পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

প্রাকৃতিক ও ভেষজ প্রসাধনী বাছাইয়ের পন্থা

  • লাইফস্টাইল ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-07-24 11:36:45 BdST

bdnews24
ছবি: রয়টার্স।

রাসায়নিক উপাদান ছাড়া প্রসাধনী পণ্য কিনতে লক্ষ্য রাখতে হবে কয়েকটি বিষয়ের দিকে।

প্রাকৃতিক উপাদানে তৈরি প্রসাধনী ব্যবহারের সময় আগের সকল রাসায়নিক উপাদান সমৃদ্ধ পণ্য ব্যবহার বাদ দিতে।

রাসায়নিক উপাদান সমৃদ্ধ পণ্য নিয়মিত ও দীর্ঘদিন ব্যবহারে দেহ ও পরিবেশের ওপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলে।

ভারতের ‘কিউরা মেন’য়ের পরিচালক কারান গুপ্তা বলেন, “পণ্য কেনার আগে উপকরণগুলো দেখে নেওয়া উচিত। অনেক সময়ে এতে রাসায়নিক ও সিন্থেটিক উপাদানগুলোর নাম লুকায়িত থাকে যেমন- সুগন্ধি, এক্সফলিয়েটর ও ট্যালক।”

টাইমস অফ ইন্ডিয়া ডটকম’য়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে তিনি আরও বলেন, “পণ্যের তালকায় প্যারাবাইন, অ্যালকোহল, মিনারেল তেল ও অ্যালুমিনিয়াম লবণ লেখা থাকলে তা ব্যবহার না করাই ভালো।”

‘কৃষ্ণা হারবাল ও আয়ুর্বেদ’য়ের প্রতিষ্ঠাতা শ্রাবণ দাগা এই বিষয়ে আরও বলেন, “রূপচর্চায় ভেষজ ও প্রাকৃতিক পণ্য ব্যবিহার করতে চাইলে যে সকল ব্র্যান্ড তাদের পণ্য সম্পর্কে ভেষজ, প্যারাবেন, সালফেট ও ফ্যালেট মুক্ত বলে দাবী করে তাদের পণ্য ব্যবহার করা উচিত।”

“যেসব উপাদানে উদ্ভিজ্জ তেল, প্রাকৃতিক রং ও সুগন্ধ ব্যবহার করা হয় তা ব্যবহার করা ভালো। এগুলো কাজ ধীরে করে কিন্তু সবদিক থেকেই উপকারী ও নিরাপদ।”

ভারতের ‘নামিয়া স্কিনকেয়ার’য়ের পরিচালক কারান গুপ্তা বলেন, “দৈনিক ত্বকের যত্নে প্রাকৃতিক ও ভেষজ পণ্য ব্যবহারে ধীরে ধীরে পরিবর্তন আনতে হবে। প্রথমে সানব্লক, বডি লোশন ও ডিওডোরেন্ট এবং পরে শ্যাম্পু ও রূপচর্চার সামগ্রী ও মেইকআপ।”

“এছাড়াও, ভেষজ পণ্য ব্যবহার করলে এর কার্যকারিতা সম্পর্কে বাস্তব জ্ঞান রাখা প্রয়োজন। এগুলো কাজ করতে রাসায়নিক পণ্যের তুলনায় বেশি সময় নেয় এবং কোনো রকম পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয় না।”

কোন ব্র্যান্ডের পণ্য আপনার জন্য ভালো কাজ করবে তা খুঁজে পেতে কিছুটা সময় প্রয়োজন। কারণ এগুলো সিন্থেটিক ও রাসায়নিক উপাদান সমৃদ্ধ পণ্যের তুলনায় ধীরে কাজ করে।

ভেষজ ও প্রাকৃতিক পণ্য ব্যবহার কেবল ত্বকের জন্যই ভালো তা নয়, এটা সার্বিক স্বাস্থ্য ও পরিবেশের জন্যও ভালো।

আরও পড়ুন

উজ্জ্বল ত্বকের জন্য ভেষজ মাস্ক

নিজেই তৈরি করুন ভেষজ শ্যাম্পু  

প্রাকৃতিক পন্থায় ব্রণ নিরাময়