পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

গণশৌচাগার ব্যবহারে নিরাপদ থাকতে

  • লাইফস্টাইল ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-11-29 14:21:27 BdST

bdnews24
ছবি: রয়টার্স।

ঘরের শৌচাগার ব্যবহার করতে যতট স্বাচ্ছন্দ্য বোধ হয়, গণশৌচাগার ব্যবহারে ততটা আরাম কি আর পাওয়া যায়!

একেবারে বিপদে না পড়লে গণশৌচাগারগুলোতে মানুষ যায় না। চেষ্টা করেন আশপাশের হাসপাতাল, রেস্তোরাঁ, বাস কাউন্টার, শপিংসেন্টার ইত্যাদির শৌচাগার খুঁজে বের করতে। অফিসের শৌচাগারের ব্যাপারটা জটিল। বেশিরভাগ অফিসের শৌচাগা্রেই পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা বজায় রাখার চেষ্টা করা হয়। তবে বাস্তবতা হল অফিসের প্রতিটি মানুষই তা ব্যবহার করেন। আর সবার ব্যক্তিগত পরিচ্ছন্নতার ধারণা যথেষ্ট নয়। ফলে পরিষ্কার থাকলেও তার উপর ভরসা পাওয়া যায়না বললেই চলে।

পৃথিবীর সবচাইতে আস্থাভাজন শৌচাগার হয়ত ঘরের ব্যক্তিগত শৌচাগার। তবে সেটা যদি নিজে পরিষ্কার না রাখেন তাহলে শুধু আস্থা দিয়ে জীবাণু থেকে সুরক্ষা মিলবে না, সেটাই স্বাভাবিক।

তাহলে যাবেন কোথায়? এগুলোতেই যেতে হবে, উপায় নেই। কেউ টিস্যু বিছিয়ে নিচ্ছেন, কেউ পুরোপুরি না বসে শুধু হাঁটু ভাজ করে কাজ সারছেন কিংবা দাঁড়িয়েই। কেউ আবার দেয়ালে পিঠ ঠেকে না যাওয়া পর্যন্ত বেগ চেপে রাখছেন। চিকিৎসকরা বেগ চেপে রাখা এবং পুরোপুরি না বসে শৌচকাজ সারার বিপক্ষে।

স্বাস্থ্যবিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে এই বিষয়ের ওপর প্রকাশিত প্রতিবেদন অবলম্বনে গণশৌচাগার নিরাপদে ব্যবহার করার কয়েকটি উপায় সম্পর্কে এখানে জানানো হল।

‘টয়লেট সিট স্যানিটাইজার স্প্রে’ ব্যবহার করা যেতে পারে, যা যথেষ্ট কার্যকর। কমোডের যে অংশে বসবেন সেখানে স্প্রে করে ১০ থেকে ১৫ সেকেন্ড অপেক্ষা করতে হবে শুধু। আর এটা আকারেও ছোট হয় যা সহজে যে কোনো ব্যাগে রাখা যায়।

ফ্লাশ করার সময় মানুষ তার ‘হ্যান্ডেল’ কিংবা ‘সুইচ’য়ের জীবাণু নিয়েই চিন্তিত থাকেন। দুটাই জীবাণুতে ভরপুর ঠিক। তবে ‘ফ্লাশ’ করার পর ‘কমোড’ কিংবা ‘প্যান’ থেকে পানির ধাক্কায় অসংখ্য জীবাণু বাতাসে মিশে যায়। তাই ফ্লাশ করার সময় উচিত হবে কমোডের ঢাকনা নামিয়ে নেওয়া।

ব্যক্তিগত পরিষ্কার পরিচ্ছন্নতা রক্ষা করাই সবচাইতে ভালো উপায়। ঘরে বা বাইরে যেখানেই শৌচাগার ব্যবহার করুন না কেনো বসার আগে ‘কমোড’য়ের ‘সিট’ পরিষ্কার করে নিতে হবে। ব্যবহারের পর ফ্লাশ করতে হবে ঢাকনা নামিয়ে। এবং সবশেষে দুই হাত ভালোভাবে সাবান দিয়ে ধুয়ে নিতে হবে। এরপর শৌচাগারের আর কোনো কিছু স্পর্শ করা চলবে না।

আরও পড়ুন

যে কারণে শৌচাগারে ফোন ব্যবহার করবেন না  

বাথরুমের ভুলগুলো  

জীবাণু বিস্তার রোধে শৌচাগারে করণীয়