২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

শঙ্কা, উদ্বেগ, অস্বস্তির কাঁটা কাশ্মীরে

  • নিউজ ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-08-12 10:57:40 BdST

bdnews24

রাস্তার মোড়ে মোড়ে নিরাপত্তা বাহিনীর বিপুল সংখ্যক সদস্যের উপস্থিতির মধ্যেই ৭ দিন ধরে ভারতের অন্যান্য অংশ ও বহির্বিশ্বের সঙ্গে যোগাযোগবিচ্ছিন্ন ও অবরুদ্ধ কাশ্মীরের বাসিন্দারা উপত্যকায় ফের বিধিনিষেধ আরোপের প্রতিবাদে বিক্ষোভ দেখিয়েছে।

স্বায়ত্তশাসন, নিজস্ব সংবিধান-পতাকা ও পৃথক আইন বানানোর সুযোগসহ গত কয়েক দশক ধরে ভারতের সংবিধানে এ এলাকাকে যে বিশেষ মর্যাদা দেয়া ছিল গত সপ্তাহে তা তুলে নেয়ার পর থেকেই সেখানে থমথমে অবস্থা বিরাজ করছে।

তুমুল প্রতিবাদ, বিক্ষোভ ও সহিংসতা মোকাবেলায় সড়কে কয়েক মিটার পরপর পুলিশ ও আধাসামরিক বাহিনীর সশস্ত্র সদস্যদের সন্ত্রস্ত উপস্থিতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে; কিছু দূর পরপরই আছে কাঁটাতারের ব্যারিকেডও।

এর মধ্যেই অনেক এলাকায় বিক্ষোভ ও নিরাপত্তা বাহিনীর সদস্যদের দিকে পাথর ছোড়ার ঘটনা ঘটেছে বলে জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

ঈদের আগে শুক্র ও শনিবার নিরাপত্তার কড়াকড়ি খানিকটা শিথিল করে কর্তৃপক্ষ বেকারি, ফার্মেসি, ফলের দোকানসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের দোকান এবং এটিএম বুথ খুলতে দিলেও রোববার শ্রীনগরের অধিকাংশ এলাকায় ফের বিধিনিষেধ আরোপ করা হয়।

বিভিন্ন এলাকায় ঘুরে ঘুরে পুলিশ ভ্যানগুলোকে দোকান বন্ধ করে দ্রুত বাড়ি চলে যেতে নির্দেশ দিতে দেখা যায়।

শঙ্কা, উদ্বেগ ও অস্বস্তির আবহে সন্ধ্যার মধ্যেই শহরটির বেশিরভাগ রাস্তাই একেবারে শুনশান হয়ে পড়ে বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা।

এর মধ্যেই রোববার বিকালে শ্রীনগরের সোউরা এলাকার মসজিদে কয়েকশ বিক্ষোভকারী জড়ো হন। তারা ভারতবিরোধী স্লোগান দেয়ার পাশাপাশি কাশ্মীর থেকে সেনা প্রত্যাহার ও তাদের স্বায়ত্তশাসন ফিরিয়ে দেয়ার দাবি জানান।

বিক্ষোভকারীদের হাতে থাকা সবচেয়ে বড় ব্যানারে লেখা ছিল ‘অনুচ্ছেদ ৩৫-এ রক্ষা কর’। ভারতের সংবিধানের এ অনুচ্ছেদেই কাশ্মীরকে বিশেষ মর্যাদা দেয়ার বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়েছিল। নরেন্দ্র মোদীর সরকার গত সপ্তাহে যা বাতিল করে দেয়। 

ওই বিষয়টি ইঙ্গিত করেই একজনের হাতে থাকা ব্যানারে লেখা ছিল- ‘মোদী, কাশ্মীর আপনার বাবার সম্পত্তি নয়’।

মাথায় হরেক রংয়ের স্কার্ফ পরা অসংখ্য নারী ও কিশোরীকেও রোববারের বিক্ষোভে দেখা গেছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

“আমরা কি চাই? আজাদী। কখন চাই? এখনি,” ক্রুদ্ধ বিক্ষোভকারীদের মুখে শোনা গেছে এসব স্লোগান।

এর আগে গত শুক্রবার এ এলাকায় বিক্ষোভে দশ হাজারেরও বেশি লোক অংশ নিয়েছিল বলে বিবিসি ও অন্যান্য আন্তর্জাতিক গণমাধ্যম জানিয়েছে।

বিক্ষোভ দমাতে পুলিশকে সেদিন টিয়ার গ্যাস ছুড়তে হয়েছে। বিক্ষোভকারীদের দিকে পুলিশ গুলি ছুড়েছে বিভিন্ন গণমাধ্যম এ অভিযোগ করলেও কর্মকর্তারা তা অস্বীকার করেছেন।

রোববারের বিক্ষোভ নিয়ে ভারতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় তাৎক্ষণিক কোনো প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি। 

আনন্দবাজার বলছে, কাশ্মীর উপত্যকা এ দিনও কাটিয়েছে মোবাইল সংযোগ ছাড়া। ইন্টারনেটও নেই টানা ছ’দিন। সংবাদ মাধ্যমের উপরে অলিখিত নিষেধাজ্ঞা বহাল। দুই সাবেক মুখ্যমন্ত্রীকে কোথায় আটকে রাখা হয়েছে, খবর নেই। পাইকারি ও খুচরো বাজারে পণ্য সংকট। মিলছে না এমনকি ওষুধও।

উদ্বেগ, অস্বস্তির মধ্যেই ঈদের আগের দিনে শ্রীনগরের পশুর হাটে বেশ কিছু ভেড়ার দেখা মিললেও কেনার লোক নেই।

‘‘পকেটে একটা টাকাও নেই। ইদে ছেলেমেয়েদের নতুন জামাকাপড় কিনে দিতে হয়। কিন্তু আমার এখন চিন্তা— খাব কী,’’ বলেছেন হাবাকের বাসিন্দা আব্দুল গাফ্ফার।

ব্যাংক খুলেছে ১১টার পর। এক কর্মী জানালেন— মানুষ খেপে রয়েছে, অথচ সিন্দুক ফাঁকা! এটিএম-এ পাঠানোর টাকাও আসেনি।

কারফিউর কারণে পরিচ্ছন্ন কর্মীরা কাজে আসতে না পারায় শ্রীনগরের হাসপাতাল আর বাজারের পাশে পড়ে রয়েছে উপচানো ময়লা। পশুর হাটের অবস্থা সবচেয়ে খারাপ। কোরবানির পরে শহরের হাল আরও খারাপ হতে পারে- আশঙ্কা অনেকের।

এদিকে পাকিস্তান জম্মু ও কাশ্মীর নিয়ে ভারতের সিদ্ধান্তের নিন্দা জানিয়ে জাতিসংঘে একটি প্রস্তাব তোলারও চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে জানিয়েছে রয়টার্স।

তবে চীন ছাড়া অন্য কোনো দেশের সমর্থন না পাওয়ায় এই চেষ্টা সফল হওয়ার সম্ভাবনা কম, বলছেন পর্যবেক্ষকরা।