পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

কয়েক মাস পর প্রকাশ্যে মুম্বাইয়ের সাবেক পুলিশপ্রধান পরমবীর সিং

  • নিউজ ডেস্ক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-11-25 17:08:37 BdST

bdnews24

চাঁদাবাজির অভিযোগ ওঠার পর মহারাষ্ট্র রাজ্যের রাজধানী মুম্বাই শহর থেকে গায়েব হয়ে যাওয়া ভারতীয় পুলিশের এক শীর্ষ কর্মকর্তাকে কয়েক মাস পর প্রকাশ্যে দেখা গেছে।

মুম্বাইয়ের সাবেক পুলিশপ্রধান, ৫৯ বছর বয়সী পরমবীর সিং বৃহস্পতিবার স্থানীয় একটি থানায় হাজির হন বলে এক প্রতিবেদনে জানিয়েছে বিবিসি।

সুপ্রিম কোর্ট অনুমতি ছাড়া পরমবীরকে গ্রেপ্তার না করার আদেশ দেওয়ার দুই দিন পর তাকে প্রকাশ্যে দেখা গেল। সুপ্রিম কোর্ট পুলিশের এ কর্মকর্তাকে তার বিরুদ্ধে চলা তদন্তে সহায়তা করতেও নির্দেশ দিয়েছেন।

মুম্বাইয়ের এ পুলিশপ্রধানকে সর্বশেষ গত মে মাসে প্রকাশ্যে দেখা গিয়েছিল।

এরপর থেকে তিনি কোথায় ছিলেন তা জানা না গেলেও তার আইনজীবী সোমবার সর্বোচ্চ আদালতকে বলেছিল, পরমবীর ‘ভারতেই আছেন’ কিন্তু ‘মহারাষ্ট্র রাজ্যের পদক্ষেপ নিয়ে ভয় পাচ্ছেন’, সে কারণে লুকিয়ে রয়েছেন।

বুধবার বেশ কয়েকটি সংবাদমাধ্যম জানায়, পরমবীর চণ্ডিগড়ে আছেন এবং শিগগিরই মুম্বাইয়ে হাজির হচ্ছেন বলে তাদের জানিয়েছেন। চণ্ডিগড়ে তার পারিবারিক বাড়ি আছে।

এ পুলিশ কর্মকর্তার বিরুদ্ধে মুম্বাইয়ের হোটেল মালিক, বুকিজ ও রিয়েল এস্টেট এজেন্টদের করা অন্তত ৪টি চাঁদাবাজির মামলা আছে।

মহারাষ্ট্র সরকার এসব অভিযোগ তদন্তে একটি প্যানেল গঠন করলেও তাদের জিজ্ঞাসাবাদের ডাকে পরমবীর এখন পর্যন্ত হাজিরা দেননি।

উল্টো তার আইনজীবী অভিযোগগুলোর তদন্তকে চ্যালেঞ্জ করে সুপ্রিম কোর্টে আবেদন করেছেন।

পরমবীরের আইনজীবীর আবেদনে তদন্ত মুম্বাই পুলিশের কাছ থেকে নিয়ে কেন্দ্রীয় তদন্ত সংস্থার (সিবিআই) হাতে দেওয়ার অনুরোধ জানানো হয়েছে।

সুপ্রিম কোর্টের দুই সদস্যবিশিষ্ট বেঞ্চ ওই আবেদনের বিষয়ে কোনো সিদ্ধান্ত না দিয়ে পরমবীর ও তার সাবেক বস, মহারাষ্ট্রের সাবেক স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অনীল দেশমুখের মধ্যে দ্বন্দ্বের বিষয়টি ‘দিন দিন আরও কৌতুহলের’ হয়ে উঠছে বলে মন্তব্য করে।

এশিয়ার শীর্ষ ধনী মুকেশ আম্বানির বাড়ির বাইরে বিস্ফোরকভর্তি একটি গাড়ি পাওয়ার কয়েক সপ্তাহ পর পরমবীরকে মুম্বাই পুলিশের প্রধানের পদ থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়।

যে গাড়িতে বিস্ফোরক ছিল তার মালিক বলে যাকে সন্দেহ করা হচ্ছিল, তার লাশ উদ্ধারর পর ঘটনা নাটকীয় মোড় নেয়। এ ঘটনার সঙ্গে জড়িত সন্দেহে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দারা পরে মুম্বাই পুলিশের এক কর্মকর্তাকে গ্রেপ্তারও করেন।

তার কয়েকদিন পরেই পরমবীরকে পুলিশপ্রধান পদ থেকে সরিয়ে পুলিশের একটি সহযোগী বাহিনীর প্রধান পদে বসানো হয়।

দেশমুখ সেসময় বলেছিলেন, পরমবীরের অধীনে কাজ করা কর্মকর্তাদের ‘গুরুতর ভুলের’ কারণে তাকে বদলি করা হয়েছে।

নতুন পদে যোগ দিয়ে পরমবীর সরকারের কাছে লেখা এক চিঠিতে দেশমুখের বিরুদ্ধে চাঁদাবাজি ও দুর্নীতির অভিযোগ আনেন। অভিযোগ অস্বীকার করলেও দেশমুখ স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীর পদ থেকে ইস্তফা দিতে বাধ্য হন।

মে মাসে পরমবীর চিকিৎসা ছুটিতে যান, পরে আরও দুই দফা ওই ছুটি বাড়িয়ে নেন। এর পর থেকেই তিনি গায়েব হয়ে যান এবং পরিবারের সদস্যরাসহ কেউ তার খোঁজ দিতে পারছিল না।