করোনাভাইরাস: মোবাইল হতে পারে ‘ট্রোজান হর্স’

  • লাইফস্টাইল ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-05-17 13:42:52 BdST

bdnews24

মোবাইল ফোন ঠিক মতো জীবাণুমুক্ত না করলে সেখান থেকেও সংক্রমণের সম্ভাবনা থাকে।

ট্রোজান হর্স বা ট্রয়ের ঘোড়া’র গল্পটা জানা আছে আশা করি। ট্রয়দের সঙ্গে যু্দ্ধে সুবিধা করতে না পারে গ্রিকরা একটা বিশাল কাঠের ঘোড়া তৈরি করে ট্রয় নগরীর ফটকের সামনে রেখে চলে যায়। ট্রয়রা সেটাকে উপহার মনে করে শহরে নিয়ে আসে। অথচ সেই বিশাল কাঠের ঘোড়ার ভেতর ছিল গ্রিক যোদ্ধারা। তারা রাতের আঁধারে ঘোড়া থেকে বের হয়ে খুলে দেয় নগরীর দরজা। বাইরে ঘাপটি মেরে থাকা গ্রিক সৈন্যরা ভেতরে ঢুকে অতর্কিত আক্রমণ চালায়।

সেরকমই মোবাইল ফোনটিও হতে পারে করোনাভাইরাসের জন্য ‘ট্রয়ের ঘোড়া’। যেখানে সে ঘাপটি মেরে বসে আছে। সুযোগ বুঝে ঢুকে যাবে শরীরের ভেতর। আর এই কারণেই বিশেষজ্ঞরা মোবাইল ফোন সবসময় জীবাণুমুক্ত করার পরামর্শ দিচ্ছেন।  

অস্ট্রেলিয়ার বিশেষজ্ঞরা পর্যবেক্ষণমূলক গবেষণায় দেখতে পেয়েছেন মোবাইলের স্ক্রিন এবং অন্যান্য সকল ‘টাচস্ক্রিন’যুক্ত যন্ত্রে করোনাভাইরাস থাকতে পারে।

অস্ট্রেলিয়ার ‘বন্ড ইউনিভার্সিটি’র সহযোগী অধ্যাপক লতি তাজৌরি এই গবেষণার জন্য ২৪টি দেশের মোট ৫৬টি গবেষণা নিয়ে কাজ করেছেন এবং দেখেছেন মোবাইল অসংখ্য ধরনের ভাইরাস ও ব্যাক্টেরিয়ার আড্ডাখানা।

তাজৌরি বলেন, “আমাদের পরামর্শ হল প্রতিদিন আপনার মোবাইল জীবাণুমুক্ত করুন। এজন্য ব্যবহার করতে পারেন ৭০ শতাংশ ‘আইসোপ্রোপাইল’ দ্রবণ, অতিবেগুনি রশ্মি কিংবা সাবান পানিতে ভেজানো কাপড় দিয়ে মুছে নিতে পারেন।”

তাজৌরি আরও বলেন, “গবেষণার মাধ্যমে মোবাইলে ‘গোল্ডেন স্ট্যাফ’, ‘ই-কোলি’ ইত্যাদি জীবাণুর মাত্রা সবচাইতে বেশি দেখা গেছে। জীবাণুর জন্য মোবাইলগুলো যেন পাঁচ তারকা হোটেল, যেখানে প্রতি মুহূর্তের জন্য আছে স্পা আর বুফে খাবার। মোবাইলে তাপমাত্রা নিয়ন্ত্রণের প্রযুক্তিনির্ভর ব্যবস্থা থাকে। যন্ত্রটি দিনের বেশিরভাগ সময় আমাদের হাতে কিংবা পকেটে থাকে। ফলে সেখানেও জীবাণু পায় অনুকূল পরিবেশ।”

“মোবাইলে কথা বলার সময় আমরা তাতে ‘ড্রপলেট’ রেখে দেই যা অসংখ্য ভাইরাস ও ব্যাক্টেরিয়াতে ঠাঁসা থাকে। এমনকি খাওয়া সময় মোবাইল আশপাশেই থাকে, ফলে নিজের খাবার দিয়ে জীবাণুকে পুষ্টিও যোগাই আমরাই। আর আমার বিশ্বাস কেউই তাদের মোবাইল পর্যাপ্ত পরিমাণে জীবাণুমুক্ত করে না।” বলেন তাজৌরি।

ভ্রমণের সময় সঙ্গে যে মোবাইল থাকে তাতে কী জীবাণু আছে তা কোনো সীমান্তেই পরীক্ষা করা হয় না। আমরা নিজেরাই জানি না নিজেদের কতবড় শত্রু আমরা বয়ে নিয়ে বেড়াচ্ছি। এজন্যই লতি তাজৌরি মোবাইলকে বলছেন ‘ট্রোজান হর্স’।

গবেষকরা বলছেন, “মোবাইলের মাধ্যমে ‘কমিউনিটি ট্রান্সমিশন’য়ের উদাহরণ হল একজন করোনাভাইরাস আক্রান্ত ব্যক্তি তার মোবাইল ব্যবহারের পর ধরা যাক কোনো বাসের হাতল স্পর্শ করল। এখন তার পরে কোনো সুস্থ ব্যক্তিও ওই হাতল স্পর্শ করলে তার কাছেও ভাইরাসটি চলে গেল। আর বাসের একটি হাতল প্রতিদিন কয়েকশ মানুষ স্পর্শ করে। করোনাভাইরাসের সংক্রমণের গতি অনেক বিজ্ঞানীকে হতভম্ব করেছে। আর সেই ভাইরাসটি আপনার মোবাইলেই যদি বাস করে তবে হিসাব এবার নিজেরাই মিলিয়ে নিতে পারবেন। তাই নিজেদের মোবাইলটি যদি আমরা প্রতিদিন জীবাণুমুক্ত করি তবে এই সামান্য কাজটির মাধ্যমেই সংক্রমণ কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখা সম্ভব।

ভারতের শ্রী বালাজি অ্যাকশন মেডিকল ইনস্টিটিউটের ‘মাইক্রোবায়োলজি’ বিভাগের জ্যেষ্ঠ পরামর্শদাতা জ্যোতি মাত্তা বলেন, “হাত পরিষ্কারের পাশাপাশি প্রতি ৯০ সেকেন্ড পর পর মোবাইল জীবাণুমুক্ত করা উচিত। সেই কাজে ব্যবহার করতে হবে অ্যালকোহলযুক্ত জীবাণুনাশক। তুলার কাপড়ে কয়েক ফোঁটা স্যানিটাইজার নিয়ে সাবধানে পুরো মোবাইল মুছে নিন।”

ছবি: রয়টার্স।

আরও পড়ুন

করোনাভাইরাস: মোবাইল জীবাণু মুক্ত করার উপায়  

করোনাভাইরাস: আপনার মোবাইল নিরাপদ তো?  

করোনাভাইরাস থেকে দূরে থাকতে করণীয়  

মোবাইল ফোনের কারণে ঘাড়ে ব্যথা হলে  


ট্যাগ:  লাইফস্টাইল  জেনে রাখুন