২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

কোন পুরস্কারই বিতর্কের উর্ধ্বে থাকে না: হাবীবুল্লাহ সিরাজী

  • নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-06-14 17:56:31 BdST

bdnews24
কথা বলছেন হাবীবুল্লাহ সিরাজী

কোন পুরস্কারই বিতর্কের উর্ধ্বে থাকে না বলে মন্তব্য করেছেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক হাবীবুল্লাহ সিরাজী।

‘২৮তম নিউ ইয়র্ক বইমেলা’ উপলক্ষে স্থানীয় সময় বৃহস্পতিবার সন্ধ্যায় যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্কে জ্যাকসন হাইটসে পালকি পার্টি সেন্টারে আয়োজক সংগঠন মুক্তধারা ফাউন্ডেশনের সংবাদ সম্মেলনে একথা বলেন তিনি।

সম্মেলনে বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম ও বাংলাদেশ প্রতিদিনের উত্তর আমেরিকা সংস্করণের নির্বাহী সম্পাদক লাবলু আনসার প্রশ্নোত্তর পর্বে জানান, প্রবাসে বসবাস করে বাংলা ভাষা, সাহিত্য ও সংস্কৃতিতে অবদানের জন্য শুধু প্রবাসী লেখকদের জন্য চালু রয়েছে ‘সৈয়দ ওয়ালিউল্লাহ সাহিত্য পুরস্কার’। ৫০ হাজার টাকাসহ এ পুরস্কার প্রতি বছরই দেওয়া হলেও এখন পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্র প্রবাসী কোনো লেখক তা পাননি।

কথা বলছেন সেলিনা হোসেন

কথা বলছেন সেলিনা হোসেন

তার জবাবে হাবীবুল্লাহ সিরাজী বলেন, “কোন পুরস্কারই বিতর্কের উর্ধ্বে থাকে না। ২০১১ সালে লন্ডনে বাংলা একাডেমির বইমেলা থেকে এ পুরস্কার প্রবর্তিত হলেও এটি কারা পাবেন, কী যোগ্যতার বলে পাবেন তার কোন সুস্পষ্ট নীতিমালা ছিল না। গত ডিসেম্বরে দায়িত্ব গ্রহণের পর আমি এমন কোন প্রক্রিয়া অবলম্বন করিনি যা বিতর্কের অবতারণা করতে পারে। শুধু তাই নয়, এই পুরস্কারেরও নীতিমালা তৈরি করেছি।”

তিনি আরও বলেন, “বাংলা একাডেমির আরও অনেক পুরস্কার রয়েছে। সেগুলো নিয়েও মাঝেমধ্যেই প্রশ্নের অবতারণা হয়।”

এসময় কথাসাহিত্যিক সেলিনা হোসেন বলেন, “দীর্ঘ ৩৪ বছর চাকরি করেছি বাংলা একাডেমিতে। আমি কখনোই বাংলা ভাষার লেখক-সাহিত্যিকদের মধ্যে বিভাজনে বিশ্বাসী ছিলাম না, এখনও নই। তাই বাংলা একাডেমির মূলধারার পুরস্কারের সাথেই প্রবাসের লেখকদেরকেও যুক্ত করার পক্ষে আমি। বলার অপেক্ষা রাখে না যে, সৈয়দ ওয়ালিউল্লাহ সাহিত্য পুরস্কারের সঙ্গে নগদ ৫০ হাজার টাকা করে দেওয়া হয়। অথচ বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কারের সঙ্গে দেওয়া হয় নগদ দুলাখ টাকা করে। এভাবেই প্রবাসের লেখকদেরকে আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করা হচ্ছে বা বৈষম্য প্রদর্শন করা হচ্ছে। এটা উচিত নয়।”

কথা বলছেন ফরিদুর রেজা সাগর

কথা বলছেন ফরিদুর রেজা সাগর

কবি হাবীবুল্লাহ সিরাজী আরেক প্রশ্নের জবাবে বলেন, “নিউ ইয়র্কসহ বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশি অধ্যুষিত শহরগুলোতে বাংলা একাডেমির লাইব্রেরি অথবা সেলস সেন্টার খোলার পরিকল্পনা রয়েছে। এব্যাপারে প্রবাসীদের সহযোগিতা কাম্য।”

সংবাদ সম্মেলনে মুক্তধারা ফাউন্ডেশনের চেয়ারপারসন জিয়াউদ্দিন আহমেদ ও বইমেলার আহ্বায়ক নজরুল ইসলাম চারদিনব্যাপী মেলার সামগ্রিক প্রস্তুতি উপস্থাপন করেন।

মেলা কমিটির অন্যতম সংগঠক লেখক ও সাংবাদিক হাসান ফেরদৌসের সঞ্চালনায় এতে আরও বক্তব্য দেন ‘চ্যানেল আই’ এর ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরিদুর রেজা সাগর, সাহিত্যিক আনিসুল হক ও আবুল হাসনাত, প্রকাশক মিসবাউজ্জামান, বইমেলার সাবেক আহ্বায়ক ফেরদৌস সাজেদীন এবং বইমেলার প্রতিষ্ঠাতা ও মুক্তধারা ফাউন্ডেশনের প্রধান কার্যনির্বাহী বিশ্বজিৎ সাহা।

প্রবাস পাতায় আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাস জীবনে আপনার ভ্রমণ,আড্ডা,আনন্দ বেদনার গল্প,ছোট ছোট অনুভূতি,দেশের স্মৃতিচারণ,রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক খবর আমাদের দিতে পারেন। লেখা পাঠানোর ঠিকানা probash@bdnews24.com। সাথে ছবি দিতে ভুলবেন না যেন!