পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

‘সফট টয়’ পরিষ্কারের নিয়ম

  • লাইফস্টাইল ডেস্ক,, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2016-04-25 16:37:36 BdST

bdnews24

কাপড়-তুলা দিয়ে তৈরি পুতুল খুব তাড়াতাড়ি ময়লা হয়ে যায় বলে শিশুদের এর থেকে রোগ হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

তাই এই ধরনের পুতুল সবসময়ই পরিষ্কার রাখা দরকার। তবে এসব খেলনা ঠিকভাবে পরিষ্কার না করলে নষ্ট হয়ে যেতে পারে। 

পরিচ্ছন্নতা-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইট জানায় আপাত দৃষ্টিতে দেখতে পরিষ্কার লাগলেও এই খেলনাগুলো রোগ জীবাণুর নিরাপদ বাসস্থান। এরা খুব সহজেই শিশুকে অসুস্থ করে দিতে পারে। এই সমস্যা থেকে বাঁচতে খেলনাগুলো নিয়মিত পরিষ্কার রাখা দরকার।

ধোয়ার নিয়ম

- খেলনাগুলোর উপর থেকে ধুলা ছেড়ে নিতে হবে। এরপরে পুরাতন নরম কাপড় দিয়ে খেলনাগুলোর বাইরের দিক ঘষে পরিষ্কার করতে হবে। সবচেয়ে ভালো হয় যদি ভ্যাকুয়াম ক্লিনার দিয়ে ভিতর থেকে ধুলো টেনে বের করা যায়। ধুলা ঝাড়ার পরে মোটা দাঁতের চিড়ুনি দিয়ে খেলনাটির লোম আঁচড়ে দিতে হবে।

- যে সাবান দিয়ে ধোয়া হবে সেটা আগে খেলনার কানের পেছনে বা দেখা যায় না এমন কোনো স্থানে লাগিয়ে ধুয়ে দেখবেন যে রং উঠছে কি-না। যদি সাবান খেলনার রং বিবর্ণ করে তবে সেটি ব্যবহার করবেন না। এমনভাবে সাবান মাখবেন যেন পুতুলের লোম সাবানের ফেনা শোষণ না করে।

- ‘সফট টয়’ একটা বড় বালিশের কভারে ভরে চেইন লাগিয়ে সেটিকে মৃদু সাবানে অল্প ঘূর্ণনে ওয়াশিং মেশিনে পরিষ্কার করা যায়। যেসব ওয়াশিং মেশিনের দরজা সামনের দিকে খোলে সেগুলো ‘সফট টয়’ ধোয়ার জন্য অধিক কার্যকর।

- ব্যাটারি যুক্ত করা যায় এমন ‘সফট টয়’ সরাসরি পানিতে না ধুয়ে দুটি নরম কাপড় দিয়ে ধুতে হবে। প্রথমে একটাতে সাবান নিয়ে খেলনার উপরিভাগ রগড়াতে হবে। পাশাপাশি অন্য কাপড়ে পানি নিয়ে সাবান মুছে ফেলতে হবে। এতে খেলনার ভিতরের ইলেকট্রিকাল যন্ত্রের কোনো ক্ষতি হতে পারবে না। 

- খুব বড় খেলনা যেটা ওয়াশিং মেশিনে খুব কষ্টে আঁটে সেগুলোকে মেশিনে ধোয়া উচিত নয়। এগুলোর বিশাল আকৃতির কারণে মেশিনের ঘূর্ণন ব্যহত হবে। ফলে মেশিন নষ্টও হয়ে যেতে পারে।

- ভেতরে কাপড় ভরে দেওয়া থাকে বা শক্ত ফোমের টুকরা থাকে এমন খেলনাগুলো কখনও মেশিনে ধোয়া যাবে না। কারণ কাপড় বা ফোম অনেক পরিমাণে পানি শোষণ করে যা শুকানো অনেক কষ্টকর। অনেকদিন ভেজা থাকলে খেলনাগুলো ব্যাকটেরিয়ার অভয়ারণ্য হয়ে উঠবে। এই খেলনাগুলোকে ইলেকট্রিক খেলনার মতো দুইটা কাপড় দিয়ে ধুতে হবে অথবা সেলাই কেটে কাপড় বা ফোম বের করে ধুয়ে, শুকিয়ে, ফোম বা কাপড় যথাস্থানে রেখে সেলাই করে দেওয়া যেতে পারে।

- মেশিনে বা হাতে যেভাবেই ধোয়া হোক না কেনো খেলনাগুলো সরাসরি রোদে না শুকানোই বুদ্ধিমানের কাজ। এতে খেলনার রং জ্বলে যাওয়ার ভয় থাকে। খুব ভালো হয় যদি ধোয়ার পরেই হেয়ার ড্রায়ার বা অন্য কোনো মৃদু শক্তির ড্রায়ার দিয়ে পরিষ্কার করা হয়। আস্তে আস্তে শুকালে খেলনার কাপড় সংকুচিত হয়ে যাওয়ার সম্ভাবনা কমে। তবে শুকাতে অনেকদিন লাগলে তাতে ব্যাকটেরিয়া বাসা বাঁধতে পারে।

- খেলনাগুলো নিয়মিত ঝেড়ে আঁচড়ে পরিচ্ছন্ন রাখতে হবে। যেগুলো নিয়ে শিশুরা ঘুমায় বিশেষ করে সেগুলো দুই সপ্তাহ অন্তর অন্তর ধুয়ে দেওয়া উচিত। যদি কখনও হাত থেকে কোনো খাবার বা ময়লা খেলনার উপরে পড়ে তবে সেই ময়লা কিছুতেই রগড়ে তোলা যাবে না। এতে দাগ আরও ভালো করে খেলনায় বসে যায়। এক্ষেত্রে স্পঞ্জ নিয়ে ময়লাটার তরল অংশ শুষে নিতে হবে এরপর একটা কাপড় দিয়ে ভেতর থেকে বাইরের দিকে ময়লা টেনে টেনে তুলে আনতে হবে।