২৫ মার্চ ২০১৯, ১১ চৈত্র ১৪২৫

কোনো শর্ত দিয়ে নির্বাচন হবে না: কাদের

  • জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2018-07-22 14:42:14 BdST

bdnews24

দশম সংসদ নির্বাচন বর্জন করা বিএনপি আগামী নির্বাচনে অংশ নেওয়ার বিষয়ে বেশ কিছু শর্ত দিলেও তা নাকচ করে দিয়েছে ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগ।

আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের সাফ জানিয়ে দিয়েছেন, কোনো শর্ত দিয়ে বাংলাদেশে নির্বাচন হবে না।

দুদিন আগে বিএনপির সমাবেশে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে প্রয়োজনে নির্বাচন প্রতিহত করার যে ঘোষণা এসেছে, তাকে ‘বেসুরো আওয়াজ’ হিসেবে বর্ণনা করে কাদের বলেছেন, “এর মধ্যে চক্রান্তের গন্ধ আছে, এর মধ্যে সহিংসতা, নাশকতার আশংকা আমরা দেখছি।”

রোববার সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে দেশের রাজনৈতিক পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে সেতুমন্ত্রী কাদেরের ওই মন্তব্য আসে।  

তিনি বলেন, “কোনো শর্তযুক্ত নির্বাচন বাংলাদেশে হবে না। সংবিধানের বিধান অনুযায়ী ইলেকশন হবে, শর্তের কোনো প্রয়োজন নেই।”

দুর্নীতি মামলায় দণ্ডিত খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে শুক্রবার ঢাকার নয়া পল্টনে বিএনপির এক সমাবেশে নির্বাচনে জন্য বেশ কিছু শর্ত তুলে ধরেন দলটির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

তিনি বলেন, “বাংলাদেশে নির্বাচন করতে হলে অবশ্যই এক নম্বর পূর্বশর্ত হচ্ছে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিতে হবে। তাকে কারাগারে রেখে কোনো নির্বাচন হবে না এবং এদেশের মানুষ তা হতে দেবে না।”

এছাড়া ভোটের আগে বর্তমান সরকারের পদত্যাগ, সংসদ ভেঙে দেওয়া, নির্বাচন কমিশন পুনর্গঠন এবং নির্বাচনের সময়ে সেনাবাহিনী মোতায়েনের দাবিও তিনি তুলে ধরেন।

ফখরুলের বক্তব্যের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, “এতদিন শুনেছিলাম যে কোনো পরিস্থিতিতে তারা নির্বাচনে অংশ নেবেন। এখন তারা আবার নতুন করে সুর তুলেছেন যে বেগম খালেদা জিয়াকে ছাড়া তারা নির্বাচনে অংশগ্রহণ করবেন না। তার চেয়েও এককাঠি এগিয়ে গিয়ে বলেছেন নির্বাচন তারা প্রতিহত করবেন।”

নির্বাচন নিয়ে বিএনপি কোনো চক্রান্ত করলে দেশের ‘জনগণকে সঙ্গে নিয়ে’ তা প্রতিহত করার ঘোষণা দেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

তিনি বলেন, “আমরা অনেক কনফিডেন্ট। ২০১৪ সালে যা হয়েছে সেটার পুনরাবৃত্তি বাংলাদেশে ঘটবে না। সেটা ঘটতে দেওয়া হবে না।”

আন্দোলনে ব্যর্থ হয়ে বিএনপি নানা ধরনের ‘চক্রান্ত ও ষড়যন্ত্র’ করছে মন্তব্য করে কাদের বলেন, “ইস্যু খুঁজেত গিয়ে কখনো কোটা আন্দোলন, কখনো লর্ড কারলাইলকে ভারতে এনে দুই দেশের সম্পর্কে অবনতি ঘটানোর চেষ্টা- এরকম অনেক কিছু করা হয়েছে। এখনো চক্রান্তমূলক পরিকল্পনার ছক তৈরি করছে অনেকে বিদেশ থেকে…।”

বিএনপিকে নির্বাচনে আনতে সংলাপের কোনো উদ্যোগ নেওয়া হবে কিনা- এ প্রশ্নে কাদের বলেন, “বিএনপি নির্বাচনে আসবে কি আসবে না সেটা বিএনপির ব্যাপার। আমি বারবার এই একটা কথা বলি, ইলেকশন বিএনপির জন্য দয়ার দান নয়, সরকারি দলের অনুদান নয়, এটা বিএনপির অধিকার। সরকার কেন অনুনয় বিনয় করে টেনে আনতে চাইবে? আপনি আসবেন না নির্বাচন কি থেমে থাকবে? গণতন্ত্র কি থেকে থাকবে?”

নির্বাচনে আসতে বিএনপির সামনে যেহেতু ‘কোনো’ বাধা নেই, সেহেতু নির্বাচন নিয়ে তাদের সঙ্গে সংলাপেরও কোনো ‘প্রয়োজন নেই’ বলে মন্তব্য করেন ক্ষমতাসীন দলের এই নেতা।

“সংলাপ তো হয়েছে, ইলেকশন কমিশন সংলাপ করেছে। বিএনপির সাথেও সংলাপ করেছে, এখানে আমাদের কোনো বিষয় নেই, ইলেকশন কমিশন সংলাপ করবে কিনা সেটা তারা ঠিক করবে। দেশে এমন কোনো পরিস্থিতি নেই যে সেটার জন্য সংলাপ করতে হবে।”

আসন্ন তিন সিটি করপোরেশন নির্বাচন শান্তিপূর্ণ ও গ্রহণযোগ্য করতে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে জানিয়ে কাদের বলেন, “আমাদের নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দিয়েছি যাতে নির্বাচন কমিশনের আচারণবিধি কেউ লঙ্ঘন না করে, শান্তিপূর্ণ ও গ্রহণযোগ্য নির্বাচন চাই। সরকারিভাবে প্রধানমন্ত্রী প্রশাসনকে বার্তা পাঠিয়েছেন, নির্বাচনে হক্ষক্ষেপের কোনো অভিযোগ যাতে না আসে।”