পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

কোভিড: ঢাকায় ফিল্ড হাসপাতাল করার ভাবনা

  • জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-07-10 01:13:07 BdST

bdnews24
কোভিড রোগীদের জন্য গতবছর বসুন্ধরা আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটিতে ২ হাজার শয্যার একটি ফিল্ড হাসপাতাল খোলা হলেও পরে তা বন্ধ হয়ে যায়। ফাইল ছবি

দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণের ঊর্ধ্বগতির কারণে ঢাকায় কয়েকটি ফিল্ড হাসপাতাল বানানোর পরিকল্পনা করেছে সরকার।

শুক্রবার বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কনভেনশন সেন্টার পরিদর্শনে এসে স্বাস্থ্য সেবা বিভাগের সচিব লোকমান হোসেন মিঞা এ তথ্য জানান।

তিনি বলেন, “আমরা ফিল্ড হাসপাতাল করার কথা চিন্তা করছি। এটা বড় আঙ্গিকে শুরু হবে আপনারা দেখতে পাবেন। এটা আমরা স্বল্পতম সময়ের মধ্যে চালু করে দেব।”

শুক্রবার রাতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এবিএম খুরশীদ আলম বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, ফিল্ড হাসপাতাল করার জন্য সম্ভাব্য বেশ কয়েকটি স্থান ঘুরে দেখা হয়েছে।

এর মধ্যে রয়েছে- হাটখোলায় এফবিসিসিআইয়ের ভবন, গুলশান শ্যুটিং ক্লাব, মিরপুর ইনডোর স্টেডিয়াম, মিরপুরে পুলিশ কনভেনশন সেন্টার এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের কনভেনশন সেন্টার।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক এ বিষয়ে সিদ্ধান্ত নেবেন জানিয়ে খুরশীদ আলম বলেন, “সারা শহর ঘুরে এসব জায়গা দেখেছি। রাতে মন্ত্রী মহোদয়কে এ বিষয়ে রিপোর্ট দেওয়া হয়েছে। এখনও পর্যন্ত কোনোটাই নির্ধারিত হয় নাই। তিনি নির্ধারণ করবেন।”

ফিল্ড হাসপাতালের জন্য সম্ভাব্য স্থান নির্বাচনে বিভিন্ন জায়গা পরিদর্শনের সময় স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রকৌশল শাখা এবং পরিকল্পনা শাখার কর্মকর্তারাও সঙ্গে ছিলেন বলে জানান তিনি।

মহামারীর দ্বিতীয় ঢেউয়ে দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ও মৃত্যুর সংখ্যা প্রায় প্রতিদিনই আগের রেকর্ড ছাড়িয়ে যাচ্ছে। শুক্রবার পর্যন্ত সারাদেশে ১০ লাখ ৫৪৩ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়েছে। মারা গেছেন ১৬ হাজার ৪ জন।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়েছিল গতবছর ৮ মার্চ; তা ৯ লাখ পেরিয়ে যায় গত ২৯ জুন। সেই সংখ্যা ১০ লাখে পৌঁছাতে লাগল মাত্র ১০ দিন।

ভাইরাসের বিস্তার নিয়ন্ত্রণে গত ১ জুলাই থেকে সারা দেশে জারি করা লকডাউনের বিধিনিষেধের মধ্যেই গত ৬ জুলাই প্রথমবারের মত দশ হাজার ছাড়িয়ে যায় শনাক্ত রোগীর সংখ্যা। সেদিন ১১ হাজার ৫২৫ জনের মধ্যে সংক্রমণ ধরা পড়ে।

এরপর টানা চার দিন ধরেই দৈনিক শনাক্ত ১১ হাজারের ওপরে রয়েছে। আর টানা ১২ দিন ধরে একশর বেশি মানুষের মৃত্যু হচ্ছে করোনাভাইরাসে।

এর আগে গত ৭ জুলাই সর্বোচ্চ ২০১ জনের মৃত্যুর খবর দিয়েছিল স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। বৃহস্পতিবার ১৯৯ জনের মৃত্যুর পরদিন তা বেড়ে ২১২ জনে দাঁড়ায়।