পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

ভাইরাস ‘যায়নি’, অনুষ্ঠান সীমিতভাবে করার আহ্বান স্বাস্থ্যমন্ত্রীর

  • নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-12-15 16:32:28 BdST

bdnews24

ওমিক্রনের মত করোনাভাইরাসের আরও নতুন ধরন ছড়িয়ে পড়ার ঝুঁকির কথা মনে করিয়ে দিয়ে সব ধরনের অনুষ্ঠান সীমিত করার আহ্বান জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

বুধবার এক অনুষ্ঠানে তিনি বলেছেন, “আমাদের দেশে করোনাভাইরাসে মৃত্যু ও সংক্রমনের হার কম। ভালো অবস্থা আছে, ভালো অবস্থায় রাখতে হবে। এখন মনে রাখতে হবে, ওমিক্রনে তিনজন আক্রান্ত। নতুন নতুন রূপ নিয়ে করোনাভাইরাস আসছে। করোনাভাইরাস কিন্তু যায়নি।”

মুজিব জন্মশতবর্ষ উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের নন রেসিডেন্ট শিক্ষার্থীদের বৃত্তি প্রদান অনুষ্ঠানে কথা বলছিলেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী।

তিনি বলেন, “ওমিক্রনের সংক্রমণ বেড়ে গেলে হাসপাতালে চাপ বাড়বে। মাস্ক পরে, স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। অনুষ্ঠানগুলো বেপরোয়াভাবে করলে চলবে না। এটা সীমিত আকারে করা উচিত, স্বাস্থ্যবিধি মেনে অনুষ্ঠান করা উচিত।"

চিকিৎসার জন্য বিদেশে যাওয়ার প্রবণতার সমালোচনা করে জাহিদ মালেক বলেন, “অনেকেই শখ করে বিদেশে চিকিৎসা নিতে যান। দেশে সকল রোগের সুচিকিৎসা বা সুব্যবস্থার ব্যবস্থা রয়েছে। তাই বিদেশে না গিয়ে দেশে চিকিৎসা নেওয়ার আহ্বান জানাচ্ছি।”

তিনি বলেন, “করোনার মধ্যে চিকিৎসা নেওয়ার জন্য কেউ বিদেশ যেতে পারেননি। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় করোনাসহ সব চিকিৎসার সুব্যবস্থা করেছে। দেশে যথেষ্ট ভালো হাসপাতাল রয়েছে, উন্নত চিকিৎসার ব্যবস্থা রয়েছে। উন্নত যন্ত্রপাতি রয়েছে। তবে আমাদের আস্থার অভাব আছে। আমরা এখনও পুরোপুরি আস্থা রাখতে পারছি না।"

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘সুপার স্পেশালিস্ট হাসপাতাল’ হচ্ছে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, এটা হয়ে গেলে আরও সুচিকিৎসার ব্যবস্থা হবে।

অনুষ্ঠানে সভাপতির বক্তব্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মো. শারফুদ্দিন আহমেদ বলেন, “দেশে করোনা নিয়ন্ত্রণে রয়েছে, তবে আমাদের স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করতে হবে। কারণ আগামীতে আবার করোনার তৃতীয় ঢেউ আসার সম্ভাবনা রয়েছে।”

কোভিড নিয়ন্ত্রণে রাখতে সবাইকে টিকা নেওয়ার আহ্বান জানিয়ে শারফুদ্দিন বলেন, “যারা এখনও টিকা নেননি, তাদের সবাইকে টিকা নিতে হবে এবং ৬০ বছরে বেশি বয়সী জনগোষ্ঠীকে বুস্টার ডোজের আওতায় আনতে হবে।"

অন্যদের মধ্যে স্বাস্থ্য শিক্ষা সচিব আলী নূর, স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি এম ইকবাল আর্সলান, মহাসচিব এম এ আজিজ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।