পছন্দের খবর জেনে নিন সঙ্গে সঙ্গে

জাতিসংঘে স্থায়ী মিশনে ‘বঙ্গবন্ধু লাউঞ্জ’ উদ্বোধন

  • নিউ ইয়র্ক প্রতিনিধি, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2021-06-15 17:47:54 BdST

বিশ্ব নেতাদের সামনে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও কর্ম তুলে ধরতে জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে ‘বঙ্গবন্ধু লাউঞ্জ’ উদ্বোধন করা হয়েছে।

সোমবার নিউ ইয়র্কে জাতিসংঘে বাংলাদেশ স্থায়ী মিশনে এই লাউঞ্জের উদ্বোধন করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ. কে আব্দুল মোমেন।

উদ্বোধন অনুষ্ঠানে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, “লাউঞ্জটিতে বিভিন্ন বই, ছবি, প্রামাণ্যচিত্র ও গ্রাফিক্যাল ডিসপ্লের মাধ্যমে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জীবন ও কর্মের নানা দিক তুলে ধরা হয়েছে।

“বহুপাক্ষিকতাবাদ, বিশেষ করে জাতিসংঘের প্রতি জাতির পিতার যে গভীর আস্থা ও বিশ্বাস ছিল, বঙ্গবন্ধু লাউঞ্জের এই সংগ্রহ যেন তাই ফুটিয়ে তুলেছে।”

তিনি লাউঞ্জটিতে আরও বই ও প্রদর্শনী সামগ্রী দেওয়ার আগ্রহ প্রকাশ করেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী উদযাপনের অংশ হিসেবে লাউঞ্জটি করা হয়েছে।

জাতিসংঘে বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত রাবাব ফাতিমা বলেন, “আমার বিশ্বাস, লাউঞ্জটি মিশনে আসা সুধীজনদের বিশ্ব শান্তির প্রতি জাতির পিতার স্বপ্ন ও আদর্শের কথা স্মরণ করিয়ে দেবে।”

মিশনে জাতিসংঘ ও সদস্য রাষ্ট্রের উচ্চ পর্যায়ের প্রতিনিধিদের বৈঠকের জন্য লাউঞ্জটি ব্যবহার করা হবে। গতবছর লাউঞ্জটির শেষ হলেও মহামারী পরিস্থিতির কারণে উদ্বোধন করা যায়নি বলে জানান তিনি।

জাতির পিতার নেতৃত্বে ১৯৭৪ সালে জাতিসংঘের সদস্যপদ পায় বাংলাদেশ। বর্তমানে বাংলদেশ ইউএনডিপি, ইউএনএফপিএ, ইউএনওপিএস এর নির্বাহী বোর্ডের সহ-সভাপতি।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদের এজেন্ডা শ্রেণিবিন্যাসের জন্য গঠিত আন্তঃরাষ্ট্রীয় কনসালটেশনের ফ্যাসিলেটেটর এবং পঞ্চম জাতিসংঘ এলডিসি কনফারেন্সের প্রস্তুতি কমিটিরও সহ-সভাপতি বাংলাদেশ।

জাতিসংঘে অপারেশনাল সাপোর্ট বিভাগের প্রধান (আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল) অতুল খারে’র সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

জাতিসংঘে অপারেশনাল সাপোর্ট বিভাগের প্রধান (আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল) অতুল খারে’র সঙ্গে পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আব্দুল মোমেন।

সোমবার বিকালে জাতিসংঘের অপারেশনাল সাপোর্ট বিভাগের প্রধান- আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল অতুল খারের সঙ্গে বৈঠক করেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী মোমেন।

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে বাংলাদেশের দেওয়া প্রতিশ্রুতির কথা এ সময় তুলে ধরেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী। শান্তিরক্ষী পরিবহনে বাংলাদেশ বিমানকে অন্তর্ভুক্ত করাসহ বিভিন্ন ক্ষেত্রে সহায়তার জন্য খারেকে ধন্যবাদ জানান তিনি।

জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে অবদানের জন্য বাংলাদেশের প্রশংসা করেন আন্ডার সেক্রেটারি জেনারেল খারে। শান্তিরক্ষা কার্যক্রমের মাঠ পর্যায়ে পরিবেশ সংরক্ষণ সংক্রান্ত কৌশল বাস্তবায়নে নেতৃত্বের জন্যও তিনি ধন্যবাদ জানান।

খারে প্রয়োজনীয় সরঞ্জামসহ শান্তিরক্ষী মোতায়েনে বাংলাদেশের সার্বক্ষণিক প্রস্তুতির প্রশংসা করেন। শান্তিরক্ষা কার্যক্রমে নারীর অংশগ্রহণ বাড়িয়ে কৌশলগত যোগাযোগ এগিয়ে নিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রীর প্রস্তাবকে তিনি স্বাগত জানান।

পররাষ্ট্রমন্ত্রী অতুল খারেকে বাংলাদেশ সফরের আমন্ত্রণ জানিয়ে জাতিসংঘ শান্তিরক্ষা বিষয়ে তার অভিজ্ঞতা বাংলাদেশের মানুষকে জানানোর অনুরোধ করেন।

জাতিসংঘের বিভিন্ন কর্মসূচিতে যোগ দিতে সরকারি সফরে রোববার থেকে নিউ ইয়র্কে আছেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ. কে আব্দুল মোমেন।

জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদে এলডিসি বিষয়ক একটি যৌথ সভায় তিনি অংশ নেবেন। এছাড়া জাতিসংঘ মহাসচিব, সাধারণ পরিষদের সভাপতিসহ ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠক করবেন।

বাংলাদেশ স্থায়ী মিশন, জাতিসংঘ সদরদপ্তর ও অন্যান্য সদস্য রাষ্ট্রের আয়োজনে ‘মিয়ানমারের বর্তমান পরিস্থিতি: সংখ্যালঘু রোহিঙ্গাদের অবস্থা’ এবং ‘স্বল্পোন্নত দেশসমূহের টেকসই উত্তরণ এবং পুনরায় ফিরে আসা রোধে সক্ষমতা বিনির্মাণ’ শীর্ষক দুটি অনুষ্ঠানে অংশ নেবেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী।