১৮ ডিসেম্বর ২০১৮, ৪ পৌষ ১৪২৫

বক্স অফিসে ‘অস্তিত্ব’ কোথায়?

  • তানজিল আহমেদ জনি,  বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2016-05-13 13:16:50 BdST

bdnews24

৬ মে সারাদেশে মুক্তি পেয়েছে অনন্য মামুনের ‘অস্তিত্ব’। জুটি হিসেবে প্রথমবার আরিফিন শুভ ও নুসরাত ইমরোজ তিশা অভিনয় করায়, ‘অস্তিত্ব’ নিয়ে প্রত্যাশার পারদ ছিল উঁচুতেই। দর্শকের সেই প্রত্যাশা কতখানি মেটাতে পারল সিনেমাটি?

তরুণ প্রজন্মের দশর্কদের কাছ থেকে ভালো গ্রহণযোগ্যতা পেয়েছে সিনেমাটি। বলাকা, স্টার সিনেপ্লেক্স ও শ্যামলী সিনেমা হলে ‘অস্তিত্ব’ দেখতে দর্শক সমাগম বেশ ভালো হচ্ছে বলেই জানা গেছে। গড়পরতা ব্যবসা হয়েছে মধুমিতা সিনেমা হলে। ওদিকে রাজমনি ও সনি সিনেমা হলে আয়ের অঙ্ক নিচের দিকেই ছিল সিনেমাটির।

কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া ছেলেমেয়েরা সিনেমাটিকে লুফে নিয়েছেন এমন দাবী করলেন রাজধানীর বলাকা সিনেমা হলের ব্যাবস্থাপক। তাই দ্বিতীয় সপ্তাহেও ‘অস্তিত্ব’ সিনেমাটি প্রদর্শনের সিদ্ধান্ত নিয়েছে প্রেক্ষাগৃহ কর্তৃপক্ষ।

গ্লিটজকে তিনি বললেন, “দর্শক ‘অস্তিত্ব’ সিনেমাটি লুফে নিয়েছে। আমাদের প্রেক্ষাগৃহে যেহেতু কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় পড়ুয়া শিক্ষিত একটি দর্শকশ্রেণি রয়েছে সে কারনে সিনেমার টিকেট বিক্রি যথেষ্ট ভালো হচ্ছে।”

তিনি আরও বলেন, “আরিফিন শুভ ও নুসরাত ইমরোজ তিশা উভয়েরই একটা দর্শক চাহিদা রয়েছে। ফলে উভয়ের ভক্তরা সিনেমাটি দেখার জন্য প্রেক্ষাগৃহে এসেছেন। শুভ ও তিশার অভিনয় দেখে প্রেক্ষাগৃহে কিছুক্ষণ পরপরই তাদের ভক্তরা মুগ্ধ হয়ে করতালি দিয়েছেন। শুক্রবারের ইভিনিং শো এবং শনিবারের ম্যাটিনি ও ইভিনিং শো দুটো হাউজফুল গেছে। এছাড়াও মঙ্গলবারের ম্যাটিনি ও ইভিনিং শো দুটো প্রায় হাউজফুলের মতোই ছিলো। তাই আমরা দ্বিতীয় সপ্তাহেও আমাদের প্রেক্ষাগৃহে ‘অস্তিত্ব’ সিনেমাটি প্রদর্শন করার সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

একই সুর বসুন্ধরা সিটির মাল্টিপ্লেক্স সিনেমা হল স্টার সিনেপ্লেক্সের ব্যাবস্থাপকের মুখেও। তিনি বলেন, “শুক্র ও শনিবার ‘অস্তিত্ব’ সিনেমার জন্য দর্শক উপস্থিতি ৭০ শতাংশেরও বেশি ছিল। এখনও সিনেমাটি দেখতে দর্শক আসছেন। আমরা পরের সপ্তাহেও সিনেমাটি দেখাবো। বাংলা সিনেমার হিসেবে ‘অস্তিত্ব’র টিকেট বিক্রি বেশ ভালো।”

‘অস্তিত্ব’ সিনেমার কোনো শো হাউজফুল না হলেও দ্বিতীয় সপ্তাহেও এই সিনেমা প্রদর্শনের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন রাজধানীর শ্যামলী সিনেমা হলের ব্যবস্থাপক।

গ্লিটজকে তিনি বললেন, “সিনেমাটির টিকেট বিক্রি ভালোই হচ্ছে, খারাপ বলা যায় না। তাছাড়া সিনেমার গল্প ও শুভ-তিশার একটা ভালো ভক্ত শ্রেণি থাকার কারণে বেশ ভালোই যাচ্ছে ‘অস্তিত্ব’। যদিও এই সিনেমার কোনো শো হাউজফুল হয়নি তারপরও দ্বিতীয় সপ্তাহে এই সিনেমা প্রদর্শন করবো।”

ওদিকে, শুক্রবারের ইভিনিং শো হাউজফুল হলেও লাভ লোকশানের অঙ্কটা গড়পড়তা-- এমনটাই বললেন রাজধানীর মধুমিতা সিনেমা হলের ম্যানেজার রেজাউল করিম।

গ্লিটজকে তিনি বললেন, “‘অস্তিত্ব’ সিনেমার টিকেট বিক্রি একেবারে খারাপও হয়নি আবার খুব ভালোও হয়নি। আয় লাভ-লোকসানের মাঝামাঝি রয়েছে, বলতে পারেন গড়পড়তা হয়েছে। অন্তত এই সপ্তাহে লোকসানের পরিমাণ তেমনটি নয়।”

তবে উল্টো চিত্র রাজধানীর রাজমনি ও সনি সিনেমা হলে।

‘অস্তিত্ব’ সিনেমা প্রদর্শনের ফলে এই সপ্তাহে লোকসান গুনতে হয়েছে, এমনটাই দাবি করলেন রাজমনি সিনেমা হলের ব্যবস্থাপক।

গ্লিটজকে তিনি বললেন, “টিকেট বিক্রি থেকে আশানুরূপভাবে ফলাফল পাইনি। সিনেমাটি একজন প্রতিবন্ধীর গল্প নিয়ে নির্মিত হওয়ার কারণে প্রেক্ষাগৃহে দর্শক তেমন হয়নি। আরিফিন শুভের ভালো দর্শক শ্রেণি থাকা স্বত্বেও এই সিনেমার গল্পের কারণে টিকেট বিক্রি ভালো হয়নি।”

কারণ হিসেবে তিনি উল্লেখ করেছেন সিনেমার গল্পকে। “আমাদের হলের নিয়মিত দর্শকরা সাধারণত এমন গল্পের সিনেমাকে তেমন পছন্দ করেন না। এই সপ্তাহে আমাদের লোকসান গুনতে হলো। আগামী সপ্তাহে লোকসান কিছু হলেও যাতে কম হয় সেজন্য শাকিব খানের একটি পুরনো সিনেমা প্রদর্শনের সিদ্ধান্ত নিয়েছি।”

আয়ের খাতায় ‘অস্তিত্ব’ সিনেমার অস্তিত্ব নেই-- এমনটাই দাবী করলেন রাজধানীর সনি সিনেমা হলের ব্যাবস্থাপক। এর প্রধাণ কারণ হিসেবে উল্লেখ করলেন প্রতিবন্ধী চরিত্রে তিশার উপস্থাপনাকে। 

গ্লিটজকে তিনি বললেন, “‘অস্তিত্ব’ সিনেমার তো কোনো অস্তিত্বই নেই। দর্শক এই সিনেমা গ্রহণ করেনি। তার অন্যতম কারণ হলো প্রতিবন্ধী চরিত্রে তিশাকে দর্শক গ্রহণ করেনি। শুধু তাই নয় আরিফিন শুভকেও তার চরিত্রে দর্শক গ্রহণ করেনি। এমন প্রতিবন্ধী চরিত্রের গল্পের সিনেমা দেখতে প্রেক্ষাগৃহে দর্শক মোটেও আসে না।”

তিনি আরও বলেন, “সত্যি বলতে আমরা তো তিশাকে দেখেই এই সিনেমা প্রদর্শনের জন্য তুলেছিলাম। আমাদের খুবই আশা ছিল সম্ভবত ‘অস্তিত্ব’ সিনেমাটি ভালো যেতে পারে। প্রতিবন্ধীর গল্প নিয়ে নির্মিত সিনেমা দেখতে আসলেই কেউ প্রেক্ষাগৃহে আসে না। যেসব দর্শক সিনেমা দেখতে আসেন তারা শুধু তিশাকে দেখার জন্যই আসেন। সিনেমা দেখার পর গালাগালি করে প্রেক্ষাগৃহ থেকে বেড়িয়ে যাচ্ছেন। তবে দ্বিতীয় সপ্তাহে এই সিনেমা প্রদর্শন করছি না।”