পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

রূপচর্চায় যে উপাদানগুলো মেশানো ঠিক নয়

  • লাইফস্টাইল ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-10-22 11:07:28 BdST

bdnews24

একই সঙ্গে একাধিক উপাদান ব্যবহারে রাসায়নিক বিক্রিয়া থেকে ত্বকে নানান অস্বস্তি হয়।

রূপচর্চার প্রসাধনীতে হাইয়ালুরনিক অ্যাসিড, নায়াসিনামাইড, রেটিনল ও স্যালিসিলিক অ্যাসিড সক্রিয় উপাদান হিসেবে কাজ করে। এগুলো প্রসাধন সামগ্রী হিসেবে ব্যবহার করলে ভালো ফলাফল পাওয়া যায়।

তবে কোনো কোনো উপাদান একটার সঙ্গে আরেকটা বিক্রিয়ার কারণে ত্বকে বিরূপ প্রভাবও ফেলে।  

এই বিষয়ে ক্যালিফোর্নিয়ার নিবন্ধিত ত্বকবিশেষজ্ঞ ডা. ক্যারেন ক্যাম্পবেল বলেন, “ত্বকের যত্নে সক্রিয় উপাদানগুলো মিশ্রণে সবচেয়ে বড় সমস্যা হল এগুলো ত্বকের শুষ্কতা, জ্বলাপোড়া বা লালচেভাব সৃষ্টি করতে পারে।”

ওয়েলঅ্যান্ডগুড ডটকম’য়ে প্রকাশিত প্রতিবেদনে তিনি আরও বলেন, “এছাড়াও, কখনও কখনও বিবর্ণতাও দেখা দিতে পারে। তাছাড়া এর প্রভাবে ত্বকে অন্যান্য উপাদানের কার্যকারিতাও হ্রাস পেতে পারে।”

পরীক্ষণমূলকভাবে কোনো প্রসাধনী ব্যবহার করে ত্বকের ক্ষতি না করাই ভালো। তাই ব্যবহারের আগে উপাদান সম্পর্কে সঠিক ধারণা রাখার বিকল্প নেই।

ভিটামিন সি এবং এক্সফলিয়ান্টস

ক্যালিফোর্নিয়ার ত্বক বিশেষজ্ঞ শার্লি চি বলেন, ত্বক এক্সফলিয়েট করার পরে কখনই ভিটামিন সি ব্যবহার করা ঠিক নয়। এক্সফলিয়েটিং উপাদান ‘আলফা–হাইড্রোক্সি অ্যাসিড(এএইচএ)ৎ, গ্লাইকোলিক অ্যাসিড, বেটা-হাইড্রোক্সি অ্যাসিড(বিএইচএ), স্যালিসিলিক অ্যাসিড এবং স্ক্রাবের মতো এক্সফলিয়েটিংয়ের কাজ করে।

কেমিক্যাল পিল ব্যবহারের পরেও সেরাম ব্যবহারের ক্ষেত্রে এই বিষয়ে সচেতন থাকতে হবে বলে জানান তিনি।

রেটিনয়েডস এবং হাইড্রোক্সি অ্যাসিড

এএইচএ এবং বিএইচএ ব্যবহার করলে একই সময়ে রেটিনয়েড ব্যবহার করা থেকে বিরত থাকতে হবে। কোষ পুনর্গঠনে রেটিনয়েড খুব ভালো কাজ করে। তাই রেটিনয়েড ব্যবহারে কিছুটা জ্বালাপোড়া হতে পারে।

অস্বস্তি থেকে বাঁচাতে এক্সফলিয়েট করে ত্বকে রেটিনয়েড ব্যবহার করা যাবে না।

ডা. ক্যাম্পবেল বলেন, “এএইচএ ও বিএইচএর সঙ্গে রেটিনয়েড ব্যবহার করলে ত্বক শুষ্ক হয়ে যেতে পারে। জ্বালাপোড়া এড়াতে সপ্তাহে দুএকবার গ্লাইকোলিক ওয়াশ ব্যবহার করা যেতে পারে এবং এক্সফলিয়েট করা হয়নি এমন রাতে রেটিনয়েড ব্যবহার করা উচিত।

ভিন্ন রকমের রেটিনয়েডস

রেটিনয়েডস পছন্দ করার কারণ হল এটা ত্বককে পরিষ্কার ও উজ্জ্বল করতে সহায়তা করে। তবে অতিরিক্ত ব্যবহার ভালো নয়।

রেটিনল, রেটিনালডিহাইড, রেটিনল এস্টারস, ট্রেটিনয়েন, অ্যাডাপালেন, টাজারোটিন এবং ট্রাইফারোটিন ইত্যাদি রেটিনল ত্বকে দুবার ব্যবহার না করার পরামর্শ দেন ডা. চি।

রেটিনয়েড সমৃদ্ধ সেরাম ব্যবহারের পরে অ্যাডাপালেন ব্যবহার ত্বকে জ্বলুনি বাড়াতে পারে। তাই পণ্য ব্যবহারের আগে এর লেবেল ভালো মতো পড়ে নেওয়া উচিত।

কপার পেপটাইডজ ও ভিটামিন সি

ত্বকের যত্নে ও পুনর্গঠনে কপার পেপটাইডজ বেশ জনপ্রিয়। তবে এর সঙ্গে ভিটামিন সি সমৃদ্ধ কোনো প্রসাধনী ব্যবহার করা ঠিক হবে না। এতে ভিটামিন সি’য়ের অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট কমে ত্বকে বিবর্ণতা দেখা দিতে পারে বলে জানান ডা. ক্যাম্পবেল।

ভালো ফলাফল পেতে একদিন পর পর সকাল ও সন্ধ্যায় ব্যবহার করা ভালো।

আরও পড়ুন

ভুল পন্থায় রূপচর্চায় বাড়তে পারে ব্রণ  

সংবেদনশীল ত্বকের জন্য পাঁচটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়  

ব্রণ কমাতে পারে রেটিনল