২১ এপ্রিল ২০১৯, ৮ বৈশাখ ১৪২৬

মুক্তিযোদ্ধা বীরাঙ্গনার জীবন সংগ্রাম নিয়ে ‘রাইজিং সাইলেন্স’

  • গ্লিটজ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-01-08 20:19:09 BdST

bdnews24

মুক্তিযোদ্ধা বীরাঙ্গণাদের জীবন নিয়ে নির্মিত হয়েছে পূর্ণদৈর্ঘ্য প্রামাণ্য চলচ্চিত্র ‘রাইজিং সাইলেন্স’।

লীসা গাজীর পরিচালনায় মুক্তিযোদ্ধা বীরাঙ্গণাদের জীবন নিয়ে নির্মিত হলো পূর্ণদৈর্ঘ্য ছবি ‘রাইজিং সাইলেন্স’। আগামী ১২ জানুয়ারী জাতীয় যাদুঘর মূল মিলনায়তনে বিকেল পাঁচটায় চলচ্চিত্রটির উদ্বোধনী প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হবে ।

ছবিটি প্রযোজনা করেছে লন্ডন ভিত্তিক সংগঠন কমলা কালেক্টিভ, ওপেনভাইযার ও মেকিং হারস্টোরী এবং সহযোগীতা করেছেন মানুষের জন্য ফাউন্ডেশন ও দ্য ওসিরিস গ্রুপ। বাংলাদেশে ছবিটি প্রদর্শনীতে সহযোগীতা করেছে বিকাশ।

বিট্রিশ বাংলাদেশী অভিনেতা, নাট্যকার লীসা গাজী তার প্রথম ছবিটি এই নারীদের গল্প নারীদের প্রেক্ষিতে বলতে চেয়েছেন। নির্মাতার ভাষ্যে- ‘রাইজিং সাইলেন্স’ ছবিটি নারীর সাথে নারীর সর্ম্পকের পরিভ্রমণ- যারা যুদ্ধ সয়েছেন, যুদ্ধের হিংস্রতা আর পরবর্তীতে দৈনন্দিন বিদ্বেষ সত্ত্বেও আগামী দিন গড়তে ক্ষত মুছেছেন শর্তহীন ভালোবাসায়।

লীসার বাবা একজন মুক্তিযোদ্ধা। ছোট বেলা থেকেই মুক্তিযুদ্ধের গল্প শুনে বেড়ে উঠেছেন। তিনি জানান, ২০১০ সালে ২১ জন বীরাঙ্গণার সাথে তার সাক্ষাৎ হয়। তখন থেকেই বীরাঙ্গণাদের ব্যক্তিগত গল্প সংগ্রহ করেন। ২০১৪ সালে লীসা গাজী ও সামিনা লুৎফার যৌথ রচনায় নির্মিত হয় নাটক ‘বীরাঙ্গণা:যুদ্ধের নারী’। এটি প্রযোজনা করে লন্ডনের নাট্য ও সংস্কৃতি সংগঠন কমলা কালেক্টিভ। নাটকটি বাংলাদেশে ও লন্ডনে প্রর্দশিত ও প্রংশসিত হয়। তখন থেকেই এই চলচ্চিত্রটি নির্মানের অনুপ্রেরণা পান তিনি।

চলচ্চিত্রটি প্রসঙ্গে নির্মাতা বলেন, “একাত্তরে বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধকালে দুই লাখের বেশি নারী ও কিশোরী পাকিস্তানী সেনাবাহিনীর যুদ্ধকৌশলের অংশ হিসেবে নির্বিচারে ধর্ষণ ও নির্যাতনের শিকার হন। বাঙালির স্বাধীনতার যুদ্ধকে আমরা ডাকি জনযুদ্ধ বলে, যেখানে মুক্তিযোদ্ধারা হয়ে ওঠেন সেই জনযুদ্ধের অগ্রসেনা আর এই নারীরা চাপা পড়ে যান উপেক্ষার তলে। কারন ধর্ষণ এই সমাজে এক অনন্ত ঘৃণার উৎস, ধর্ষক নয়! ধর্ষিত এই নারীরা চলে গিয়েছিলেন নীরবতা, বিচ্ছিন্নতা আর বিস্মৃতির অন্তরালে। এই ছবি তাদের গল্প নিয়ে এসেছে ভবিষ্যৎ প্রজন্মের কাছে, কিভাবে তারা লড়াই করেছেন মুক্তিযুদ্ধে এবং মুক্তিযুদ্ধোত্তর বাংলাদেশে।”

শাহাদাত হোসেনের চিত্রগ্রহনে ছবিটির সংগীত পরিচালনা করেছেন সোহিনী আলম ও অলিভার উইকস এবং গবেষণা উপদেষ্টা হিসেবে ছিলেন হাসান আরিফ।

‘রাইজিং সাইলেন্স’ আগামী ১৮ জানুয়ারী সন্ধ্যা ৭ টায় কেন্দ্রীয় পাবলিক লাইব্রেরী মিলনায়তনে একই উৎসবে প্রদর্শিত হবে। ঢাকা আন্তজার্তিক ফিল্ম ফেস্ট্যিভ্যাল কর্তৃপক্ষ জানায়, এই ছবির টিকেট বিক্রির সম্পূর্ণ অর্থ তারা প্রদান করবেন মুক্তিযোদ্ধা বীরাঙ্গণা ও তাদের পরিবারকে।