পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

পদত্যাগে হবে না, মুরাদকে গ্রেপ্তার করতে হবে: রিজভী

  • জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-12-07 12:38:55 BdST

bdnews24

শুধু প্রতিমন্ত্রীর পদ থেকে সরানো নয়, মুরাদ হাসানকে গ্রেপ্তার করতে হবে, এই  দাবি তুলেছেন বিএনপি নেতা রুহুল কবির রিজভী।

মুরাদের প্রতিমন্ত্রিত্ব হারানোর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়ার পরদিন মঙ্গলবার সকালে এক সংবাদ ব্রিফিয়ে এই দাবি জানান তিনি।

বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব বলেন, “শুধু পদত্যাগ নয়, তাকে (মুরাদ হাসান) গ্রেপ্তার করতে হবে, তার বিচার করতে হবে।”

বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার নাতনিকে নিয়ে বর্ণ ও নারী বিদ্বেষী বক্তব্যের পর এক চিত্র নায়িকার সঙ্গে অশালীন ফোনালাপের অডিও সোশ্যাল মিডিয়াতে ছড়িয়ে পড়লে সোমবার আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের জানান, মুরাদ হাসানকে মঙ্গলবারের মধ্যে পদত্যাগ করতে বলেছেন প্রধানমন্ত্রী।

এ বিষয়ে বিএনপির প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে রিজভী বলেন, “উনি (প্রধানমন্ত্রী) নির্দেশে দিয়েছেন, আমরা দেখি সে পদত্যাগ করছেন কি না। এখন এর বেশি কিছু বলতে চাই না।”

মুরাদ হাসান। ফাইল ছবি

মুরাদ হাসান। ফাইল ছবি

তিনি বলেন, “আমি মনে করি, এই ধরনের ব্যক্তির রাজনীতি করার অযোগ্য। সে যে কুরুচিপূর্ণ অশ্রাব্য কথা বলেছেন সে রাজনীতি করার অযোগ্য। তাকে দলের সকল পর্যায়ের তার যে পদ বা অবস্থান তা থেকে তাকে সরিয়ে দিতে হবে। শুধু মন্ত্রিপরিষদ থেকে নয়।”

ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজের ছাত্র থাকাকালে মুরাদ বিএনপির ছাত্র সংগঠন ছাত্রদলের কমিটিতে ছিলেন; পরে তিনি ছাত্রলীগে যোগ দেন।

২০০৯ সালে তিনি প্রথম সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন জামালপুরের সরিষাবাড়ি থেকে। ২০১৮ সালে আবার সংসদ সদস্য হওয়ার পর তিনি প্রথমে স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী এবং পরে তথ্য প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পান। মুরাদ জামালপুর জেলা আওয়ামী লীগের কমিটিতেও রয়েছেন।

মুরাদ ছাত্রদল থেকে এসেছিলেন ছাত্রলীগে, জানালেন সাবেক ছাত্রনেতারা

‘মুরাদের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে কেন মামলা হচ্ছে না’  

  অডিও কেলেঙ্কারি: পদ গেল তথ্য প্রতিমন্ত্রী মুরাদ হাসানের

প্রতিমন্ত্রী মুরাদকে নিয়ে ফখরুলের সঙ্গে তর্কে যুবদল নেতা  

রিজভী বলেন, “সে যে অন্যায় কথা বলেছেন, বাংলাদেশের প্রচলিত আইনে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা যায়। তার বিচার করতে হবে, তার শাস্তি দিতে হবে, তাকে গ্রেপ্তার করতে হবে।”

নয়া পল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এই সংবাদ ব্রিফিংয়ের সময় রিজভীর সঙ্গে ছিলেন

দলের সাংগঠনিক সম্পাদক বিলকিস জাহান শিরিন, শামা ওবায়েদ, কেন্দ্রীয় নেতা মীর সরফত আলী সপু, আসাদুল করীম শাহিন, মাশুকুর রহমান মাশুক, নিপুণ রায় চৌধুরী, মহিলা দলের সুলতানা আহমেদ, ছাত্রদলের আবদুস সাত্তার পাটোয়ারী।