২৪ মার্চ ২০১৯, ১০ চৈত্র ১৪২৫

যেভাবে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা নষ্ট করে ছত্রাক

  • লাইফস্টাইল ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-02-18 14:33:46 BdST

bdnews24

এইডসে আক্রান্ত রোগী কিংবা অঙ্গ প্রতিস্থাপনের পর যাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা দুর্বল হয়ে গেছে এমন মানুষের জন্য কিছু বিশেষ ধরনের ছত্রাক হতে পারে প্রাণঘাতী।

স্বাস্থ্যবান মানুষের শরীরে জীবানু প্রবেশ করলে তেমন গুরুতর সমস্যা দেখা দেয় না কারণ তাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা জোরদার থাকে। তবে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা যাদের কম তাদের জন্য ছত্রাকের আক্রমণ হতে পারে বিপজ্জনক- জার্মানির ইউনিভার্সিটি অফ জেনা’র গবেষকদের করা পরীক্ষায় এরকম তথ্যই পাওয়া গিয়েছে।

‘অ্যাসপারগিলাস ফামিগেটাস’ নামক ছত্রাক কীভাবে শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে পরাজিত করে প্রাণঘাতী সংক্রমণ সৃষ্টি করে তা আবিষ্কার করেছেন গবেষকরা।

এই ছত্রাকের রোগাক্রান্ত করার ক্ষমতা বা ‘প্যাথোজেনিসিটি’র পেছনে একটি গুরুত্বপূর্ণ প্রভাবক হল ‘গ্লিওটক্সিন’ নামক ছত্রাকভিত্তিক বিষাক্ত উপাদান।

জার্মানির ইউনিভার্সিটি অফ জেনা’য়ের অধ্যাপক অলিভার ওয়ের্জ বলেন, “এই বিষাক্ত উপাদাননের ‘ইমিউনোসাপ্রেসিভ’ বা রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে দমিয়ে রাখার ক্ষমতা আছে এটা আগে থেকেই জানা ছিল আমাদের। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরির জন্য দায়ী কোষগুলোকে নিষ্ক্রিয় করে ফেলে ‘গ্লিওটক্সিন’। তবে তা কীভাবে করে সেটা আমাদের জানা ছিল না।”

গবেষণার ফলাফলে বলা হয়, “গবেষণার জন্য রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা সৃষ্টিকারী ‘নিউট্রোফিলিক গ্রানুলোসাইট’ কোষকে কৃত্রিমভাবে তৈরি করা ‘গ্লিওটক্সিন’য়ের সংস্পর্শে আনেন গবেষকরা। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার প্রথমসারির এই কোষগুলোর কাজ হল রোগ সৃষ্টিকারী জীবাণু চিহ্নিত ও ধ্বংস করা।”

“রোগ সৃষ্টিকারী জীবাণুর সংস্পর্শে আসলেই রক্তে ‘লিউকোট্রিয়েন্সেস’ নামক সংবাদবাহক উপাদান নিঃসৃত করে অন্যান্য রোগ প্রতিরোধকারী কোষকে সতর্ক করে দেয় ‘নিউট্রোফিলিক গ্রানুলোসাইট’। পর্যাপ্ত মাত্রায় রোগ প্রতিরোধকারী কোষ জমা হয়ে তারা জীবাণুকে ধ্বংস করে।”

‘সেল কেমিকল বায়োলজি’ শীর্ষক জার্নালে গবেষণাটি প্রকাশিত হয়।

তবে রোগ সৃষ্টিকারী জীবাণুটি যদি ‘অ্যাসপারগিলাস ফামিগেটাস’ হয় তবে এমনটা হয় না। কারণ, ‘নিউট্রোফিলিক গ্রানুলোসাইট’ থেকে সংক্রমণের বার্তাবাহক ‘লিউকোট্রিয়েন্সবিফোর’য়ের নিঃসরণ বন্ধ করে দেয় ‘গ্লিওটক্সিন’।

ফলে সংক্রমণ অঞ্চলে পর্যাপ্ত রোগ প্রতিরোধকারী কোষ জমা হতে পারে না। ‘

এলটিএফোর’ হাইড্রোলেজ’ নামক এনজাইমের নিঃসরণ বন্ধ করার মাধ্যমে এই কাজটি করে ‘গ্লিওটক্সিন’ নামক ‘মাইকোটক্সিন’ বা ছত্রাকভিত্তিক বিষাক্ত উপাদান।

ওয়ের্জ বলেন, “এভাবেই রোগ প্রতিরোধকারী কোষের মধ্যকার যোগাযোগ বন্ধ হয়ে যাওয়ার শরীরের রোগ প্রতিরোধ ব্যবস্থা নষ্ট হয়। ফলে জীবাণু, এক্ষেত্রে ছত্রাক, সহজেই বিভিন্ন কোষ ও অঙ্গে প্রবেশ করতে পারে।”

ছবি: রয়টার্স।

আরও পড়ুন

চুলকানির কারণ ও প্রতিকার  

চর্মরোগ থেকে অন্য রোগের উপসর্গ  

নিতম্বে চুলকানি হওয়ার ৬টি কারণ  


ট্যাগ:  লাইফস্টাইল  জেনে রাখুন