১৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯, ৬ ফাল্গুন ১৪২৫

সোহেল হত্যার বিচার দাবিতে ছাত্রলীগের সাবেক নেতাদের স্মারকলিপি

  • নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-01-17 18:49:52 BdST

bdnews24

চট্টগ্রামে আওয়ামী লীগের সাবেক নেতা মহিউদ্দিন সোহেলকে পরিকল্পিতভাবে হত্যা করা হয়েছে দাবি করে হত্যাকারীদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবিতে স্বরাষ্ট্র ও আইনমন্ত্রী এবং পুলিশের আইজিকে স্মারকলিপি দিয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক কয়েকজন নেতা।

বৃহস্পতিবার দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে শতাধিক সাবেক ছাত্রলীগ নেতাকর্মী মানববন্ধন করেন। পরে একটি প্রতিনিধি দল স্মারকলিপি দিতে যায়।

মানববন্ধনে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ইকবাল মাহমুদ বাবলু বলেন, ছাত্রলীগ বিভিন্ন সংগ্রাম ও ত্যাগ-তিতিক্ষার মাধ্যমে আজকের এই অবস্থানে উন্নীত হয়েছে। ছাত্রলীগের হাজার হাজার নেতাকর্মীর রক্ত, শ্রম, ঘাম ও রাজপথে সাহসী প্রতিবাদ জড়িত রয়েছে।

“তার মধ্যেই বাংলাদেশ ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক উপ-শিক্ষা ও পাঠচক্র সম্পাদক এবং চট্টগ্রাম সরকারি কমার্স কলেজ ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন সোহেলের মতো নেতৃত্বের অবদান রয়েছে। গত ৭ জানুয়ারি আমাদের রাজনৈতিক সহকর্মী মহিউদ্দিন সোহেলকে চট্টগ্রামের পাহারতলীতে তার ব্যবসায়িক ও রাজনৈতিক অফিসের সামনে নির্মমভাবে হত্যা করা হয়।”

তিনি বলেন, “ছাত্রলীগ কেন্দ্রীয় কমিটির সাবেক উপ-শিক্ষা ও পাঠচক্র সম্পাদক এবং বাংলাদেশ ছাত্রলীগ চট্টগ্রাম সরকারী কমার্স কলেজের সাধারণ সম্পাদক মহিউদ্দিন সোহেলের নিশৃংস হত্যাকারী সাবের সওদাগর ও তার সহযোগীদের গ্রেপ্তার ও দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবি করছি।”

মানববন্ধনে ছাত্রলীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদক শাহিনুর রহমান টুটুল, সাবেক সহ সভাপতি সুজাদুর রহমান, রফিকুল আলম গাফ্ফারী রাসেল,আমিনুল এহসান বাবু, মেহেরুল হাসান সোহেল, সৈয়দ আলাওল ইসলাম সৈকত, সৈয়দ সাজ্জাদ হোসেন, জাফরুল শাহরিয়ার পলাশ, সোহান খান, সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন ভূঁইয়া, রিপন পোদ্দার, আ হ ম তারেক উদ্দিন, সাবেক আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক সোহেল রানা মিঠু, স্বাস্থ সম্পাদক ডা. হেলাল উদ্দিন, সাবেক প্রচার সম্পাদক আরিফুল ইসলাম উজ্বল, উপ গণশিক্ষা সম্পাদক মফিজুল ইসলাম ঢালী, সহ সম্পাদক কামরুল হাসান মুরাদ, সদস্য মেহেদী হাসান, নুরুর রহমান মুকুল, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্রলীগের সাবেক সহ সভাপতি মোক্তাদিরুল ইসলাম মিল্টন, মেহেদী হাসান, গোলাম কিবরিয়া রাসেল উপস্থিত ছিলেন।

মানববন্ধন শেষে ইকবাল মাহমুদ বাবলু, শাহিনুর রহমান, সুজাদুর রহমান, সোহেল রানা মিঠু ও ডা. হেলাল উদ্দিন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী, আইনমন্ত্রী ও পুলিশ প্রধান বরাবার স্মারক লিপি দেন।

গত ৭ জানুয়ারি (সোমবার) সকালে পাহাড়তলী রেলওয়ে বাজারের ব্যবসায়ীরা ‘চাঁদাবাজি’তে অতিষ্ঠ হয়ে ‘গণপিটুনি’ দিয়ে মহিউদ্দিন সোহেলকে মেরে ফেলে বলে পুলিশ ও ব্যবসায়ীরা জানিয়েছিল।

পরদিন মঙ্গলবার সংবাদ সম্মেলন করে মহিউদ্দিন সোহেলের পরিবার দাবি করে, এটা পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ডে।

এরপর সোহেলের ভাই শাকিরুল ইসলাম শিশির বাদী হয়ে হত্যা, অগ্নিসংযোগ ও লুটপাটের অভিযোগে ২৭ জনের নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরও দেড়শ জনকে আসামি করে থানায় মামলা করেন।

ওই মামলায় স্থানীয় ওয়ার্ড কাউন্সিলর সাবের আহম্মেদ ও জাতীয় পার্টির নেতা ওসমান খানকে প্রধান আসামি করা হয়।

সোহেল হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় ওসমান খানসহ এ পর্যন্ত মোট সাতজনকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ।