প্রদাহ থেকে বাঁচার উপায়

  • লাইফস্টাইল ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-09-16 15:53:04 BdST

bdnews24

কিছু মসলা যেমন বুক জ্বালাপোড়ায় আরাম দেয় তেমনি বিভিন্ন খাবার শরীরের ব্যথা কামাতেও সাহায্য করে।

পুষ্টিবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে প্রদাহ ও জ্বালাপোড়া থেকে রক্ষা পাওয়া কয়েকটি উপায় সম্পর্কে জানানো হল।

মসলাদার খাবার: অতিরিক্ত মসলাদার খাবার বুক জ্বালাপোড়া কিংবা পেট ব্যথার কারণ হয়। এমন ধারণা পুরোপুরি সত্য নয়। কিছু মসলা বরং এই সমস্যাগুলো থেকে রক্ষা করে। যেমন- হলুদ। যাতে থাকা ‘কারকিউমিন’ অত্যন্ত কার্যকর ‘অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট’ এবং জ্বালাপোড়া সারাতে অনন্য।

অপরদিকে প্রদাহ ও ব্যথা কমাতে প্রাচীনকাল থেকে ব্যবহার হয়ে আসছে আদা। এতেও আছে সক্রিয় এক ‘অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট’, যার নাম ‘জিঞ্জেরল’। এই উপাদান শরীরে কিছু বিশেষ প্রদাহ ও ব্যথা সৃষ্টিকারী মুক্ত মৌলের উৎপাদন বন্ধ করে।

‘প্র্রো-ইনফ্লামাটরি’ জিনকে বাধাগ্রস্ত করে দারুচিনি। ফলে কোষের অস্বাভাবিক বৃদ্ধি বন্ধ হয়।

রং যত গাঢ় ততই ভালো: কফি, চা আর ডার্ক চকলেট, তিনটিতেই আছে ‘ক্যাফেইন’, যা মস্তিষ্ককে দেয় প্রদাহ থেকে সুরক্ষা।

কফিতে ‘ক্যাফেইন’য়ের মাত্রা সবচাইতে বেশি, তালিকায় এরপরে আছে ‘ব্ল্যাক টি, তারপর ‘গ্রিন টি’।

‘গ্রিন টি’তে থাকে এক আউন্স পরিমাণ ডার্ক চকলেটের সমপরিমাণ ‘ক্যাফেইন’।

স্বাস্থ্যকর বিভিন্ন ফল, সবজির মতো কফি, চা ও চকলেটের মুল উপাদান ‘কোকো বিন’য়ে আছে প্রচুর পরিমাণে ‘ফাইটোনিউট্রিয়েন্টস’।

তবে খেয়াল রাখতে পরিমাণের দিকে। কারণ অতিরিক্ত ‘ক্যাফেইন’ মেজাজ খিটখিটে বানায়, বুক জ্বালাপোড়া করায়, বিপত্তি ঘটায় ঘুমের।

নীলচে খাবার: নীল কিংবা বেগুনি রংয়ের ফল সবজিতে থাকে ‘অ্যান্থোসায়ানিনস’ নামক ‘অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট’ যার কারণেই মূলত এদের রং নীল, বেগুনি ও লালয়ের মতো গাঢ় হয়।

প্রদাহ, হৃদরোগ এবং ডায়াবেটিস থেকে সুরক্ষা দিতে এই ‘অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট’ পরীক্ষিত ও প্রমাণিত। অতিরিক্ত ওজন বেড়ে যাওয়া কিংবা বয়সের ছাপ পড়া থেকেও দূরে রাখে এই উপাদান।

জাম, বিট, ব্লুবেরি, ক্র্যানবেরি, বেগুন, প্লাম, প্রুন ইত্যাদি হল এমন কিছু সবজির উদাহরণ।

শরীর মালিশ: শরীর মালিশে শুধু যে আরাম পাওয়া যাওয়া যায় তাই নয়, কমায় প্রদাহ সৃষ্টিকারী হরমোনের মাত্রাও। সামান্য মাথা মালিশ থেকে পুরো শরীর মালিশ সবকিছুতেই ‘কর্টিসল’য়েল মাত্রা ও রক্তচাপ কমে।

রক্ত সঞ্চালন বাড়ানোর মাধ্যমে প্রতিনিয়ত তরল বর্জ্য অপসারণ প্রদাহ সারাতে সাহায্য করে মালিশ।

স্বাস্থ্যকর চর্বি: সুস্বাস্থ্যের জন্য চর্বি একেবারে দূরে থাকতে হবে এমনটা নয়। স্বাস্থ্যকর চর্বিও আছে যা শরীরের জন্য বিভিন্ন দিক থেকে উপকারী।

যেমন- জলপাইয়ের তেল, বিশেষ কিছু মাছ, বাদাম ইত্যাদিতে পাওয়া ‘ফ্যাটি অ্যাসিড’ বেশ গুরুত্বপূর্ণ উপাদান।

আবার প্রদাহ কমাতে ‘ওমেগা থ্রি’ এবং ‘ওমেগা সিক্স ফ্যাটি অ্যাসিড’ কার্যকর।

এই উপাদানগুলো উপভোগ করতে বেছে নিতে পারেন কাঠবাদাম, স্যামন মাছ, টকদই, ডার্ক চকলেট ইত্যাদি।

আরও পড়ুন

অতিরিক্ত মিষ্টি থেকে সাবধান  

ওজন কমাতে গোলমরিচ  

খাবার থেকে অনিদ্রা  


ট্যাগ:  খাদ্য ও পুষ্টি  লাইফস্টাইল