১৯ আগস্ট ২০১৯, ৪ ভাদ্র ১৪২৬

‘ইউনিয়ন পর্যায়েও হবে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলা’

  • নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2018-06-25 02:05:44 BdST

bdnews24

তৃণমূল পর্যায়ে শিক্ষার্থীদের মাঝে বিজ্ঞান চর্চা জনপ্রিয় করতে এবার জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলাকে ইউনিয়ন পর্যায়ে নিয়ে যাওয়ার ঘোষণা এসেছে মেলার ৩৯তম উদ্বোধনী আসর থেকে।

রোববার রাজধানীর আগারগাঁওয়ে জাতীয় বিজ্ঞান ও প্রযু্ক্তি জাদুঘর ভবন প্রাঙ্গণে আয়োজিত এই মেলার উদ্বোধন করেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রী স্থপতি ইয়াফেস ওসমান।

মেলায় সভাপতির ভাষণে বিজ্ঞান জাদুঘরের মহাপরিচালক স্বপন কুমার রায় বলেন, “বিজ্ঞান জাদুঘর বর্তমানে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার আয়োজন করে থাকে।

“আগামী বছর থেকে এটিকে ইউনিয়ন পর্যায়ে সম্প্রসারিত করা হবে যাতে বিজ্ঞান চর্চায় তৃণমূলের ও গ্রামের ছাত্রছাত্রী এবং খুদে বিজ্ঞানীরা অংশগ্রহণ করতে পারে।”

‘মেধাই সম্পদ, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিই ভবিষ্যৎ’ স্লোগান নিয়ে এবারের বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলায় ১৯২টি প্রকল্পের প্রদর্শনী চলছে।

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি সচিব মো. আনোয়ার হোসেন জানান, এ মেলায় প্রদর্শিত প্রকল্পগুলোকে বাস্তবে কাজে লাগানোর জন্য মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে সব ধরনের সহায়তা দেওয়া হবে। 

মেলায় সারা দেশের জেলা পর্যায়ের জুনিয়র, সিনিয়র এবং বিশেষ গ্রুপে প্রথম স্থান অধিকারী প্রতিযোগী ও প্রকল্প, গাইড, তরুণ ও অপেশাদার খুদে বিজ্ঞানীরা এ মেলায় অংশগ্রহণ করেছেন।

বিজ্ঞানমন্ত্রী ইয়াফেস ওসমান বলেন, “এ দেশের ছেলে-মেয়েরা অত্যন্ত মেধাবী। নতুন প্রজন্ম বিজ্ঞানচর্চা করে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিকে কাজে লাগিয়ে এ দেশকে বিশ্বের বুকে উন্নত দেশ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করবে।”

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার পাশাপাশি শুরু হয়েছে দ্বিতীয় জাতীয় বিজ্ঞান অলিম্পিয়াড এবং দ্বিতীয় জাতীয় বিজ্ঞান বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতাও।

বিজ্ঞান অলিম্পিয়াডে অংশগ্রহণ করেছেন ২৫৬ জন এবং বিজ্ঞান বিষয়ক কুইজ প্রতিযোগিতায় আছেন ৭২ জন।

দর্শনার্থীদের জন্য বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলা খোলা থাকবে সকাল ১০টা থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত। আগামী ২৬ জুন মেলা শেষ হবে।

২৫ জুন সন্ধ্যা ৭টায় প্রদর্শিত হবে ‘সায়েন্স শো’ এবং শওকত লাভলীর নির্দেশনায় মঞ্চস্থ হবে বিজ্ঞান বিষয়ক নাটক।

মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ডা. আ ফ ম রুহুল হক, বাংলাদেশ বিজ্ঞান একাডেমির সভাপতি অধ্যাপক ড. কাজী আব্দুল ফাত্তাহ।