কোভিড-১৯: যুক্তরাষ্ট্রে জরুরি প্রয়োজনে ‘রেমডেসিভির’ ব্যবহারের অনুমতি

  • নিউজ ডেস্ক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-05-02 11:23:30 BdST

bdnews24

কোভিড-১৯ চিকিৎসায় ‘জরুরি প্রয়োজনে’ গিলিয়াড সায়েন্সের অ্যান্টিভাইরাস ওষুধ রেমডেসিভির ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের খাদ্য ও ওষুধ প্রশাসন-এফডিএ।

এর আগে পরীক্ষামূলক ব্যবহারে কোভিড-১৯ সারাতে এ ওষুধের ‘সহায়ক ক্ষমতার সুস্পষ্ট প্রমাণ’ পাওয়ার কথা জানিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। এখন এফডিএর অনুমোদনের মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের হাসপাতালগুলোতে বড় পরিসরে রেমডেসিভির ব্যবহারের পথ খুললো।

রয়টার্স জানিয়েছে, শুক্রবার হোয়াইট হাউজের ওভাল অফিসে প্রেসিডেন্ট ডনাল্ড ট্রাম্প গিলিয়াডের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ড্যানিয়েল ও’ডেকে সঙ্গে নিয়ে রেমডেসিভিরের অনুমোদনের ঘোষণা দেন।

এই অনুমোদনকে একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রথম পদক্ষেপ হিসেবে বর্ণনা করে ড্যানিয়েল ও’ডেক বলেন, তার কোম্পানি অনুদান হিসেবে ১৫ লাখ ভায়াল রেমডেসিভির দেবে যুক্তরাষ্ট্র সরকারকে।

রয়টার্স লিখেছে, আপাতত এই পরিমাণ ওষুধ দিয়ে ১ লাখ ৪০ হাজার রোগীর চিকিৎসা দেওয়া সম্ভব। তবে বিষয়টি নির্ভর করবে রোগীকে কতদিন ধরে এ ওষুধ দিতে হবে তার ওপর।

রেমডেসিভির তৈরি হয়েছিল ইবোলার চিকিৎসার জন্য। গত ২৯ এপ্রিল যুক্তরাষ্ট্র সরকার জানিয়েছিল, হাসপাতালে রেমডেসিভিরের পরীক্ষামূলক প্রয়োগে কোভিড-১৯ রোগীদের উপসর্গের স্থায়িত্ব ১৫ দিন থেকে কমে ১১ দিনে নেমেছে।

বিশেষজ্ঞরা এই ফলাফলকে ‘দুর্দান্ত’ বলে স্বাগত জানালেও বলেছিলেন, এ ওষুধ কোভিড-১৯ এর বিরুদ্ধে লড়াইয়ের ‘ম্যাজিক বুলেট’ হবে না, সেটাও মনে রাখতে হবে।

যুক্তরাষ্ট্রের ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অব অ্যালার্জি অ্যান্ড ইনফেকশাস ডিজিজেসের (এনআইএআইডি) পরিচালিত ওই পরীক্ষায় এক হাজার ৬৩ জন রোগী অংশ নেয়। তবে মৃত্যু ঠেকাতে এ ওষুধের প্রভাব এখনও স্পষ্ট নয়।

রেমডেসিভির পাওয়া রোগীদের মধ্যে মৃত্যুহার ছিল ৮ শতাংশ এবং অন্যদের ক্ষেত্রে ১১ শতাংশ। ওষুধ এই পার্থক্য তৈরিতে কোনো ভূমিকা রেখেছে কি না সে বিষয়ে নিশ্চিত হতে পারেননি বিজ্ঞানীরা।

করোনাভাইরাসে আক্রান্ত ও মৃত্যুর সংখ্যা-দুদিক দিয়েই বিশ্বে শীর্ষে রয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। সেখানে আক্রান্তের সংখ্যা ইতোমধ্যে ১১ লাখ ছাড়িয়েছে, মৃত্যু হয়েছে ৬৫ হাজার মানুষের।