১৯ এপ্রিল ২০১৯, ৬ বৈশাখ ১৪২৬

পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে সরকার: সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

  • নিজস্ব প্রতিবেদক, বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2019-01-21 01:52:20 BdST

bdnews24
আইইবি অডিটরিয়ামে রোববার ৪র্থ গ্লোবাল সার্কেল ফর সায়েন্টিফিক, টেকনোলজিকাল অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট রিসার্চ (জিসিএসটিএমআর) সম্মেলনে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। ছবি: আসিফ মাহমুদ অভি

জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলা ও পরিবেশ সুরক্ষায় সরকার বিশেষ গুরুত্ব দিচ্ছে বলে জানিয়েছেন সংস্কৃতি বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ।

রাজধানীর ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনে রোববার চতুর্থ গ্লোবাল সার্কেল ফর সায়েন্টিফিক, টেকনোলজিকাল অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট রিসার্চ (জিসিএসটিএমআর) সম্মেলনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে একথা বলেন তিনি।

প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ বলেন, “যে কোনো দেশের বিবেচনায় পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষা করা একটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়।

“এজন্য বর্তমান সরকার জলবায়ু পরিবর্তনের প্রভাব মোকাবেলা ও পরিবেশ সুরক্ষাকে বিশেষ গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করছে।”

আইইবি অডিটরিয়ামে রোববার ৪র্থ গ্লোবাল সার্কেল ফর সায়েন্টিফিক, টেকনোলজিকাল অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট রিসার্চ (জিসিএসটিএমআর) সম্মেলনে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। ছবি: আসিফ মাহমুদ অভি

আইইবি অডিটরিয়ামে রোববার ৪র্থ গ্লোবাল সার্কেল ফর সায়েন্টিফিক, টেকনোলজিকাল অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট রিসার্চ (জিসিএসটিএমআর) সম্মেলনে সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী কে এম খালিদ। ছবি: আসিফ মাহমুদ অভি

সরকার এজন্য বিশেষ পদক্ষেপ গ্রহণ করেছে জানিয়ে তিনি বলেন, “বাংলাদেশ অত্যন্ত সফলতার সঙ্গে এমডিজি বাস্তবায়ন করেছে। এরই ধারাবাহিকতায় রূপকল্প ২০২১, টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা ২০৩০ এবং রূপকল্প ২০৪১ বাস্তবায়নে বর্তমান সরকার দৃঢ় প্রতিজ্ঞ।”

বক্তব্যে জিসিএসটিএমআরের সম্মেলনকে ‘আন্তর্জাতিক মানের’ বলেও মন্তব্য করেন সংস্কৃতি প্রতিমন্ত্রী

তিনি বলেন, যে কোনো সম্মেলনে বিশেষ করে আন্তর্জাতিক সম্মেলনে সঠিক লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য নির্ধারণ এবং মান বজায় রাখা আসল বিষয়।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়, বাংলাদেশ উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয়, ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, ঢাকা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয় ও বঙ্গবন্ধু ডিজিটাল বিশ্ববিদ্যালয়ের যৌথ উদ্যোগে আয়োজিত হয়েছে জিসিএসটিএমআর সম্মেলন।

এতে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ ইঞ্জিনিয়ারিং স্টাফ কলেজের রেক্টর প্রফেসর এম এ হান্নান, ঢাকা প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মোহাম্মদ আলাউদ্দিন, বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর প্রাক্তন ইঞ্জিনিয়ার-ইন-চিফ লেফটেন্যান্ট জেনারেল ইঞ্জিনিয়ার আবুল হোসেন, ওয়েস্টার্ন সিডনি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. ভিভিয়ান ট্যাম, অস্ট্রেলিয়ার আরএমআইটি বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ড. শামস রহমান এবং ওয়েস্টার্ন সিডনি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক ফিদেলিস মাশিরি।