কভিড-১৯ সংক্রামক রোগের তালিকায় যুক্ত

  • জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-03-23 21:09:45 BdST

bdnews24

উচ্চ আদালতের নির্দেশে নভেল করোনাভাইরাসের ফলে সৃষ্ট কভিড-১৯কে সংক্রামক ব্যাধির তালিকায় যুক্ত করে গেজেট প্রকাশ করেছে সরকার।

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য সেবা বিভাগ গত ১৯ মার্চ এই গেজেট জারি করে, যা ২৩ মার্চ প্রকাশ করা হয়েছে।

সংক্রামক রোগ (প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূল) আইন, ২০১৮ এর ধারা ৪(ভ)-এ বর্ণিত ক্ষমতাবলে সরকার নভেল করোনাভাইরাসকে (কোভিড-১৯) সংক্রামক ব্যাধির তালিকাভুক্ত করেছে।

গেজেটে গত ৮ মার্চ থেকে বাংলাদেশে নভেল করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাবের তারিখ ধরা হয়েছে।

কভিড-১৯কে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা মহামারী ঘোষণা করার পর বাংলাদেশে একে সংক্রামক ব্যাধি হিসেবে ঘোষণা করে গেজেট জারি করতে গত ১৮ মার্চ নির্দেশ দিয়েছিল হাই কোর্ট।

বাংলাদেশে সংক্রামক রোগের তালিকায় এখন রয়েছে- ম্যালেরিয়া, কালাজ্বর, ফাইলেরিয়াসিস, ডেঙ্গু, ইনফ্লুয়েঞ্জা, এভিয়ান ফ্লু, নিপাহ, অ্যানথ্রাক্স, মার্স-কভ, জলাতঙ্ক, জাপানিস এনকেফালাইটিস, ডায়রিয়া, যক্ষা, শ্বাসনালির সংক্রমণ, এইচআইভি, ভাইরাল হেপাটাইটিস, টাইফয়েড, খাদ্যে বিষক্রিয়া, মেনিনজাইটিস, ইবোলা, জিকা ও চিকুনগুণিয়া।

এখন কভিড-১৯ রোগও এই তালিকায় যুক্ত হল।

জনস্বাস্থ্য সংক্রান্ত জরুরি অবস্থা মোকাবেলা এবং স্বাস্থ্যগত ঝুঁকি হ্রাসকরণের লক্ষ্যে সচেতনতা বৃদ্ধি, সংক্রামক রোগ প্রতিরোধ, নিয়ন্ত্রণ ও নির্মূলের উদ্দেশ্যে সংক্রামক রোগ নিয়ন্ত্রণ আইনটি ২০১৮ সালে প্রণীত হয়।

গত বছরের ডিসেম্বরের শেষে চীনের উহান শহরে নতুন করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়ে; পরে এই ভাইরাসের নামকরণ হয় নভেল করোনাভাইরাস, রোগটি নাম পায় কভিড-১৯।

বিশ্বে দেড় শতাধিক দেশে এই ভাইরাসে ইতোমধ্যে তিন লাখের বেশি মানুষ আক্রান্ত হয়েছে, মারা গেছে ১৫ হাজারের বেশি।

বাংলাদেশে এই পর্যন্ত ৩৩ জন কভিড-১৯ রোগী ধরা পড়েছেন, তার মধ্যে মৃত্যু ঘটেছে তিনজনের।

কভিড-১৯ সংক্রামক ব্যাধির তালিকায় যুক্ত হওয়ায় এই ভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে সরকারি নির্দেশনা কেউ উপেক্ষা করলে তা অপরাধ হিসেবে গণ্য করে এই আইনের অধীনে তাকে শাস্তি দেওয়া যাবে।