মাসিকের সময় যা খাওয়া ঠিক না

  • লাইফস্টাইলডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-01-09 14:19:41 BdST

bdnews24

মাসের বিশেষ দিনগুলোতে চাই বাড়তি যত্ন। এই সময়ে শরীরে ও পেটে ব্যথা হওয়া স্বাভাবিক। অস্বাস্থ্যকর খাবার এই সমস্যা আরও বাড়িয়ে দেয়।

স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে এই বিষয়ের ওপর প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে ঋতুস্রাবের সময় যেসব খাবার এড়িয়ে চলা উচিত সেগুলোর তালিকা এখানে দেওয়া হল।

নোনতা খাবার: লবণ ছাড়া খাবার অসম্ভব। তবে এটাও জানা দরকার, লবণ শরীরে পানি বৃদ্ধি করে। বিশেষ করে, ঋতুকালীন ও এর নিকটবর্তী সময়ে বেশি লবণ সমৃদ্ধ খাবার ব্যথা বৃদ্ধির পাশাপাশি শরীরে ফোলাভাব সৃষ্টি করে। তাই মাসে এই কটা দিন সোডিয়াম-জাতীয় খাবার কমানো উচিত।

ক্যাফেইন: ব্যথা ও ফোলাভাবের কারণে মানসিক চাপ বৃদ্ধি পায়। ঋতুস্রাবের সময় ক্যাফেইন জরায়ুর পেশিকে সংকুচিত করে। তাই ব্যথা ও অস্বস্তির সৃষ্টি হয়।

মিষ্টি: এই সময়ে শরীরে চিনির চাহিদা হওয়া স্বাভাবিক। তবে মনে রাখতে হবে এসময় রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রিণে রাখাও জরুরি। চিনিযুক্ত খাবার, পানীয় ব্যথা বাড়ায়। মিষ্টির চাহিদা পূরণ করতে প্রাকৃতিক মিষ্টি যেমন- গুড়, খেজুর, ডুমুর খাওয়া ভালো।

দুগ্ধজাত খাবার: ‘ল্যাকটোজ ইন্টলারেন্স’ বা দুধ-জাতীয় খাবার সহ্য না হওয়া সাধারণ একটি সমস্যা। এই ধরনের খাবার পেট ফোলাভাব সৃষ্টি করে। এতে উপস্থিত অ্যারাকিডোনিক অ্যাসিড নামক ওমেগা ফ্যাটি অ্যাসিড পেটব্যথা ও হজমের সমস্যা তৈরি করে। দুধ ও দুধ-জাতীয় খাবারই এর জন্য দায়ী।

প্রক্রিয়াজাত খাবার: প্রক্রিয়াজাত বা ক্যানজাত খাবার এই বিশেষ সময়ে ব্যথার প্রখরতা বাড়ায়। এসব খাবারে অতিরিক্ত চর্বি, সোডিয়াম ও চিনিই মূলত ব্যথা বাড়ানোর কারণ। সত্যি বলতে, খাবারগুলো দেখতে খুব সহজ মনে হলেও এগুলোই শরীরের জন্য বেশি খারাপ।

আরও পড়ুন-

অনিয়মিত মাসিকের ঘরোয়া প্রতিকার  

মাসিকের ব্যথা কমাতে  

মাসিকের সমস্যা এড়াতে  

মেনোপোজের সময় যা খাওয়া দরকার  

পিএমএস-থেকে মুক্তি পেতে  


ট্যাগ:  খাদ্য ও পুষ্টি