খাবার খাওয়ার পন্থায় কোমরের মাপ বৃদ্ধি

  • লাইফস্টাইল ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-06-23 11:15:55 BdST

bdnews24

খাবার খাওয়ার তিন রকম পদ্ধতির কারণে বাড়তে পারে কোমরের পরিধি।

প্লেট ভর্তি করে খাবার নিয়েছেন, তারপর মুখ ভরে খাবার নিলেন আর খরগোশের মতো দ্রুত গতিতে গিলে ফেললেন; যেন খাবার খাওয়ার প্রতিযোগিতায় নেমেছেন!

এভাবে খাবার খেলে, যতই ‘ডায়েট’ কিংবা শরীরচর্চা করা হোক, তারপরও কোমরের মাপে পরিবর্তন হবে না। এমনকি বেড়েও যেতে পারে।

আর এরকম তথ্যই পাওয়া গিয়েছে ‘দি পেন্সিলভেনিয়া স্টেট ইউনিভার্সিটি’ করা এক গবেষণায়।

গবেষকরা ৪৪ জন অংশগ্রহণকারীকে প্রতি সপ্তাহে একবার ‘ম্যাকরনি অ্যান্ড চিজ’ খেতে দেয়। এভাবে চার সপ্তাহ পর্যবেক্ষণ চালানো হয়। প্রতিবার তাদের খাওয়ার গতি, সময় ও মুখের খাবার তোলার পরিমাণের দিকে লক্ষ রাখা হয়।

প্রতি সপ্তাহে খাবারের পরিমাপও ছিল ভিন্ন।

খাবারের পরিমাণ ৭৩ শতাংশ বৃদ্ধি করায় দেখা গেছে গড়ে তারা ৪৩ শতাংশ বেশি খেয়েছেন। পরিমাণ যাই হোক, অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে যারা বেশি খাবার মুখে তুলেছেন আর দ্রুত খেয়েছেন তাদের মধ্যেই বেশি খাবার খাওয়ার প্রবণতা দেখা গেছে।

‘নিউট্রিশন ২০২১ লাইভ অনলাইন কনফারেন্স’য়ে এই গবেষণা উপস্থাপন করে বলা হয়, “এটা হচ্ছে ‘রিডিউস ওরো-সেন্সরি এক্সপোজার’ বা ‘ওএসই’র ফলাফল। মানে হল যখন খাবার খাওয়া হয় তখন কেমন বোধ হয়। যদিও এরসঙ্গে ক্যালির মাপ ও পরিমাণের তুলনা করা হয় না। তবে কীভাবে খাচ্ছেন সেটার বিশাল প্রভাব পড়ে ওসিই’র ওপর।

ওসিই’র ওপর করা অন্যান্য গবেষণার ফলাফল থেকে ‘ইট দিস, নট দ্যাট ডটকম’য়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে বলা হয়, বেশি পরিমাণে খাবার মুখে তোলা ও কম চিবিয়ে গিলে ফেলার তুলনায় যদি ধীর গতিতে মন ভরে খাওয়া হয় তবে এক ধরনের উদ্দিপনার সৃষ্টি হয়। যা দ্রুত পেট ভরা অনুভূতি দেয়।

বেশি পরিমাণে খাবার মুখে তুলে দ্রুত গতিতে খাওয়া ওজন কমানোর অন্তরায়।

এই গবেষণার ওপর ভিত্তি করে যুক্তরাষ্ট্রের নিবন্ধিত পুষ্টিবিদ ভেনেসা রিসেত্তো বলেন, “সচেতনতা বৃদ্ধি মাধ্যমে এই বাজে অভ্যাস পরিবর্তন করা যেতে পারে।”

তিনি আরও বলেন, “যাদের দ্রুত খাওয়ার অভ্যাস রয়েছে তাদের কাছে অল্প খেয়ে মন ভরানোর বিষয়টা অদ্ভূত লাগতে পারে। তাবে এর জন্য সময় দিতে হবে।”

প্রতি কামড়ে খাবারের স্বাদ উপভোগ করার পন্থা সম্পর্কে পরামর্শ দিতে গিয়ে এই পুষ্টিবিদ আরও বলেন, “ধরা যাক বিস্কুটের কথা। বেশিরভাগই একটা বিস্কুট একেবারে মুখে পুরে দেন অথবা দুই কামড়ে মুখে পুরে শেষ হওয়ার আগেই আরেকটা বিস্কুট মুখে নেন। এরকম না করে বরং বিস্কুটার গন্ধ নিন। তারপর ছোট কামড়ে এক টুকরা বিস্কুট মুখে নিয়ে ধীরে চিবিয়ে খেয়ে নিন। তারপর আরেকটা কামড় দিন।”

যে কোনো অভ্যাস গড়তে সময় লাগে। তাই বলে এক ঘণ্টা ধরে খেতে হবে এমন কোনো কথা নেই।

ধীরে খাওয়ার অভ্যাস গড়তে প্রথমে পরিমিত পরিমাণে খাবার মুখে তোলার অভ্যাস করুন। তারপর খাবারের স্বাদ উপভোগ করে ধীরে ধীরে চিবিয়ে খেয়ে নিন।

আর এভাবেই এক সময় মনভরে খাওয়ার অভ্যাস রপ্ত হয়ে যাবে।

ছবি: রয়টার্স।

আরও পড়ুন:

পেট ভরে নয়, মন ভরে খান  

পেটের ক্ষুধা বনাম মনের ক্ষুধা  

সাময়িক মন খারাপ নাকি বিষণ্নতা- যেভাবে বুঝবেন  

মন খারাপের খিদে, লাগাম টানুন নিজে