ENG
২০ অক্টোবর ২০১৭, ৫ কার্তিক ১৪২৪

ঘর সাজাতে মাটির জিনিস

  • তৃপ্তি গমেজ, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2017-03-19 20:40:06 BdST

bdnews24

রং, আকার এবং আসবাবপত্রের বিন্যাস ঠিক না থাকলে অনেক ভালো জিনিসও বেমানান লাগে।  

বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের ব্যবহারিক শিল্পকলা বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ইসমাত জাহান মাটির জিনিস দিয়ে ঘর সাজানো প্রসঙ্গে বলেন, “সুন্দরভাবে ঘর সাজাতে সব চেয়ে বেশি প্রয়োজন রুচিবোধ। এরপর যার যার আর্থিক সামর্থ্য। অর্থ, সখ, রুচি এবং শিল্পবোধের সংমিশ্রণেই ঘরের সাজ পূর্ণতা পায়।”

“তবে যে কোনো শ্রেণির মানুষই নিজ আর্থিক সামর্থ্য অনুযায়ী মাটির জিনিস দিয়ে ঘর সাজাতে পারেন। সুন্দরভাবে ঘর সাজানোর পাথেয় সুন্দর রুচিবোধ আর অর্থ একে সঙ্গ দেয়।” বললেন তিনি। 

কম খরচে মাটি দিয়ে ঘর সাজাতে চাইলে বসার ঘরের টেবিল বা সোফার পাশে মাটির তৈরি পুতুল, খেলনা, মোমদানি, ল্যাম্প অথবা ফুলদানি রাখতে পারেন। এতে খুব সহজেই অতিথিদের দৃষ্টি আকর্ষিত হবে ও আপনার রুচিবোধ প্রশংসিত হবে।

কেউ চাইলে দেয়ালে মাটির তৈরি শো-পিস বা পাত্র লাগাতে পারেন। অনেকে পছন্দের কবি-সাহিত্যিকদের প্রতিকৃতি অথবা মুখের অংশবিশেষও দেয়ালে টাঙান। এতে রুচির পাশাপাশি সংস্কৃতিক মনোভাবেরও প্রকাশ পায়।

ঘরের সাজে ভিন্নতা আনতে চাইলে সামর্থ্য অনুযায়ী বসার ঘর, শোবার ঘর অথবা খাবার ঘরে দেয়ালের এক পাশে মাটির ফলক অর্থাৎ টেরাকোটা ব্যবহার করতে পারেন। আভিজাত্য ফুটিয়ে তুলতে মূল দরজার সামনের ফ্রেমে মাটির টেরাকোটা ব্যবহার করতে পারেন।

আর যদি খুব সাধারণ ও সুন্দরভাবে ঘর সাজাতে চান তাহলে ফুলদানি, পুতুল, শো-পিস ইত্যাদি ব্যবহারের পাশাপাশি ঘরের ভিতরে যে স্থানটি খুব সহজেই সকলের নজরে পরে সেখানে মাটির ফ্রেম ব্যবহার করে তাতে যে কোনো ছবি বাঁধাতে পারেন।

ঘরে খানিকটা উচ্ছ্বলতা আনতে চাইলে মাটির তৈরি ঝারবাতি অথবা খাঁজকাটা মোমদানি ব্যবহার করতে পারেন। সন্ধ্যা বা রাতে এই ধরনের বাতির আলো পরিবেশকে বেশ স্নিগ্ধ করে তোলে বলে জানান তিনি।

ঘরে চঞ্চলতার পরিবেশ সৃষ্টি করতে চাইলে মাটির তৈরি কৃত্রিম ঝরনার ব্যবস্থা করতে পারেন। এগুলো দেখতে অনেকটায় বাস্তব মনে হয়। এছাড়াও যে কোনো সামগ্রী যা আপনার দৃষ্টিকে আকর্ষণ করে তা নিঃসন্দেহে অন্যের দৃষ্টিও আকর্ষণ করবে। তাই এই ধরনের জিনিস রাখতে পারেন আপনার সংগ্রহে।

তিনি আরও পরামর্শ দেন, সুন্দর জিনিস কিনতে সবসময় যে বড় মার্কেটে যেতে হয় বা অনেক টাকা খরচ করতে হয় তা ঠিক নয়। চলার পথে চোখ-কান খোলা রাখলে ভিন্ন ধাঁচের সুন্দর জিনিস পাওয়া সম্ভব।

তাছাড়া গ্রামের মেলায় এমন অনেক ধরনের খেলনা ও মাটির সামগ্রী যেমন- পুতুল, ঢেঁকি, বাসন, সরা, পাত্র, বাহারি প্রতিকৃতি ইত্যাদি পাওয়া যায় যা শহরের অনেক দামি দামি দোকানে পাওয়া সম্ভব নয়। কারণ এসব জিনিস যারা বানায় তারা খুব সীমিত আকারে তৈরি করে থাকেন। ফলে এমন ভিন্ন ধাঁচের কিছু বসার ঘরকে খুব

সহজেই অন্যের কাছে অনেক বেশি গ্রহণযোগ্য ও কৌতূহলোদ্দীপক করে তুলবে।

এছাড়া রাজধানীর দোয়েল চত্বরের পাশের ফুটপাথে রয়েছে বিভিন্ন রকম মাটির জিনিসের পসরা। হাজারীবাগ ও শংকর বাসস্ট্যান্ডের ভেতরের দিকে বেশ কয়েকটি মাটির তৈরি জিনিসের দোকান রয়েছে। এসব জায়গায় মাটির বিভিন্ন শোপিস, ফুলদানি, ল্যাম্পশেইড, মোমদানি থেকে শুরু করে ঘর সাজানোর বিভিন্ন তৈজসপত্র পাওয়া যায়। আকার, রং ও নকশা ভেদে এসবের দাম ৫০ টাকা থেকে শুরু করে হাজার টাকার উপরেও বিভিন্ন জিনিস পাওয়া যায়।