মানসিক সুস্বাস্থ্যের জন্য ভিটামিন

  • লাইফস্টাইল ডেস্ক,, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-02-21 15:46:44 BdST

bdnews24

বিভিন্ন রকমের ভিটামিন ও খনিজ উপাদান মস্তিষ্ককের স্বাস্থ্য ভালো রাখার পাশাপাশি মন ভালো রাখতে সহায়তা করে।

পুষ্টি-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে মানসিক স্বাস্থ্য ভালো রাখার সহায়ক কয়েকটি ভিটামিনের নাম জানানো হল।

ভিটামিন বি: মস্তিষ্কের বিকাশে এই ভিটামিন একাই গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা পালন করে। ভিটামিন বি’য়ের নানান রূপ যেমন- বি১, বি২, বি৩, বি৬ ইত্যাদি মানসিক সমস্যা যেমন- হতাশা, চাপ ইত্যাদির কমাতে সাহায্য করে। অনেক খাবার ও সবজিতে ভিটামিন বি পাওয়া যায়। তাছাড়া সম্পূরক হিসেবেও ভিটামিন বি গ্রহণ করা যেতে পারে।   

সেলেনিয়াম: ‘ফ্রি রেডিকেল’ ও সংক্রমণ থেকে শরীরকে রক্ষা পেতে সেলেনিয়াম নামক গুরুত্বপূর্ণ ‘মাইক্রোনিউট্রিয়েন্ট’ সহায়তা করে। মস্তিষ্কের জন্য এটা বহুমুখি ভূমিকা পালন করে। মস্তিষ্কে অক্সিজেন সরবারহ, প্রদাহ হ্রাস এবং কোষের ক্ষয় থেকে রক্ষা করে বলে জানা যায় বিভিন্ন গবেষণা থেকে। সেলেনিয়ামের মাত্রা হতাশা ও অবসাদের ঝুঁকি কমায়। এছাড়াও অনেক ক্ষেত্রে উদ্বেগ কমাতে এটা সাহায্য করে।

ভিটামিন ডি: হাড় ও মস্তিষ্কের জন্য ভিটামিন ডি উপকারী। চিকিৎসক ও গবেষকদের মতে, পুষ্টিতে হরমোনের মতো বায়োকেমিক্যাল থাকে যা মস্তিষ্কের ‘রিসেপ্টর’গুলোর সঙ্গে যোগাযোগ করে এবং মস্তিষ্কের মধ্য দিয়ে চলে এমন গুরুত্বপূর্ণ কাজগুলো বজায় রাখতে সহায়তা করে। এটা কিছু এনজাইমকে সক্রিয় ও নিষ্ক্রিয় করে যা স্নায়ুর বৃদ্ধি ও প্রদাহ কমাতে সাহায্য করে। ভিটামিন ডি’য়ের সার্বিক বৃদ্ধি মস্তিষ্ককে সুস্থ রাখে এবং মানসিক অসুস্থতার হার কমায়।  

হলুদ: হলুদের রয়েছে নানান উপকারিতা। এটা শরীর সার্বিকভাবে সুস্থ রাখে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়। হলুদে রয়েছে এডিএইচডি যা হতাশা ও মানসিক অবসাদ দূর করে। হলুদের বায়োঅ্যাক্টিভ উপাদান মস্তিষ্কের কার্যক্রিয়া বাড়াতে প্রয়োজনীয় চর্বি ডিএইচএ সরবারহে সাহায্য করে। এর অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট জারণের চাপ কমাতে সাহায্য করে।

ম্যাগনেসিয়াম: মস্তিষ্কের জন্য ম্যাগনেসিয়াম খুব ভালো উপাদান। এটা মূল স্নায়ুর কার্যক্রিয়া নিয়ন্ত্রণ করে এবং মস্তিষ্ক থেকে শরীরে সংকেত দেয় ও কার্যক্রিয়া সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করতে সাহায্য করে। দ্বিতীয়ত, এটা মস্তিষ্কের বিকাশে সহায়তা করে এবং জ্ঞানীয় কাজ ও প্রয়োজনীয় তথ্য সরবারহে সহায়তা করে। শুনে অবাক হবেন যে, ম্যাগনেসিয়ামের নিরাপদ পরিমাণ হল ৪০০ থেকে ৪২০ মি.গ্রা. যা ‘ফ্লাইট অর ফাইট’ প্রতিক্রিয়ার সঙ্গে লড়াই করতে শরীরকে সহায়তা করে।

ছবি: রয়টার্স।

আরও পড়ুন

ভিটামিনের অভাব বোঝার উপায়  

মাখনের শুদ্ধতা যাচাইয়ের উপায়  

বৃক্ক সুরক্ষায় ভিটামিন বি  


ট্যাগ:  খাদ্য ও পুষ্টি  লাইফস্টাইল