মুখের ক্ষত সারাতে

  • লাইফস্টাইল ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-05-13 15:04:30 BdST

bdnews24

মুখগহ্বরের নানান কারণে হওয়া ক্ষত বা আলসার থেকে পরিত্রাণের জন্য রয়েছে প্রাকৃতিক উপাদান।

স্বাস্থ্য-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে মুখের ভেতর হওয়া ক্ষত দূর করার কয়েকটি উপাদান সম্পর্কে জানানো হল। 

মধু: মুখের আলসার রোধে খাঁটি মধু খুব ভালো কাজ করে। এর অ্যান্টিবায়োটিক উপাদান আক্রান্ত স্থান আর্দ্র রেখে এবং শুষ্কতার হাত থেকে রক্ষা করে। এতে এক চিমটি কাঁচা হলুদ ব্যবহার করলে তা আরও ভালো কাজ করবে।

নারিকেল তেল: প্রদাহ ও ব্যাক্টেরিয়া রোধী উপাদান সমৃদ্ধ যা ঘরোয়া ওষুধ হিসেবে কাজ করে। এটা ব্যথানাশক হিসেবে তাৎক্ষণিক কাজে দেয়। তাই ভালো ফলাফল পেতে ও ব্যথা কমাতে দিনে কয়েকবার করে নারিকেল তেল ব্যবহার করতে পারেন।

পরামর্শ- আক্রান্ত স্থানে জমাট বাঁধানো আধা চামচ নারিকেল তেল ধরে রাখুন। তাৎক্ষণিক আরাম মিলবে। 

অ্যালো ভেরা: অ্যালো ভেরার জেলে আছে আরামদায়ক উওপাদান যা ব্যথা কমিয়ে আরাম প্রদানে সহায়তা করে। অ্যালো ভেরার রস মুখে নিয়ে দিনে দুবার কুলকুচি করুন, আলসারের কারণে হওয়া ব্যথা কমে যাবে।

পরামর্শ- অ্যালো ভেরার রস পাওয়া না গেলে তাজা অ্যালো ভেরা আক্রান্ত স্থানে ব্যবহার করতে পারেন।  

অ্যাপল সাইডার ভিনিগার: বহুমুখি উপকারিতার জন্য এই ভিনিগার বেশ জনপ্রিয়। এর প্রাকৃতিক অ্যাসিডিক উপাদান ক্ষততে থাকা ব্যাক্টেরিয়া ধ্বংস করতে সহায়তা করে। ব্যথা দূর করতে ভিনিগার মুখে নিয়ে ধুয়ে ফেলুন।

পরামর্শ- অ্যাপল সাইডার ভিনিগার পানির সঙ্গে মিশিয়ে মুখ কুলকুচি করুন।

লবণ পানি: মুখের অভ্যন্তরের যে কোন সমস্যা- ব্যথা, ফোলাভাব ইত্যাদি উপশমে লবণ সারা বিশ্বজুড়েই ব্যবহার করা হয়। ক্ষত সারাতে ও ব্যাক্টেরিয়া কমাতে লবণ  উপকারী। মুখ পরিষ্কার করতে ও ব্যাক্টেরিয়ার কারণে হওয়া মুখের দুর্গন্ধ রোধ করতে লবণ সহায়তা করে।

পরামর্শ- লবণ পানি দিয়ে দিনে দুবার মুখ কুলকুচি করুন।

টুথপেস্ট: টুথপেস্টে আছে অ্যান্টি মাইক্রোবিয়াল উপাদান যা সংক্রমণের কারণে হওয়া ব্যাক্টেরিয়ার বিরুদ্ধে কাজ করে। আক্রান্ত স্থানে টুথপেস্ট ব্যবহার করলে খনিকের জন্য জ্বালাপোড়া হতে পারে কিন্তু তা ধীরে ধীরে আক্রান্ত স্থানকে সুস্থ করে তোলে।

পরামর্শ- ‘ইয়ার-বাড’ বা ‘ ‘কিউ-টিপ’ ব্যবহার করে আক্রান্ত স্থানে টুথপেস্ট লাগান। দিনে একবার ব্যবহারে ভালো ফলাফল পাওয়া যাবে।

রসুন: রসুনে রয়েছে প্রাকৃতিক অ্যান্টিমাইক্রোবিয়াল যা আলসারের কারণে হওয়া দাঁতের ব্যথা দূর করতে সহায়তা করে। এতে আছে অ্যালিসিন নামক উপাদান যা দাঁতের ব্যথা ও ফোলাভাব কমায়।

পরামর্শ- এক কোষ রসুন মুখের আক্রান্ত স্থান ঘষুন। দিনে দুইবার ব্যবহারে ভালো ফল পাওয়া যাবে।  

কমলার রস: ভিটামিন সি’য়ের স্বল্পতা দেখা দিলে মুখে আলসার হতে পারে। কমলার রস ভিটামিন সি’র ভালো উৎস এবং তা মুখের ব্যথা গভীর থেকে উপশম করতে পারে।

পরামর্শ- বাজার থেকে কেনা কমলার জুসের পরিবর্তে তাজা কমলা খাওয়ার অভ্যাস গড়ে তুলুন।

আরও পড়ুন

অ্যাসিডিটির সমস্যা দূর করার খাবার  

পাকস্থলীর ক্ষত সারানোর ঘরোয়া চিকিৎসা  

ওষুধ সেবনের আগে যা জানা জরুরি  

মুখের ভেতর শুষ্কভাব  


ট্যাগ:  দেহঘড়ি