সামাজিকতা বাড়ানো পাঁচটি উপায়

  • লাইফস্টাইল ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2020-12-13 19:11:07 BdST

bdnews24

সমাজে নিজের অবস্থান ধরে রাখতে কিছু অভ্যাস গড়ে নেওয়া যেতেই পারে।

যে কোনো আড্ডা বা অনুষ্ঠানে কিছু ব্যক্তিকে বরাবরই সবাই পছন্দ করেন। এর পেছনে রয়েছে তার ব্যক্তিত্বের এমন কিছু দিক যা সকলের কাছেই আকর্ষণীয়।

সম্পর্ক-বিষয়ক একটি ওয়েবসাইটে প্রকাশিত প্রতিবেদন থেকে নিজের সামাজিকতা রক্ষার পন্থা ও সকলের কাছে নিজেকে গ্রহণীয় করে তোলার উপায় সম্পর্কে জানান হল।

চোখে চোখ রাখা: সবার আগে মানুষ লক্ষ্য করে চোখ। তাই কারও সঙ্গে কথা বলার সময় তার দিকে তাকিয়ে বা চোখে চোখ রেখে স্বাভাবিকভাবে কথা বলা প্রয়োজন। এর মধ্য দিয়ে আপনি যে তার সঙ্গে কথা বলতে আগ্রহী ও কথা বলে আনন্দ পাচ্ছেন তা বোঝা যায়। এতে করে তিনিও আপনার প্রতি আগ্রহী হবে ও আপনার জনপ্রিয়তা বাড়বে।

অন্যের কথা শোনা: অন্যের কথা মনোযোগ দিয়ে শোনার মতো গুণাবলী অনেক কম মানুষের মধ্যেই থাকে। কেউ যদি আপনাকে বিশ্বাস করে কথা বলে থাকে এর মানে হল সে আপনার কাছে কথা বলে ভরসা পাচ্ছে এবং এর পেছনে কারণ হল আপনি একজন ভালো শ্রোত। মাঝে মধ্যে অন্যের কথা শোনার মতো ধৈর্য্য থাকা মানে, অন্যকে মন খুলে কথা বলার মতো পরিবেশ তৈরিতে সহায়তা করে।

আলোচনার বিষয়বস্তু: অপ্রাসঙ্গিক কথা বলার প্রয়োজন নেই এতে বিরক্তি বাড়ে। তাই সাম্প্রতিক বিষয়গুলো সম্পর্কে জ্ঞান রাখুন। এ বিষয়ে আপনার সুস্পষ্ট ধারণা ও মতবাদ প্রকাশ আলোচনাকে বেশ প্রাণবন্ত করে তুলবে। এতে কেউ বিরক্ত হবে না বরং আপনার সঙ্গ সকলের কাছেই গ্রহণযোগ্য হবে।

অন্যের বিষয়ে আগ্রহ প্রকাশ: অন্যের কথা আগ্রহ নিয়ে শোনা ও সে বিষয় নিয়ে কথা বলার মধ্য দিয়ে আপনার আগ্রহ প্রকাশ পায়। অন্যের পছন্দের বিষয়ে কথা বলা ও উৎসাহ দেওয়া আপনার ব্যক্তিত্বকে তাদের কাছে আকর্ষণীয় করে তোলে। সেই মানুষও যদি আপনার সঙ্গে নির্দ্বিধায় এসকল বিষয়ে আলোচনা করে তাহলে বলা যায় আপনার আলোচনার মাত্রা ও ধরণ ঠিক আছে।

হাস্যরস সম্পর্কে ধারণা: হাসি খুশি মানুষের সঙ্গে কথা বলতে সবাই পছন্দ করে। কোথাও বেড়াতে গেলে বা কোনো আড্ডায় সঙ্গী যদি প্রাণবন্ত হয় তাহলে পরিবেশটাই এমনিতেই আনন্দঘন হয়ে ওঠে। তাই সঙ্গী হিসেবে হাস্যরস জ্ঞান সমৃদ্ধ ব্যক্তি সকলের কাম্য।

আরও পড়ুন

পরিবারের থেকে বন্ধুই যখন আসল!  

কাছের বন্ধু পাঁচের বেশি নয়  

বড়বেলায় নতুন বন্ধু তৈরির উপায়  

বন্ধুত্ব প্রেমে না গড়ানোর পন্থা  

সঙ্গী যখন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে মগ্ন  

নিঃসঙ্গতার কারণ হতে পারে ‘সোশাল মিডিয়া’