করোনাভাইরাস: ‘দূরত্ব বজায় রেখে’ মিশা-জায়েদ খানদের র‌্যালি

  • গ্লিটজ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-03-21 21:02:47 BdST

bdnews24

বৈশ্বিক মহামারীতে রূপ নেওয়া কভিড-১৯ রোগ নিয়ে সচেতনতামূলক র‌্যালিতে সতর্ক থাকতে নিজেদের মধ্যে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখতে দেখা গেছে ঢাকার চলচ্চিত্রের অভিনয়শিল্পীদের।

বাংলাদেশ চলচ্চিত্র শিল্পীদের আয়োজনে বংলাদেশ চলচ্চিত্র উন্নয়ন করপোরেশনে (এফডিসি) শনিবার দুপুর দেড়টায় এ র‌্যালির নেতৃত্ব দেন সংগঠনটির সভাপতি মিশা সওদাগর ও সাধারণ সম্পাদক জায়েদ খান।

জায়েদ খান সাংবাদিকদের বলেন, “মানুষের মধ্যে সচেতনতা তৈরি করতে মাস্ক ও হ্যান্ড গ্লাভস পরে নিজেদের মধ্যে নিরাপদ দূরত্ব রেখে র‌্যালি করছি।”

র‌্যালিতে অন্যান্যদের মধ্যে চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন, অঞ্জনা, রুবেল, অরুণা বিশ্বাস, আলেকজান্ডার বো, জয় চৌধুরীসহ আরও অনেকে অংশ নেন।

র‌্যালিতে নিজেদের মধ্যে দূরত্ব রাখতে পারলেও র‌্যালির আগে ও পরে নিজেদের মধ্যে নিরাপদ দূরত্ব বজায় রাখতে পারেনি অভিনয়শিল্পীরা।

পরে এফডিসির সামনে জনসাধারণে মাঝে বিনামূল্যে মাস্ক, হ্যান্ড স্যানিটাইজার ও গ্লাভস বিতরণ করা হয়েছে।

চিত্রনায়ক ইলিয়াস কাঞ্চন বলেন, “জনসমাগম এড়িয়ে চলতে হবে। ব্যবহারের জিনিস, নিয়মিত হাত ধোয়া থেকে শুরু করে সবকিছুইতে সচেতন থাকতে হবে। প্রয়োজনে নামাজ বা প্রার্থনা ঘরে বসে আদায়ের চেষ্টা করতে হবে। নিজেকে রক্ষা করার জন্য সচেষ্ট হলে অন্যজন ভালো থাকবে।”

করোনা পরিস্থিতির কারণে ৩১ মার্চ পর্যন্ত শিল্পী সমিতির কার্যক্রম বন্ধ থাকার কথা জানান শিল্পী সমিতির সভাপতি মিশা সওদাগর।

তিনি বলেন, “আমরা প্রত্যেকেই সচেতন থাকার চেষ্টা করছি। আমার স্ত্রী-সন্তান আছে নিউইয়র্ক। সেখানে তারা লকডাউন। আমিও যেতে চেয়েও পারিনি।

“আমাদের স্বাস্থ্য অধিদপ্তর ও সরকার করোনা নিয়ে অনেক সিরিয়াস। সেখান থেকে নির্দেশনা মানলেই করোনাভাইরাস থেকে দূরে থাকা যাবে। তৃণমূল থেকে একেবারে উচ্চপর্যায় পর্যন্ত সবাইকে সচেতন থাকতে হবে।”

করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় এর আগে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের বায়োপিক ‘বঙ্গবন্ধু’, জি-ফাইজের ওয়েব ফিল্ম ‘যদি…কিন্তু…তবু’র শুটিং স্থগিত করা হয়েছে।

নির্মাতা মাসুদ হাসান উজ্জ্বলের ‘ঊনপঞ্চাশ বাতাস’ ও কামার আহমাদ সাইমনের ‘নীল মুকুট’ ও নির্মাতা চয়নিকা চৌধুরীর ‘বিশ্বসুন্দরী’ চলচ্চিত্রের মুক্তি স্থগিত রাখা হয়েছে।

১৮ মার্চ থেকে ২ এপ্রিল দেশের সব প্রেক্ষাগৃহ বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।