন্ম হয় নানা মজার ঘটনার। অবশেষে রাজ্জাককে মন থেকে গ্রহণ করেন ববিতা। ছবিটি বাণিজ্যিকভাবে দারুণ সফল হয়। এ ছবিতে অভিনয়ের জন্য সেরা অভিনেতার জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান রাজ্জাক। রোমান্টিক কমেডি হিসেবে ছবিটি দারুণ উপভোগ্য হয় দর্শকের কাছে। এ ছবির ‘শোনো গো রূপসী ললনা’, ‘না আমি কারও চাকরি করি’ ইত্যাদি গান বেশ জনপ্রিয়তা পায়।

অবুঝ মন

১৯৭২ সালে মুক্তি পাওয়া ছবিটির পরিচালক ছিলেন কাজী জহির। বাংলাদেশের একটি চিরসবুজ প্রেমের ছবি ‘অবুঝ মন’। রাজ্জাক-শাবানা জুটি অভিনীত এ ছবিতে আরও ছিলেন সুজাতা, শওকত আকবর , নারায়ণ চক্রবর্তি, এটিএম শামসুজ্জামান প্রমুখ। স্বাধীনতার আগেই ছবিটির অধিকাংশ কাজ সম্পন্ন হয়েছিল। ছবিটির সংগীত পরিচালক ছিলেন শহীদ বুদ্ধিজীবী আলতাফ মাহমুদ। গান লিখেছিলেন ড. মনিরুজ্জামান ও গাজী মাজহারুল আনোয়ার। সংগীতশিল্পী ছিলেন, ফেরদৌসী রহমান, সাবিনা ইয়াসমিন ও আবদুল জব্বার।

ছবির কাহিনিতে দেখা যায়, দরিদ্র যুবক মাসুম ( রাজ্জাক) বন্ধু বিজয়ের (শওকত আকবর) সহায়তায় ডাক্তারি পাশ করে গ্রামে আসে গ্রামের মানুষের সেবায় কাজ করার জন্য। মাসুমকে ভালোবাসে তার সহপাঠী ডা.রাবেয়া (সুজাতা)। কিন্তু মাসুম সেটি জানে না। পথে ট্রেনে তার পরিচয় হয় জমিদারকন্যা মাধবীর (শাবানা) সঙ্গে। পরিচয় রূপ নেয় প্রেমে। কিন্তু তারা দুজন ভিন্ন ধর্মের মানুষ। বাধা হয়ে দাঁড়ায় সমাজ। মাধবীর বাবা জমিদার (নারায়ণ চক্রবর্তি)। মাসুম দরিদ্র। এটিও তাদের মিলনের পথে বাধা। জমিদারের অনুরোধে গ্রাম ছেড়ে চলে যায় মাসুম। মাসুমের বন্ধু বিজয়ের সঙ্গে বিয়ে হয় মাধবীর। কিন্তু তাদের প্রেম মরে না। মাসুম-মাধবীর প্রেমের কথা জানতে পেরে তাদের কাছ থেকে নিজেকে সরিয়ে নিতে চায় বিজয়। কিন্তু সড়ক দুর্ঘটনায় দৃষ্টি হারায় সে। মাসুম তাকে নিজের একটি চোখ দান করে। মাধবীকে অনুরোধ করে বিজয়কে ভালোবাসতে। মাধবী সে কথা মেনে নিয়ে মাসুমের সঙ্গে রাবেয়ার জীবন যুক্ত করে দেয়। ধর্মীয় ও সামাজিক পরিচয়ের অনেক উপরে প্রেমের ও মানবতার বিজয় ঘোষণা করে ‘অবুঝ মন’ ছবিটি। ‘অবুঝ মন’ তুমুল জনপ্রিয়তা পায়। এ ছবির ‘শুধু গান গেয়ে পরিচয়’ গানটি এখনও দারুণ জনপ্রিয়।