২০ নভেম্বর ২০১৯, ৫ অগ্রহায়ণ ১৪২৬

দেশে এখন ‘সম্রাটের’ আর অভাব নাই: আউয়াল মিন্টু

  • জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-10-15 18:15:34 BdST

bdnews24

ক্ষমতাসীনদের বিরুদ্ধে দেশের সব ধরনের প্রতিষ্ঠান নিয়ন্ত্রণে নেওয়ার অভিযোগ করে বিএনপি নেতা আব্দুল আউয়াল মিন্টু বলেছেন, প্রতিটি প্রতিষ্ঠানে এক একজন ‘সম্রাট’ জন্ম দিয়েছেন তারা।

বুয়েটছাত্র আবরার ফাহাদের স্মরণে মঙ্গলবার জাতীয় প্রেস ক্লাবে এক স্মরণসভায় বক্তব্যে একথা বলেন ব্যবসায়ী মিন্টু, গোপনে ‘অফশোর’ কোম্পানির মাধ্যমে ‘করস্বর্গ’ হিসেবে পরিচিত দেশ ও অঞ্চলে বিনিয়োগের জন্য যার নাম এসেছিল প্যারাডাইস পেপারসে।  

প্যারাডাইস পেপার্সে আব্দুল আউয়াল মিন্টুর নাম  

ঢাকায় ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটসহ যুবলীগ নেতাদের নাম আসার দিকে ইঙ্গিত করে আব্দুল আউয়াল মিন্টু বলেন, “ভোটারবিহীন এই সরকার দেশের প্রতিটি সামাজিক প্রতিষ্ঠান, প্রতিটি সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান এবং প্রতিটি অর্থনৈতিক প্রতিষ্ঠান নিজেদের করায়ত্ত্ব করে প্রত্যেক সেক্টরে নতুন নতুন সম্রাট জন্ম দিয়েছে। যেমন ক্যাসিনো সম্রাট, বিদ্যুৎ সম্রাট, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্রট, সম্রাটের ভাই বাংলাদেশে এখন আর অভাব নাই।

ঢাকায় ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে গ্রেপ্তার যুবলীগ নেতা ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটকে মঙ্গলবার ১০ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত।

ঢাকায় ক্যাসিনো চালানোর অভিযোগে গ্রেপ্তার যুবলীগ নেতা ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটকে মঙ্গলবার ১০ দিনের রিমান্ডে পাঠিয়েছে আদালত।

“একটা ভোটারবিহীন বড় সম্রাট, তার অধীনে এই ছোট ছোট রাজ্য গড়ে উঠায় অনেক সম্রাটের জন্ম দিয়েছে। এই সম্রাটদের অন্যায়, অবিচার, নির্যাতন, মনুষ্যত্ববিহীন চিন্তা-ধারা ছাড়া আর কিছুই নাই।”

সরকারের বিরুদ্ধে সব ধরনের অধিকার হরণের অভিযোগ করে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান মিন্টু বলেন, “আমরা এখন ভোটারবিহীন সরকারের অধীনে একটা দাসত্বমূলক সমাজে বাস করছি, এই দাসত্বমূলক সমাজে আমাদের দেশবাসীর কোনো রকমের অধিকার ও স্বাধীনতা সংরক্ষিত নাই। সেটা মৌলিক অধিকার বলেন, সাংবিধানিক অধিকার বলেন কোনো ধরনের আমাদের স্বাধীনতা বা অধিকার এখন আর নাই।”

সরকারের সঙ্গে আপসরক্ষার মাধ্যমে খালেদা জিয়ার কারামুক্তির বিপক্ষে আব্দুল আউয়াল মিন্টু।

তিনি বলেন, “কিছু কিছু লোক আছে বলেন, আরে ভাই সমঝোতা করেন, দরকার হলে বাইর করেন নেত্রীকে। এই সমঝোতাপন্থিরা কিন্তু বড় শত্রু সমাজের। একটা ডাকাত, চোর- ওদের সাথে কি সমঝোতা করবেন? তাহলে ডাকাতকে আরও ডাকাতি করতে সহায়তা করা।

“আমি বলতে চাই, কোনো সমঝোতার দরকার নাই। আমাদের নিজস্ব একটি আদর্শ আছে, যে আদর্শ দেশের স্বাধীনতা রক্ষা করা, যে আদর্শ দেশের স্বার্থ রক্ষা করা, সেই আদর্শ দেশকে রক্ষা করা, দেশের উন্নয়ন সাধন করা। শুধু চোরদের উন্নয়ন না, জনগণের কল্যাণ সাধন করা। অর্থাৎ আমরা কি সমঝোতা করব ভাই? আমার মনে হয়, অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য ভবিষ্যতে আমাদের ফাইট করতে হবে।”

এই অবস্থা থেকে উত্তরণের জন্য  ‘রাস্তায় আন্দোলন’ ছাড়া কোনো বিকল্প নাই বলেও মন্তব্য করেন মিন্টু।