পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

প্রত্যাবর্তনের বিমান ও বঙ্গবন্ধুর আলাপচারিতার স্মৃতিচারণ

  • মমতাজুল ফেরদৌস জোয়ার্দ্দার, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-01-09 20:53:19 BdST

bdnews24
কোলাজ ছবিতে উপরে বামে লন্ডনে পৌঁছানোর পর বঙ্গবন্ধুকে ক্লারিজ হোটেলে নেওয়া হচ্ছে, ঠিক পাশের ছবিতে বঙ্গবন্ধুকে অভ্যর্থনা জানাচ্ছেন ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড হিথ, নিচের বাম দিকে ভারতীয় কূটনীতিক ভেদ মারওয়া এবং ডানদিকে কূটনীতিক শশাঙ্কের সাথে বঙ্গবন্ধু।

১৯৭২ সালের ৮ জানুয়ারি হিথ্রো বিমানবন্দরে পৌঁছানোর পর থেকেই শেখ মুজিবকে রাষ্ট্রপতির প্রটোকল দেওয়া হয়। তার লন্ডন পৌঁছানোর খবর পেয়ে তৎকালীন বিরোধীদলীয় দলের নেতা হ্যারল্ড উইলসন দেখা করেন মুজিবের সাথে। সেখানে এসে তিনি প্রথম বঙ্গবন্ধুকে ‘মিস্টার প্রেসিডেন্ট’ বলে সম্বোধন করেছিলেন।

এর আগে উইলসন ১৯৬৪ সাল থেকে ১৯৭০ সাল পর্যন্ত ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। পরবর্তীতে তিনি আবারও ব্রিটেনের প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছিলেন এবং ১৯৭৪ থেকে ১৯৭৬ সাল পর্যন্ত ক্ষমতায় ছিলেন।

এদিন আরও একজন নেতা হোটেলে বঙ্গবন্ধুর সাথে হোটেলে দেখা করেন তিনি হলেন, তৎকালীন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ব্রিটিশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী আলেকজান্ডার ফ্রেডেরিক ডগলাস-হোম। তিনিও পরে প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হয়েছিলেন। বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধে তার অবদানও অনস্বীকার্য। তিনিও বাংলাদেশের স্বাধীনতা আন্দোলনের জোরালো সমর্থক ছিলেন।

এরপর বঙ্গবন্ধু ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিটে ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী এডওয়ার্ড হিথের সঙ্গে দেখা করেন। সেই সময় যুক্তরাজ্যের প্রধানমন্ত্রী সফরে ছিলেন। বঙ্গবন্ধু যাওয়ার খবরে তিনি সফর সংক্ষিপ্ত করে ফিরে যান। বঙ্গবন্ধুর গাড়িটা ১০ নম্বর ডাউনিং স্ট্রিটে পৌঁছালে এডওয়ার্ড হিথ নিজে গাড়ির দরজা খুলে দাঁড়িয়েছিলেন যতক্ষণ না বঙ্গবন্ধু গাড়ি থেকে বের হয়েছেন।

পরদিন শেখ মুজিব স্বাধীন বাংলাদেশের উদ্দেশ্য ওড়েন ব্রিটিশ রাজকীয় বিমান বহরের কমেট জেটে করে। বিমানে বঙ্গবন্ধুকে সঙ্গ দিয়েছিলেন  দুইজন ভারতীয় কূটনীতিবিদ। তারা হলেন- ভেদ মারওয়া ও শশাঙ্ক এস ব্যানার্জি। মিস্টার ব্যানার্জি বঙ্গবন্ধুর পূর্ব পরিচিত ছিলেন।

ভেদ মারওয়া বলেন, “বিস্ময়কর ব্যাপার ছিল। দীর্ঘদিন কারাবন্দি থাকা সত্ত্বেও শেখ মুজিব বেশ চাঙা ছিলেন। সবকিছুতেই তার মধ্যে প্রচণ্ড উৎসাহ কাজ করেছিল।”

বঙ্গবন্ধু মারওয়াকে তার পাশের আসনে বসিয়েছিলেন। যখন বুঝেছিলেন মারওয়া বাংলা জানেন, তাদের মধ্যে দ্রুত একটা বোঝাপড়া তৈরি হয়েছিল। তখন নাকি ‘শেখ মুজিবকে কথায় পেয়ে’ বসেছিল। তিনি কামাল হোসেন ও তার সঙ্গে দীর্ঘ সময় ধরে টানা কথা বলেছিলেন।

মারওয়া আরও বলেন, "ওই সময় শেখ মুজিব বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে বিরাজমান কয়েকটি সমস্যা চিহ্নিত করেছিলেন। ভারতের প্রতি তার বন্ধুভাবাপন্ন অনুভূতি ছিল। তিনি মূলত দুটি বিষয়ের প্রতি গুরুত্ব দিয়েছিলেন। প্রথমত, বাংলাদেশে জনসংখ্যার আধিক্য। শেখ মুজিব বলেছিলেন, এত মানুষ কোথায় যাবে? এখনো যেসব স্থানে জনসংখ্যার আধিক্য দেখা দেয়নি, কেবল সেসব স্থানই তাদের গন্তব্য হতে পারে। এক্ষেত্রে ভারত ও বাংলাদেশের উচিত পরষ্পরকে সহযোগিতা করা উচিত। স্বাভাবিকভাবেই ওই মুহূর্তে আমি এ ব্যাপারে নিশ্চুপ ছিলাম। আমাকে চুপচাপ থাকতে দেখে মুজিব নিজেই নিজের প্রশ্নের উত্তর দিলেন। তিনি বললেন, বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নে ভারতকে ব্যাপকভাবে সহায়তা করতে হবে।”

“একপর্যায়ে তিনি সদ্য স্বাধীন বাংলাদেশের পরিচয় কী হবে, তা নিয়ে কথা বলা শুরু করেন। আমার উদ্দেশে শেখ মুজিব বলছিলেন, ‘দেখো, আমরা প্রথমে বাঙালি। এটা বাংলাদেশিদের বহুস্তরবিশিষ্ট পরিচয়ের একটি। আমরা এ পরিচয় নিয়ে অত্যন্ত গর্বিত। এ পরিচয়কে ভিত্তি করেই স্বাধীনতার সব আন্দোলন–সংগ্রাম হয়েছে। দ্বিতীয়ত, আমরা মুসলিম। স্বীকার করতে হবে, তাঁর এ কথায় আমি কিছুটা বিস্মিত হয়েছিলাম। তৃতীয়ত, আঞ্চলিক পরিচয়।’ তিনি বলছিলেন, ‘এ অঞ্চলের সমস্যাগুলো খুব বেশি অভিন্ন। পরষ্পরের ঘনিষ্ঠ সহযোগিতা ছাড়া এসব সমস্যা সমাধানের অন্য কোনো উপায় নেই।’ আপনি কল্পনা করতে পারেন, একজন মানুষ কতটা আত্মবিশ্বাসী হলে দায়িত্বভার গ্রহণের আগেই এমন সব কথা বলতে পারেন! তার ব্যক্তিত্বের এই প্রখরতা ওই সময় আমার মধ্যে গভীর দাগ কেটেছিল।

শেখ মুজিবের কথায় মনে হচ্ছিল পুরো বাংলাদেশটাই তার হাতের মুঠোয়। যেন তিনিই ‘বাংলাদেশ’।"

বঙ্গবন্ধু কি দক্ষিণ এশিয়াকে ইউরোপিয়ান ইউনিয়নের আদলে ভেবেছিলেন? মারওয়ার স্মৃতিচারণে তাই-ই মনে হয়েছে। তিনি খুবই দূরদর্শী ছিলেন, জানতেন জনসংখ্যার আধিক্যের কারণে যে অঞ্চল ফাঁকা আছে সেখানেই মানুষ যাবে।

সেদিন বিমানে শশাঙ্ক ব্যানার্জিকেও বঙ্গবন্ধু তার পাশের আসনে বসিয়েছিলেন। সামনের টেবিলে বঙ্গবন্ধুর প্রিয় সুগন্ধময় এরিনমোর তামাক, আর সেই বিখ্যাত পাইপ। উৎফুল্ল বাঙালির নেতার তখন দেশে ফেরার বিলম্ব সহ্য হচ্ছিল না। শশাঙ্ক ব্যানার্জিকে তিনি আপ্লুত কণ্ঠে তিনি বলেন, “স্বাধীন বাংলাদেশ, আমার বাংলাদেশ।” তিনি ব্যানার্জিকে ‘ধন্যবাদ’ জানান দীর্ঘদিন তাকে সহযোগিতার জন্য। বলেন, “ব্যানার্জি, এবার একটি বিশেষ সহযোগিতা চাই।”

শশাঙ্ক বললেন, ‘আয়ত্তের মধ্যে হলে অবশ্যই চেষ্টা করব।’ আস্তে আস্তে বঙ্গবন্ধু বলেন, “দিল্লীতে ইন্দিরার সঙ্গে বৈঠকের আগেই তার কাছে একটি খবর পৌঁছানো দরকার। বাংলাদেশ থেকে ভারতীয় মিত্রবাহিনী সদস্যদের ৩১ মার্চ ১৯৭২ সালের মধ্যে ভারতে ফেরত পাঠানোর বিষয়টি চূড়ান্ত করতে হবে।” তিনি বলেন, ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার এ বিষয়ে কথা হয়েছে। ভারতীয় মিত্রবাহিনী চলে গেলে বাংলাদেশ ব্রিটিশ সরকারের স্বীকৃতি পেতে আর কোনো বাঁধা থাকবে না।

বিমানে বসেই বঙ্গবন্ধু জাতীয় সংগীত ঠিক করেছিলেন। রাষ্ট্রের গুরুত্বপূর্ণ অনেক কিছুই তিনি দেশে পৌঁছানোর আগেই ভেবে ফেলেছেন। এমন নিরলস নেতা পৃথিবীতে খুব কমই জন্মান। আমরা এখন যা ভাবি বঙ্গবন্ধু সেটা ৫০ বছরেরও আগে ভেবে ফেলেছেন। তিনি ছুটেছেন রকেটের গতিতে। আর আমরা প্রাতঃভ্রমণেই ক্লান্ত, চাই বিশ্রাম।

দিল্লীতে বিমান অবতরণের পর অভূতপূর্ব দৃশ্যের অবতারণা হয়। ভারতের তৎকালীন রাষ্ট্রপতি ভি ভি গিরি ও প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী নয়াদিল্লীতে বঙ্গবন্ধুকে অভ্যর্থনা জানান। এর আগে বা পরে ভারতীয় রাষ্ট্রপ্রধান এবং সরকারপ্রধান উভয়ে একত্রে উপস্থিত থেকে বিমানবন্দরে কোনো অতিথিকে অভ্যর্থনা জানিয়েছেন তা আমার জানা নেই। বিশ্বের ইতিহাসেও এ জাতীয় ঘটনা বিরল। শুধু তাই না, বিমানবন্দরে ইন্দিরা গান্ধী তার পুরো ক্যাবিনেট নিয়ে উপস্থিত ছিলেন সেই শীতের সকালে।

বঙ্গবন্ধু বিমান থেকে নামার পর এক আবেগঘন দৃশ্যের অবতারণা হয়েছিল। সেদিন যেন একটা পরিবারের মিলন হয়েছিল। বঙ্গবন্ধুর একজন সফরসঙ্গী বলেছেন, “যেদিকে তাকাই সবার চোখে জল।” চিফ অব প্রটোকল অফিসার ছিলেন ইন্ডিয়ান ন্যাশনাল আর্মির ক্যাপ্টেন মাহবুব আহমেদ খান।

সব দেখে তিনি ড. কামালকে বলেছিলেন, “এখানে প্রটোকল অফিসারের কোনো ভূমিকা আছে কি?” তারপর তিনি বলেছিলেন, “পাশের মাঠেই হাজার হাজার লোক সমবেত হয়েছে। আপনার লিডারকে যদি একটু বলেন, তিনি যেন মঞ্চে সমবেত হয়ে কিছু বলেন। ইন্দিরা গান্ধীও সঙ্গে থাকবেন। দ্বিতীয়ত হচ্ছে, আমরা ওনাকে রাষ্ট্রপতি ভবনে নিয়ে যাবো। এককাপ চা খেয়ে উনি ঢাকায় রওনা হবেন।”

বঙ্গবন্ধু মঞ্চে উঠে ইংরেজিতে বলতে শুরু করলে তাকে জনতার পক্ষ থেকে বাংলায় বক্তৃতা অনুরোধ করা হয়। তখন ইন্দিরা গান্ধীও বঙ্গবন্ধুকে বাংলায় বলতে অনুরোধ করেন। একজন নেতা কতটা ব্যক্তিত্বের অধিকারী হলে বিদেশের মাটিতে মানুষ তাকে তার নিজের মাতৃভাষায় কথা বলার অনুরোধ করা হয়। অথচ দিল্লীর মানুষের বাংলা বোঝার কথা না। তারপরও তারা ইংরেজিতে বক্তব্য না শুনে বাঙালির নেতার কাছ থেকে বাংলায় কিছু শুনতে চেয়েছেন। কী সম্মান তারা বঙ্গবন্ধুকে দেখিয়েছেন। আর বিশ্বের সবচেয়ে সুমিষ্ট ভাষা সর্ব কালের সর্ব শ্রেষ্ঠ বাঙালির মুখে শুনে ধন্য হয়েছেন। যিনি ছিলেন কথার জাদুকর, মানুষের হৃদয় জয় করার জাদুকর।