আর্থ-সামাজিক দুর্যোগ সামলাতে

  • তৃপ্তি গমেজ, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-07-10 14:05:26 BdST

bdnews24
লতিফ বাওয়ানী জুট মিলের তাঁতি আবুল হোসেন চলে যাচ্ছেন নিজ জেলা নোয়াখালীতে। কোয়ার্টার থেকে ব্যাগপত্র নিয়ে যাওয়ার সময় সহকর্মীদের কাছ থেকে বিদায় নিয়ে নিচ্ছেন তিনি। ছবি: মাহমুদ জামান অভি

কোভিড-১৯ কেবল আমাদের শারীরিক বা মানসিক অবস্থার ওপর নয়, প্রভাব রাখছে অর্থনৈতিক ও দৈনন্দিন জীবন যাত্রার ওপরেও।

মহামারীর এই সময়ে অনেকেই চাকুরি হারিয়ে পাড়ি জমাচ্ছেন গ্রামের পথে। চাকুরি চ্যুত হওয়া, অর্ধেক বেতন ভাতা আর এসবের পাশাপাশি নিত্য প্রয়োজনীয় জিনিসের চড়া দামে অনেকেই কোণ ঠাঁসা হয়ে পড়েছেন।

শুরুতে এর সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলার চেষ্টা করলেও হাল ছেড়ে এখন অনেকেই বাড়ির পথে পা বাড়িয়েছেন।

বাংলাদেশ গার্হস্থ্য অর্থনীতি কলেজের ‘রিসোর্স ম্যানেজমেন্ট ও এন্ট্রাপ্রেনিওরশিপ’ বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক শিমু লতা মৃধা অর্থ আয় ব্যয়ের সামঞ্জস্য ও সঞ্চয় ইত্যাদি বিষয় কথা বলেন।

তার মতে, “মহামারীর কারণে অর্থনৈতিকভাবে সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছেন মধ্যবিত্ত ও নিম্ন মধ্যবিত্তরা।”

“যারা শ্রমজীবী বা ঘণ্টা ভিত্তিতে কাজ করে উপার্জন করেন তাদের কাজ কমে যাওয়ায় আয়ও কমে গেছে। ফলে তাদের পক্ষে এই সময় সংসার চালানো কঠিন হয়ে পড়েছে।”

তিনি আরও বলেন, “রাস্তায় বের হলেই দেখা যায় যাত্রী নেই তবুও খালি রিক্সার ভিড়, এরা সারাদিনে যে খুব বেশি আয় করতে পারছে তা নয়। কিন্তু তবুও এরা শহরের মায়া ছেড়ে গ্রামে ফিয়ে যাচ্ছেনা বা এখানে থেকেও অন্য কোনো আয়ের কথা ভাবছে না। ফলে বড় একটা সামাজিক বিপর্যয়ের দিকে এগিয়ে যাচ্ছি আমরা।”

অনেকে হয়ত ত্রাণের আশাতে শহর ছাড়ছেন না। কিন্তু এটা মেনে নিতেই হবে যে, দিন যত আগাচ্ছে ত্রাণের পরিমাণ তত কমবে। সুতরাং, কেবল ত্রাণের আশায় হাত পা গুটিয়ে বসে থাকা কোনো সমাধান না।  

এছাড়াও ঋণ নিয়ে ফ্ল্যাট, জমি বা গাড়ি কিনেছেন এমন অনেকেই বর্তমানে আর্থিক হুমকির সম্মুখিন। আয় কমে যাওয়ায় তাদের ঋণ পরিশোধের পাশাপাশি সংসার চালান অসম্ভব হয়ে পড়েছে ফলে ধরতে হয়েছে গ্রামের পথ। 

উচ্চ মধ্যবিত্ত ও সাধারণ মধ্যবিত্তদের অর্থনৈতিক অবস্থা বর্তমানে খুব বেশি খারাপ হওয়ার পেছনে সঞ্চয় না থাকা বা কম থাকাকে অন্যতম কারণ বলে মনে করেন, এই অধ্যাপক।

যুগের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে গিয়ে অধিকাংশই ভোগ বিলাসের দিকে বেশি মনোযোগ দিয়েছেন। ফলে কমে গেছে সঞ্চয়ের পরিমাণ। বেতন স্কেল বড় হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ক্রেডিট কার্ড নেওয়া, ইএমআই’তে পণ্য ক্রয়, ফ্ল্যাট বা গাড়ি ক্রয়, কিস্তিতে দেশের বাইরে বেড়াতে যাওয়া ইত্যাদি বিষয়গুলো অনেক বেশি সহজ হয়ে গেছে। ফলে ভবিষ্যতে খারাপ পরিস্থিতি সামাল দেওয়ার কথা বিবেচনা না করে অনেকেই কেবল বর্তমান ভোগের দিকে মনোযোগ দিয়েছেন।

তাই উচ্চ মধ্যবিত্ত অনেকের পক্ষেই কঠিন হয়ে গেছে বর্তমান পরিস্থিতি সামাল দেওয়া। তবে এটা সকলের জন্য নয়। যার সামর্থ আছে তার কথা বাদ। যার সামর্থ কম কিন্তু বেতন বৃদ্ধি তাকে ভোগের দিকে উৎসাহিত করেছে এমন মানুষেরা এই সময়ে বেশি বিপদে পড়েছেন বলে মনে করছেন শিমু লতা মৃধা।

সীমিত আয়ে সংসার পরিচালনার ক্ষেত্রে অপ্রয়োজনীয় ও বিলাসজাত পণ্য ব্যবহার থেকে বিরত থাকার পরামর্শ দেন তিনি।

“অকারণ বিদ্যুত ও পানির অপচয়, খাবারে বৈচিত্র হ্রাস, বিলাস ও নেশাজাত পণ্য (সিগারেট, অতিরিক্ত চা পান) ইত্যাদি বিষয়গুলো নিয়ন্ত্রণে রাখার চেষ্টা করা উচিত। পরিস্থিতি ঠিক না হওয়া পর্যন্ত এমন অর্থনৈতিক ভারসাম্য হীনতা চলতে থাকবে তাই সবারই বিকল্প আয়ের কথা চিন্তা করা উচিত। পরিবারের সকল সদস্যই যদি নিজের জায়গা থেকে আয় বৃদ্ধির জন্য কিছু করার চেষ্টা করেন তাহলে পরিস্থিতি এই কঠিন অনেকটাই সামলে নেওয়া যাবে,” বললেন মৃধা।

শহর ছেড়ে যারা চলে গেছেন, তারা আর কখনও ফিরতে পারবেন কিনা বা ফিরবেন কিনা এমনটা জানতে চাইলে তিনি বলেন, “শহরে থাকতেই হবে এমন কোনো কথা নেই। যারা গ্রামে চলে গেছেন তারা যদি সেখানেই কোনো রকমের খামার বা চাষের সঙ্গে যুক্ত হয়, সেটা ছোট বড় যে কোনো আকারেই ব্যবসায়িক কার্যক্রম শুরু করে তাহলে তা তাদের আয়ের পথ সুগম করবে ও দেশের অর্থনৈতিক অবস্থাও উন্নত হবে  এবং ভবিষ্যতও নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।”

সীমিত পরিসরে সবজি চাষ, হাঁস মুরগি, গরু-ছাগল পালন, মাছ চাষ বা অন্য যেকোনো পেশায় নিজেদের নিয়জিত করতে পারেন।

তবে শুরুতেই হাতে যা টাকা আছে তার সবটা বিনিয়োগ না করার পরামর্শ দেন এই অধ্যাপক। শুরুতে সামান্য বিনিয়োগ করে তার ফল যাচাই ও পরে তা বড় পরিসরে করার পরামর্শ দেন তিনি।

শিমু লতা বলেন, “আগে সঞ্চয় বলতে আমরা আয় থেকে ব্যয়ের পরিমাণ বাদ দেওয়াকে বুঝতাম। কিন্তু মহামারীর এই সময় আমাদের শিখিয়েছে যে আয় থেকে আগে সঞ্চয়ের পরিমাণ বাদ দিয়ে ব্যয় করার চেষ্টা করা। এতে করে ভবিষ্যতে খারাপ পরিস্থিতি মোকাবিলা করা সহজ হবে।”

আরও পড়ুন

আর্থিক টানাপোড়েন, এখন থেকেই প্রস্তুতি  

সঞ্চয়ের সরল পন্থা  

খরচের ওপর ‘লকডাউন’ এর প্রভাব  

খরচের ধাত থেকে ব্যক্তিত্বের প্রকাশ  

খরচ নিয়ন্ত্রণের পন্থা  

ব্যয়বহুল প্রেম সাশ্রয়ী করতে  


ট্যাগ:  প্রতিবেদন  লাইফস্টাইল