স্মরণে সালমান! শাকিবের দেরি, পলকের প্রস্থান

  • গ্লিটজ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-09-19 18:13:23 BdST

সালমান শাহ জন্মোৎসবে  নির্ধারিত সময়ে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক উপস্থিত থাকলেও প্রায় দুই ঘণ্টা দেরি করেছেন ঢাকার চলচ্চিত্রের শীর্ষনায়ক শাকিব খান।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টায় রাজধানীর মধুমিতা প্রেক্ষাগৃহে প্রয়াত নায়ক সালমান শাহ’র জন্মদিনে এ অনুষ্ঠানের আয়োজন করে ঢুলি কমিউনিকেশন।

নির্ধারিত সময়ে প্রতিমন্ত্রী পলক অনুষ্ঠানে যোগ দিলেও প্রায় পৌনে দুই ঘণ্টায়ও দেখা মেলেনি অনুষ্ঠানের উদ্বোধক শাকিবের। সকাল ১১টায় এ অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করার কথা ছিল তার।

প্রধান অতিথির নির্ধারিত বক্তব্য শেষে অনুষ্ঠানস্থল থেকে বেরিয়ে যান প্রতিমন্ত্রী পলক। অনুষ্ঠানের উদ্বোধক শাকিব আসার জন্য আরও দশ মিনিট অনুষ্ঠানে থাকার অনুরোধ করা হলেও তিনি আর অপেক্ষা করেননি।

পলক বের হয়ে যাওয়ার পর বেলা ১২.৪৫ মিনিটে ভেন্যুতে প্রবেশ করেন শাকিব। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি পলকের অনুপস্থিতিতে দুপুর ১টার দিকে চিত্রনায়িকা বুবলি, টিএম ফিল্মসের চেয়ারম্যান ফারজানা মুন্নী, পরিচালক সোহানুর রহমান সোহান, চিত্রনাট্যকার ছটকু আহমেদকে নিয়ে সালমান শাহ’র ৪৮তম জন্মদিনের কেক কাটেন তিনি।

কেক কাটার আগে নিজের বক্তব্যে শাকিব বলেন, “আজ যার জন্মদিন সেই মানুষটা আমাদের মধ্যে নেই অনেক দিন হয়ে গেছে। তিনি এমন একজন মহান শিল্পী তার মৃত্যুর এতো বছর পরেও কোটি কোটি মানুষের মনে তিনি বসবাস করছেন। কোটি কোটি মানুষ তাকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করেন; তার জন্মদিনে, মৃত্যুদিনে। প্রতিটি মুহূর্তে তাকে ভালোবেসে স্মরণ করেন।”

তার বক্তব্যের সময় এফডিসির দর্শকসারি থেকে সালমান শাহর নামে এফডিসিতে ফ্লোর নামকরণের দাবি উঠলে শাকিব বলেন, তিনি এফডিসি কর্তপক্ষের সঙ্গে বিষয়টি নিয়ে কথা বলবেন।

এর আগে প্রধান অতিথির বক্তব্যে পলক বলেন, “ওনার  ফ্যাশন সচেতনতা, বাচনভঙ্গি-সেটা সময় দিয়ে বেঁধে রাখা সম্ভব নয়। উত্তম কুমার, অমিতাভ বচ্চন ও নায়করাজ রাজ্জাকের পর যদি কোনো নাম উল্লেখ করতে হয়, তাহলে আমি বলবো সেটা সালমান শাহ।

“সালমান শাহ যখন যে চরিত্রেই অভিনয় করতেন, সেই চরিত্রেই মানিয়ে নিতেন নিজেকে। তখন মনে হতো তিনি ওই চরিত্রটির জন্যই জন্মেছেন।”

উৎসবে আরও বক্তব্য রাখেন, সোহানুর রহমান সোহান, ফাল্গুনী হামিদ, ছটকু আহমেদ, অরুণ চৌধুরী, এস এ হক অলিক, শবনম বুবলী, জাহারা মিতু, দেওয়ান হাবিব ও উৎসব আহ্বায়ক নিপু বড়ুয়া।

আয়োজকরা জানান, ২০ সেপ্টেম্বর থেকে উৎসবে প্রদর্শিত হচ্ছে সালমান শাহ অভিনীত ৭টি বিশেষ সিনেমা। এরমধ্যে রয়েছে ২০ সেপ্টেম্বর ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’, ২১ তারিখ ‘তোমাকে চাই’, ২২ তারিখ ‘মায়ের অধিকার’, ২৩ তারিখ ‘চাওয়া থেকে পাওয়া’, ২৪ তারিখ ‘তুমি আমার’, ২৫ তারিখ ‘অন্তর অন্তরে’ এবং উৎসবের পর্দা নামবে ২৬ সেপ্টেম্বর ‘সত্যের মৃত্যু নাই’ ছবিটি দিনব্যাপী প্রদর্শনের মাধ্যমে।

মধুমিতা হল কর্তৃপক্ষ জানায়, শুক্রবারে (২০ সেপ্টেম্বর) মর্নিং শো-সহ চারটি প্রদর্শনী হবে ‘কেয়ামত থেকে কেয়ামত’ ছবির। বাকি ছবিগুলোর তিনটি করে শো হবে রোজ। শো টাইম: সকাল ১০টা থেকে ১২ টা (শুক্রবার), বেলা ১২টা থেকে ৩টা, ৩টা থেকে সন্ধ্যা ৬টা এবং ৬টা থেকে রাত ৯টা।

এর আগে ২০১৪ সালের ৬ সেপ্টেম্বর এই নায়কের মৃত্যুবার্ষিকীকে এমন আয়োজন করেছিল ঢুলি কমিউনিকেশনস। রাজধানীর বলাকা প্রেক্ষাগৃহে আয়োজিত উৎসবটি ব্যাপক সাড়া ফেলে সেসময়।