২৩ আগস্ট ২০১৯, ৮ ভাদ্র ১৪২৬

ছাত্রদলের কাউন্সিল পিছিয়ে ১৪ সেপ্টেম্বর

  • জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক,  বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-08-13 15:47:40 BdST

bdnews24
প্রর্থী হওয়ার ক্ষেত্রে বয়সসীমা উঠিয়ে দেওয়ার দাবিতে ছাত্রদল নেতা-কর্মীদের একটি অংশের বিক্ষোভ, ফাইল ছবি

বিএনপির সহযোগী সংগঠন জাতীয়তাবাদী ছাত্রদলের নেতৃত্ব নির্বাচনের সময় এক মাস পিছি্য়ে কাউন্সিলের নতুন তারিখ ঘোষণা করেছে ‘নির্বাচন পরিচালনা কমিটি’।

নতুন ঘোষণা অনুযায়ী, আগামী ১৪ সেপ্টেম্বর সকাল ১০টা থেকে বেলা ২টা পর্যন্ত ছাত্রদলেরর সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে ভোটগ্রহণ হবে।

ছাত্র্রদলের ষষ্ঠ কেন্দ্রীয় কাউন্সিলের নির্বাচন পরিচালনা কমিটির আহ্বায়ক খায়রুল কবির খোকনের স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মঙ্গলবার এ কথা জানানো হয়।

নির্বাচন পরিচালনা কমিটি এর আগে নতুন নেতৃত্ব বেছে নিতে ১৫ জুলাই ভোটের তারিখ ঠিক করেছিল। কিন্তু বয়সসীমা নিয়ে সংগঠনের একটি অংশের আন্দোলনে তা পিছিয়ে যায়।

নতুন সূচিতে মনোনয়নপত্র বিতরণ হবে ১৭ ও ১৮ অগাস্ট। জমা দেওয়া যাবে ১৯ ও ২০ অগাস্ট। প্রার্থিতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৩১ আগস্ট।

২২ থেকে ২৬ অগাস্ট যাচাই বাছাই শেষে ২ সেপ্টেম্বর চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকা প্র্রকাশ করা হবে। এরপর ১২ সেপ্টেম্বর মধ্যরাত পর্যন্ত প্রার্থীরা ভোটের জন্য প্রচার চালাতে পারবেন।

এই নির্বাচন সুষ্ঠভাবে পরিচালনার জন্য সা্বেক ছাত্রদল নেতা খায়রুল কবির খোকনের নেতৃত্বে সাত সদস্যের নির্বাচন পরিচালনা কমিটি, ফজলুল হক মিলনের নেতৃত্বে ৫ সদস্যের বাছাই কমিটি এবং শামসুজ্জামান দুদুর নেতৃত্বে তিন সদস্যের আপিল কমিটি গঠন করেছে বিএনপি।  

২০০০ সালের আগে এসএসসি পরীক্ষা দিয়েছেন- এমন কেউ ছাত্রদলের কাউন্সিলে প্রার্থী হতে পারবেন না। এই বয়সসীমা উঠিয়ে দেওয়ার দাবিতে গত ১০ জুলাই থেকে ছাত্রদল নেতা-কর্মীদের একটি অংশ আন্দোলন চালিয়ে আসছিল। পরে তাদের ১২ নেতাকে ‘সংগঠনের শৃঙ্খলাবিরোধী কর্মকাণ্ডের’ অভিযোগ বহিষ্কার করা হয়।

গত ৩ জুন বিএনপি এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে ছাত্রদলের মেয়াদোত্তীর্ণ কমিটি ভেঙে দেয়। সেই সেঙ্গ ৪৫ দিনের মধ্যে কাউন্সিল করে প্রত্যক্ষ ভোটে সভাপতি ও সাধারণ সম্পা্দক নির্বাচিত করার সিদ্ধান্ত হয়।

ছাত্রদলের সর্বশেষ কমিটি  হয়েছিল ২০১৪ সালের ১৪ অক্টোবর। ওই কমিটিতে সভাপতি হিসেবে রাজীব আহসান ও সাধারণ সম্পাদক হিসেবে আকরামুল হাসানকে নির্বাচিত করা হয়।

রাজীব-আকরামের নেতৃত্বে ১৫৩ সদস্যের আংশিক কমিটি গঠন করার  দীর্ঘদিন পরে ওই কমিটি পূর্ণাঙ্গ  হয়; সেখানে  ৭৩৬ জনকে পদ দেওয়া হয়।