২২ জুলাই ২০১৯, ৭ শ্রাবণ ১৪২৬

মধ্যপ্রাচ্যের চিঠি: ওমানের বাঙালি রেস্তোরাঁ

  • মো. রায়হান হোসেন, ওমানের মাসকট থেকে, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-06-15 14:05:41 BdST

bdnews24

ডরমিটরিতে ফিরে গোসল সেরে ক্লান্ত শরীরে নরম বিছানায় গা লাগানোর সঙ্গে সঙ্গে ঘুম চলে এলো। কলিং বেলের শব্দে ঘুম ভেঙ্গে দরজা খুলে রবি ড্রাইভারকে দেখে কিছুটা অবাক হয়েছি, মনে মনে ভাবছি কী ব্যাপার হঠাৎ সে কেনো এলো!

মোবাইল ঘড়িতে রাত আটটা বাজে। কিছু বুঝে উঠার আগে রবি আমাকে বললো, চলেন আপনাকে বাঙালি রেস্তোরাঁয় নিয়ে যাবো রাতের খাবারের জন্য। এই লোভনীয় প্রস্তাব শুনে আমি এক কথায় রাজি হয়ে গেলাম, ঘুম ভাঙানোর জন্য যতটা বিরক্ত হয়েছিলাম এখন তার থেকে কয়েক গুণ বেশি ভাল লাগছে। ফ্রেশ হয়ে রবির সঙ্গে বের হয়ে গেলাম।

রাতের মাসকট শহর। এত সুন্দর শহরের সৌন্দর্যে প্রেমে না পড়ে উপায় নেই। দুই- একবারের জন্য হলেও মনে হচ্ছিল আমি এখনো ঘুমের মধ্যে সুন্দর কোন স্বপ্ন দেখছি নাতো! আপনার কল্পনায় আপনি একটা শহরকে যেভাবে দেখতে ভালবাসবেন এই শহর যেন তেমনভাবেই সাজানো। প্রশস্ত রাস্তার দুই পাশে সারি সারি নয়নাভিরাম ল্যাম্পপোস্টের আলোয় মন হারিয়ে যায়, দিনের তপ্ত কড়া রোদের প্রখরতা ছাড়িয়ে চারদিকে এখন হিমেল হাওয়া বয়ে চলেছে ধীর গতিতে। সাই সাই করে গাড়িগুলো ছুটে চলেছে আপন গন্ত্যব্যে। এ যাত্রা যদি শেষ না হতো তবে হয়ত আমি অনন্তকাল ধরে এই পথ ধরে চলতাম গন্ত্যব্যহীন।

এই শহরের ফুটপাতে কোন পথচারী চোখে পড়ে না, দু-একজনকে দাঁড়িয়ে থাকতে দেখা যায় বাস স্টপেজে পাবলিক বাসের জন্য। কোথাও কোন কোলাহল নেই, সিগন্যাল পড়ে গেলে হয়ত এক দেড় মিনিট অপেক্ষা করতে হতে পারে। এছাড়া ট্রাফিক জ্যাম বলে কিছু নেই এই শহরে। রবির কাছে শুনেছি ছিনতাই রাহাজানি এসব ব্যাপার এই শহরের মানুষকে কখনো নাকি প্রত্যক্ষ করতে হয় না। রাতভর মানুষজন নির্ভয়ে নিরাপদে চলতে পারে।

রবি ‘আল সিব’ নামে এক জায়গায় একটা রেস্তোরাঁর সামনে এসে গাড়ি দাঁড় করালো। আমি তাকিয়ে দেখি সাইনবোর্ডে ‘সি শেল’ লেখা। উত্তরার ‘সি শেল’ এর কথা মনে পড়ে গেলো আমার। ভেতরে রিসিপশনে কথা বলে জানলাম এটা উত্তরার ‘সি শেলের’ ওমান শাখা।

আপনি যখন বিদেশের মাটিতে বাংলাদেশি খাবারকে আবিষ্কার করবেন এ আবিষ্কার আপনাকে স্বর্গীয় সুখ এনে দিবে। বাংলায় লেখা খাবার তালিকায় আমি চোখ বুলিয়ে যাচ্ছি। সি শেলে প্রায় সব ধরনের বাঙালি খাবারই আপনি পাবেন। খাবারের তালিকায় নানা ধরনের বিরিয়ানির নাম দেখে আমার চোখে মুখে আনন্দের ছাপ। আর রবি সেটা খেয়াল করে বলে উঠলো, আমি বলেছিলাম না এখানে সব বাঙালি খাবার পাবেন আপনি।

ফিশ বিরিয়ানি, চিকেন ললিপপ, অ্যারাবিয়ান সালাদ আর চিকেন কর্ন স্যুপ অর্ডার করে আমি অধীর আগ্রহে বসে আছি। রবি বলছে, ডাক্তার সাহেব আজ রাতে আরও তিনজন বাঙালি ডাক্তার আসবেন আর ঘণ্টা দুই পর। শুনে খুব ভাল লাগলো, যাক তাহলে খুব শিঘ্রই আমার একাকিত্ব দূর হচ্ছে। কথা বলতে বলতে খাবার এসে গেল । বিরিয়ানির গন্ধে পাগলপাড়া অবস্থা। পরিমানে এতো বেশি যে মনে হচ্ছিল এতো খাবার শেষ করবো কী করে!

আমার প্রিয় এ স্বদেশী খাবার খেতে থাকলে পাকস্থলি কোন কথা শোনে না। প্রতিটি খাবারই খুব সুস্বাদু হয়েছে, অবাধ্য পাকস্থলি পুরো খাবার শেষ করতে বাধ্য করলো আমাকে। এই রেস্টুরেন্টের প্রতিটি কর্মকর্তা-কর্মচারি বাঙালি আর সবাই খুবই আন্তরিক। শুধু খাবারের বিলটা না হয় একটু অবুঝের মতো আচরণ করেছে, তাতে কী! মনতো ভরেছে।

খাবার শেষ করে হাঁটতে বের হলাম। রেস্টুরেন্টের পিছনের গলিতে অনেক লোকের সমাগম। রবি বললো এই জায়গাতে প্রতি বৃহস্পতিবার বিভিন্ন জায়গা থেকে অসংখ্য বাঙালিরা একত্রিত হয় সুখ-দুখের গল্প করতে, আনন্দকে সবার মাঝে ছড়িয়ে দিতে। পুরো ওমান জুড়ে নাকি প্রায় ৭ লাখ বাঙালির বসবাস। যদি ‘মিনিস্ট্রি অব হেলথ’ এর ভাইভা পরীক্ষায় পাশ করে এই দেশে ডাক্তারি করার সুযোগ পাই, তবে হয়ত তাদের জীবন থেকে নেওয়া গল্পগুলোর সঙ্গে পরিচিত হওয়া যাবে।

রবি আমাকে ডরমিটররিতে নামিয়ে অ্যায়ারপোর্টে গেলো বাঙালি ডাক্তারদের আনতে। মধ্যরাতে কলিং বেলের শব্দে সাড়া দিয়ে দরজা খুলে দেখি তিনজন নতুন মুখ। প্রথমে যার সঙ্গে পরিচিত হলাম তিনি ডা. সিয়াম। সুঠামদেহী, হাস্যোজ্জ্বল, প্রাণবন্ত, তারুণ্যদীপ্ত। দেখেই বুঝা যাচ্ছে খুব মিশুক টাইপের মানুষ উনি। পরিচিত হয়ে খুব ভাল লাগলো। দ্বিতীয় জন ডা. মারুফ;  হালকা চাপদাড়ি, মুচকি হাসি, বিনয়ী ভাব, আর ফরমাল পোশাক দেখেই বোঝা যায় খুব ব্যাক্তিত্বসম্পন্ন মানুষ উনি। তৃতীয়জন ডা. মাশফিক। চোখে চশমা পরিপাটি পোশাক আর কথাবার্তায় ভীষণ গোছানো, পুরোপুরি একজন ছিমছাম মানুষ। ডরমিটরি যেন আজ নতুন ডাক্তারদের মিলনমেলায় পরিণত হলো।

সবার আসার উদ্দেশ্য একই, ওমানের ‘মিনিস্ট্রি অব হেলথ’ এর ভাইভা পরীক্ষায় পাশ করে ওমানে ডাক্তার হিসেবে নিবন্ধিত হয়ে কর্মক্ষেত্রে যোগ দেওয়া। সবাই তাদের পরিবারের আপনজনদের দেশে রেখে এসেছেন। সেই মায়ার টানে মন পড়ে থাকে দেশে।

লেখক: চিকিৎসক, রিনাইসেন্স পিএসি হাসপাতাল, ওমান

ই-মেইল: dr.mrhossain87@gmail.com

এই লেখকের আরও পড়ুন-

ওমানের চিঠি: বাঙালি চিকিৎসক ও আরব রোগী

হাজার আরবিয় রাতে, ওমানি মসজিদের দিকে

মধ্যপ্রাচ্যনামা: লুবান রেস্তোরাঁয় ভুড়িভোজ

মধ্যপ্রাচ্যনামা: ভিনদেশে নিজের দেশের মানুষ পাওয়ার আনন্দ!

মধ্যপ্রাচ্যনামা: একবার চোখ পড়লে মরণ ছাড়া গতি নেই!

প্রবাস পাতায় আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাস জীবনে আপনার ভ্রমণ,আড্ডা,আনন্দ বেদনার গল্প,ছোট ছোট অনুভূতি,দেশের স্মৃতিচারণ,রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক খবর আমাদের দিতে পারেন। লেখা পাঠানোর ঠিকানা probash@bdnews24.com। সাথে ছবি দিতে ভুলবেন না যেন!