কেশ সাজানোর হাতিয়ার

  • নাইব মুহাম্মদ রিদোয়ান, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2015-03-10 17:15:01 BdST

পার্লারে গিয়ে চুল পরিপাটি করার সময় হচ্ছে না, তাহলে ঘরে রাখতে পারেন কেশ সাজানোর নানান যন্ত্র।

যুগের চাহিদার কারণেই বাজারে এসেছে বিভিন্ন ব্র্যান্ড্রের ও ধরনের ‘হেয়ার টুলস’। হেয়ার স্ট্রেইটনার, কার্লার, স্টাইলার কিংবা ড্রায়ারের মতো বিভিন্ন যন্ত্র দামে কম। আর এগুলো ব্যবহার করে পছন্দমতো চুলের স্টাইলে পরিবর্তন আনা যায়।

হেয়ার স্ট্রেইটনার

কোঁকড়া বা ঢেউ খেলানো চুল সোজা করতে স্ট্রেইটনারের জনপ্রিয়তা রয়েছে। বর্তমান বাজারে ফিলিপস, প্যানাসনিক, কেমি, প্রমোজার, নোভাসহ বিভিন্ন ব্র্যান্ডের হেয়ার স্ট্রেইটনার পাওয়া যাচ্ছে।

বাজার ঘুরে জানা গেছে ব্র্যান্ডের মধ্যে ‘ফিলিপস’ এবং ‘প্যানাসনিক’য়ের স্ট্রেইটনারের চাহিদা তুলনামূলক বেশি। রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি শপিং সেন্টারের ‘সোর্স ট্রেডিং’য়ের ফিলিপস এবং প্যানাসনিকে’য়ের শো-রুমে বেশ কিছু নতুন মডেলের হেয়ার স্ট্রেইটনার রয়েছে।

পণ্যের মানভেদে ‘ফিলিপস’ এবং ‘প্যানাসনিক’য়ের হেয়ার স্ট্রেইটনারগুলোর দাম পড়বে ৩ হাজার ৬শ’ থেকে ৯ হাজার টাকা পর্যন্ত। এর মধ্যে তুলনামূলক বেশি দামের স্ট্রেইটনারগুলো দীর্ঘস্থায়ী এবং বেশি তাপমাত্রা উৎপন্ন করতে পারে।

তবে বসুন্ধরা সিটি শপিং সেন্টারের কিছু কিছু দোকানে কম দামের মধ্যে ‘প্যানাসনিক’য়ের স্ট্রেইটনার পাওয়া যায়। দাম ১ হাজার ৮শ’ থেকে আড়াই হাজার টাকা।

এছাড়া অন্যান্য ব্র্যান্ডের মধ্যে ‘প্রমোজার’য়ের হেয়ার স্ট্রেইটনার রয়েছে ২ হাজার থেকে ২ হাজার ৫শ’ টাকা মধ্যে। ‘কেমি’ ১ হাজার থেকে ১ হাজার ৫শ’ টাকা, নোভা ১ হাজার ৮শ’ থেকে ২ হাজার ২শ’ টাকা এবং ‘ভি অ্যান্ড জি’র স্ট্রেইটনারগুলো পাওয়া যাবে ১ হাজার থেকে ১ হাজার ৬শ’ টাকায়।

হেয়ার কার্লার

সোজা চুলের পাশাপাশি ফ্যাশনে বাড়ছে কোঁকড়ানো বা ওয়েভি চুলের কদর। তাই যাদের চুল সোজা তারাও শখের বসে চুল কোঁকড়া করে থাকেন। বাজারে আছে বিভিন্ন ধরনের হেয়ার কার্লার।

‘ফিলিপস’য়ের হেয়ার কার্লারগুলো পাওয়া যাবে ৩ হাজার ৮শ’ থেকে ৪ হাজার টাকায়। তবে রাজধানীর মোতালেব প্লাজায় এই ব্র্যান্ডের হেয়ার কার্লার এবং স্ট্রেইটনার একই সঙ্গে পাওয়া যাবে সাড়ে ৪ হাজার টাকায়।

‘প্যানাসনিক’য়ের হেয়ার কার্লার পাওয়া যাবে ৩ হাজার ২শ’ থেকে ৪ হাজার টাকায়। ‘ব্যাবিলিস’ ব্র্যান্ডের হেয়ার কার্লার পাওয়া যাবে ৩ হাজার টাকায়।

এছাড়া কম দামের মধ্যে ‘নোভা’ ব্র্যান্ডের হেয়ার কার্লার পাওয়া যাবে ১ হাজার ৭শ’ থেকে ২ হাজার ২শ’ টাকায়।

হেয়ার ড্রায়ার

চট জলদি চুল শুকাতে হেয়ার ড্রায়ারের বিকল্প নেই। বসুন্ধরা সিটিতে ‘প্যানাসনিক’য়ের হেয়ার ড্রায়ারগুলোর দাম শুরু ১ হাজার ৫শ’ টাকা থেকে। এমনকি ১০ হাজার টাকারও হেয়ার ড্রায়ার পাওয়া যাবে ওই শো-রুমে।

‘ফিলিপস’য়ের হেয়ার ড্রায়ার পাওয়া যাবে ১ হাজার ৪শ’ থেকে ৬ হাজার ৯শ’ টাকার মধ্যে। তুলনামূলক বেশি দামের হেয়ার ড্রায়ারগুলোতে প্রয়োজন অনুযায়ী দ্রুত গরম এবং ঠাণ্ডা বাতাস উৎপন্ন করা যায়।

ফিলিপস এবং প্যানাসনিক’য়ের ড্রায়ারগুলোর যন্ত্রাংশের ওপর এক বছরের ওয়ারেন্টি এবং দুবছর পর্যন্ত বিক্রয়োত্তর সেবা দেওয়া হয়ে থাকে।

এছাড়া রাজধানীর ‘এশিয়ান স্কাই শপ’য়ের দোকানগুলোতে শিশুদের জন্য বিশেষ হেয়ার ড্রায়ার পাওয়া যায়। মান ভেদে ড্রায়ারগুলোর দাম ৬শ’ থেকে ২ হাজার ৫শ’ টাকা।

অনেকেই হেয়ার স্ট্রেইটনার, কার্লার কিংবা ড্রায়ারসহ অন্যান্য উপকরণগুলো একসঙ্গে প্যাকেজ আকারে কিনে নিতে চান।

তাদের আগ্রহের কথা মাথায় রেখে বাজারে পাওয়া যাচ্ছে ফিলিপস এবং প্যানাসনিক ব্র্যান্ডের হেয়ার স্ট্রেইটনার এবং কার্লারের বিশেষ প্যাকেজ। বসুন্ধরা সিটি থেকে এই ‘টু ইন ওয়ান’ প্যাকেজ কিনতে খরচ করতে হবে ৪ হাজার ৬শ’ টাকা।

রাজধানীর মোতালেব প্লাজায় ‘এশিয়ান স্কাই শপ’য়ের শো-রুমে পাওয়া যাবে ‘ফিলিপস’ ব্র্যান্ডের হেয়ার স্ট্রেইটনার, কার্লার এবং মাল্টিস্টাইলারসহ মোট চারটি উপকরণের ‘ফোর ইন ওয়ান’ প্যাকেজ। এক্ষেত্রে খরচ করতে হবে সাড়ে ৬ হাজার টাকা।

এ সম্পর্কে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে এনভায়রনমেন্ট সাইন্স’য়ের শিক্ষার্থী ইফফাত জাহান পছন্দের পণ্যটি কেনার বিষয়ে বলেন “বছরের প্রত্যেক মাসেই কোনো না কোনো অনুষ্ঠান থাকে। তাই চুলে ভিন্নতা আনার জন্য এই জিনিসগুলো কিনে নিলেই সুবিধা হয়।”

এছাড়াও ‘কেমি’ ব্র্যান্ডের চুল স্টাইল করার পাঁচটি যন্ত্র একসঙ্গে পাওয়া যাবে ৩ হাজার টাকায়।

চুলের অন্যান্য উপকরণের মধ্যে প্যানাসনিক, ফিলিপসসহ অন্যান্য ব্র্যান্ডের হেয়ার স্টাইলার পাওয়া যাবে ২ হাজার ৫শ’ থেকে সাড়ে ৪ হাজার টাকায়।

স্টাইলার সেটগুলো দিয়ে চুল আঁচড়ানো, স্ট্রেইট কিংবা কার্ল করা যাবে। তাছাড়া হেয়ার ট্রিমার কিনতে হলে গুনতে হবে ৫ হাজার থেকে সাড়ে ৬ হাজার টাকা।

ব্যবহারের নিয়ম

দীর্ঘ সময় ধরে হেয়ারটুলস ব্যবহার করতে হলে অবশ্যই কিছু ব্যাপারে সচেতন থাকতে হবে।

এ সম্পর্কে সোর্স অ্যান্ড ট্রেডিং’য়ের বিক্রয় প্রতিনিধি মো. হোসেন বলেন, “হেয়ারটুলসগুলো সাধারণত প্রচুর তাপমাত্রা উৎপন্ন করে থাকে। তাই ব্যবহারের সময় অবশ্যই সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে। পাতলা চুলের জন্য হেয়ার টুলসের তাপমাত্রা ১৬০ থেকে ২০০ এবং ঘন চুলের সাজের জন্য ২০০ থেকে ২৩০ ডিগ্রি রাখা উচিত।”

তিনি আরও বলেন “যন্ত্রের সুরক্ষার জন্য বিশেষ ধরনের তেল বা হিট প্রোটেক্টর স্প্রে ব্যবহার করতে হবে। তাছাড়া  ব্রাশ দিয়ে নিয়মিত যন্ত্র পরিষ্কার করতে হয়।”

কোথায় পাবেন

রাজধানীর বসুন্ধরা সিটি, মোতালেব প্লাজা, নিউ মার্কেট এবং এশিয়ান স্কাই শপের শোরুমগুলোসহ দেশের বিভিন্ন ইলেকট্রনিক্স এবং কসমেটিক্সয়ের দোকানে হেয়ার স্টাইলিং টুলসগুলো পাওয়া যাবে।

ছবি: ফুয়াদ তানভীর অমি।

মোবাইল ফোনের উপকরণ

স্যান্ডউইচ মেইকারের খোঁজ

মিক্সার গ্রাইন্ডার

চুলের প্রয়োজন অনুযায়ী ব্রাশ

ফ্যাশনে কোঁকড়া চুল

রঙিন করি চুল