নিউ ইয়র্কে শোকদিবস: বঙ্গবন্ধুর খুনিদের দেশে ফিরিয়ে দিতে বললেন বক্তারা

  • নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-08-22 19:07:59 BdST

bdnews24
বঙ্গবন্ধুসহ তার পরিবারের শহীদদের আত্মার মাগফেরাত ও শেখ হাসিনার সুস্বাস্থ্য কামনায় মোনাজাতে নেতারা। ছবি-বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম।

যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডায় পলাতক বঙ্গবন্ধুর ঘাতকদের অবিলম্বে বাংলাদেশে ফিরিয়ে নিয়ে মৃত্যুদণ্ড কার্যকরের জন্য মার্কিন প্রশাসনের সহায়তা কামনার মধ্য দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রের নিউ ইয়র্ক সিটিতে পালিত হয়েছে বাংলাদেশের ‘জাতীয় শোক দিবস’।  

স্থানীয় সময় মঙ্গলবার নিউ ইয়র্ক সিটির ব্রঙ্কসে ‘জাতীয় শোক দিবস’ উপলক্ষে বিকাল থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত চলে শোক দিবসের কর্মসূচি।

একইসাথে ২১ অগাস্ট গ্রেনেড হামলায় হতাহতদের স্মরণ এবং ওই হামলায় জড়িতদের মৃত্যুদণ্ডের দাবিও করা হয়।

ব্রঙ্কস এর একটি সড়ক বন্ধ করে এই প্রথমবারের মতো ‘জাতীয় শোক দিবস’র কর্মসূচি পালিত হয়। ব্রঙ্কসের স্টার্লিং-বাংলাবাজার এলাকার তানিয়া বিউটি সেলুন ও এশিয়ান ড্রাইভিং স্কুলের দেয়ালে অঙ্কিত বাংলাদেশের শহীদ মিনার ও জাতীয় স্তৃতিসৌধের প্রতিকৃতির সামনে ‘মুক্তিযুদ্ধের সম্মিলিত শক্তি’র ব্যানারে এটি ছিল ব্রঙ্কস বরোতে জাতীয় শোক-দিবসের সবচেয়ে বড় আয়োজন।

বিকেল থেকে রাত ১০টা নাগাদ প্রায় দুই হাজার মানুষের মধ্যে বিতরণ করা হয় তবারক। সাদা ভাতের সাথে গরু, খাসি ও মুরগির মাংস। ছিল পায়েশও। দলমত নির্বিশেষে অংশ নেওয়া এই আয়োজনে সকলেই এই তবারক গ্রহণ করেন পরমতৃপ্তির সাথে। ভিনদেশিরাও অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণ থেকে বাদ যাননি।

অনুষ্ঠানে কুরআন থেকে তেলাওয়াত এবং দোয়া ও মোনাজাত পরিচালনা করেন বাংলাবাজার জামে মসজিদের খতিব মাওলানা আবুল কাশেম এয়াহইয়া। এসময় বঙ্গবন্ধুসহ ১৫ অগাস্টের শহীদদের আত্মার মাগফেরাত কামনা, দেশ, প্রবাস ও বিশ্ব মানবতার শান্তির জন্য দোয়া করা হয়।

অনুষ্ঠানে পবিত্র গীতা থেকে পাঠ করেন রতন চক্রবর্তী। সকল শহীদদের স্মরণে দাঁড়িয়ে এক মিনিট নিরবতা পালন করা হয়।

এর আগে সকাল ১১টা থেকে অনুষ্ঠানস্থলে বঙ্গবন্ধুর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণ লাউড স্পিকারে বাজিয়ে শোনানো হয়।

উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগ নেতা আব্দুর রহিম বাদশার সভাপতিত্বে এবং কমিটির কর্মকর্তা যুবলীগ নেতা শেখ জামাল হুসেন ও রেজা আব্দুল্লাহ স্বপনের পরিচালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন উদযাপন কমিটির প্রধান সমন্বয়কারী সাইদুর রহমান লিংকন ও সদস্য সচিব নুরল ইসলাম মিলন।

আলোচনা সভায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন- যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা প্রদীপ রঞ্জন কর, মাসুদুল হাসান, নিউ ইয়র্কে বাংলাদেশ কনসুলেট জেনারেলের কনসাল আয়শা হক, নিউ ইয়র্কে ব্রঙ্কসের অ্যাসেম্বলি ডিস্ট্রিক্ট ৮৭ থেকে নির্বাচিত অ্যাসেম্বলি সদস্য ক্যারিনেস রেইসের প্রতিনিধি, কানাডা থেকে বাংলা সাপ্তাহিক ও বাংলা টিভি চ্যানেল দেশে বিদেশের সম্পাদক ও সিইও নজরুল ইসলাম মিন্টু, বাংলাদেশি-আমেরিকান কমিউনিটি কাউন্সিলের সভাপতি মোহাম্মদ এন মজুমদার, আমেরিকান-বাংলাদেশি ওয়েলফেয়ার অর্গানাইজেশন ইনক এর সভাপতি আব্দুস শহীদ, বাংলাদেশি-আমেরিকান কালচারাল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি আব্দুল হাসিম হাসনু, বাংলা টাউনের স্বত্ত্বাধিকারী কায়সারুজ্জামান কয়েস, খলিল বিরিয়ানি হাউজের স্বত্ত্বাধিকারী মো. খলিলুর রহমান, আওয়ামী লীগ নেতা মহিউদ্দিন দেওয়ান, কাজী কয়েস, মোহাম্মদ আলী সিদ্দিকী, শাহীন আজমল, মো. আবদুল মুহিত, মিসবাহ আহমদ, গোলাম রব্বানী, সাখাওয়াত আলী, ফরিদ আলম, রফিকুল ইসলাম, এমদাদ চৌধুরী, জুনেদ চৌধুরী, সদরুন নূর, নুরে আলোম জিকু, সাহাদৎ হোসেন, সালামত উল্লাহ, নুরুজ্জামান সর্দার, নুরল আমিন বাবু, শাহীন কামাল, শেবুল মিয়া, ইফজাল চৌধুরী, রবিউল ইসলাম, ইকবাল হোসেন, আক্তার হোসেন, কাজী আজিজুল হক খোকন, মঞ্জুর চৌধুরী, জুয়েল আহমদ, নাফিউর রহমান তুরান, বাছির খান, রিয়াজ কামরান, জামাল আহমেদ, ময়দুল লস্কর জুয়েল, শহীদ আহমেদ, শাহ রহিম শ্যামল, শাহেদ আহমেদ, শামীম আহমেদ, দুরুদ মিয়া, সাইফুল ইসলাম, আল মামুন সরকার, সুয়েব আহমেদ, শিপু চৌধুরী, সাদিকুর রহমান, মনির উদ্দিন, আজমান আলী, সাখাওয়াত হোসন চঞ্চল, জাকির হোসেন জাকির, মামুন হোসেন, শাহ সেলিম, মোশাইদ চৌধুরী, শ্যামল কান্তি, সোহান আহমেদ টুটুল, আলমগীর মোল্লা, আবদুর রহমান, ইঞ্জিনিয়ার মিজানুর রহমান চৌধুরী এবং আশফাক মাশুক।

প্রবাস পাতায় আপনিও লিখতে পারেন। প্রবাস জীবনে আপনার ভ্রমণ,আড্ডা,আনন্দ বেদনার গল্প,ছোট ছোট অনুভূতি,দেশের স্মৃতিচারণ,রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক খবর আমাদের দিতে পারেন। লেখা পাঠানোর ঠিকানা probash@bdnews24.com। সাথে ছবি দিতে ভুলবেন না যেন!