আ. লীগে শুদ্ধি অভিযান চালানো উচিত: শামসুজ্জামান খান

  • নিজস্ব প্রতিবেদক বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম
    Published: 2016-11-06 00:45:11 BdST

bdnews24

ব্রাহ্মণবাড়িয়ার নাসিরনগরে হিন্দুদের বাড়িঘর-মন্দিরে দুই দফা হামলার ঘটনায় আওয়ামী লীগের স্থানীয় কয়েক নেতার নাম আসা ও মন্ত্রী ছায়েদুল হকের ভূমিকার সমালোচনার মধ্যে দলটিতে শুদ্ধি অভিযান প্রত্যাশা করেছেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান।

আওয়ামী লীগ নেতাদের বিরুদ্ধে সাম্প্রদায়িক হামলায় যুক্ত থাকায় এসব অভিযোগে ওঠার পর শনিবার এক ফেইসবুক পোস্টে এ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন তিনি।

শামসুজ্জামান খান বলেন, “এবার আওয়ামী লীগের ভেতরে শুদ্ধি অভিযান চালানো উচিৎ। মনে হচ্ছে, মনে-প্রাণে সাম্প্রদায়িক কিছু লোক পার্টির ভেতরে ঢুকে পড়েছে।

“পার্টির তদন্ত কমিটিকেই দলের ভেতরের ঘাতকদের খুঁজে বের করতে হবে, সে পার্টির ভেতরের লোকই কিংবা বাইরের।”

এক হিন্দু যুবকের বিরুদ্ধে ইসলাম ধর্ম অবমাননার অভিযোগ এনে গত ৩০ অক্টোবর নাসিরনগরে হিন্দু ধর্মবলম্বীদের বাড়িঘর ও উপাসনালয়ে হামলার পাঁচদিনের মধ্যে শুক্রবার ভোররাতে ফের তাদের বাড়িঘরে আগুন দেওয়া হয়।

এ ঘটনায় জড়িত বলে গণমাধ্যমে নাম আসার পর ক্ষমতাসীন আওয়ামী লীগের স্থানীয় তিন নেতাকে দল থেকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। একটি তদন্ত কমিটিও গঠন করেছে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামী লীগ।

সাময়িক বহিষ্কৃত নাসিরনগর উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সম্পাদক আবুল হাসেম, হরিপুর ইউনিয়ন সভাপতি ফারুক মিয়া ও চাপরতলা ইউনিয়ন সভাপতি সুরুজ আলী- এই তিনজনই ব্রাহ্মণবাড়িয়ার রাজনীতিতে মৎস‌্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী ছায়েদুল হকের সমর্থক হিসেবে পরিচিত।

নাসিরনগর থেকে নির্বাচিত সংসদ সদস্য ছায়েদুল প্রথমবার হামলায় হিন্দু সম্প্রদায়ের প্রায় ১৫টি মন্দির ও দেড় শতাধিক বাড়িঘরে ভাংচুরের ঘটনা ঘটলেও বিষয়টিকে ‘তেমন কিছুই নয়’ বলে মন্তব্য করেন। হিন্দুদের প্রতি অবমাননামূলক শব্দও তিনি ব্যবহার করেছেন বলে কোনো কোনো গণমাধ্যমে খবর আসে।

শামসুজ্জামান খান (ফাইল ছবি)

শামসুজ্জামান খান (ফাইল ছবি)

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হামলার সময়ে পাশের জেলা হবিগঞ্জ এবং এরপর সুনামগঞ্জের ছাতকসহ দেশের আরও কয়েকটি জেলায় মন্দির ভাংচুরের ঘটনা ঘটে।

দেশের বিভিন্ন স্থানে হিন্দু সম্প্রদায়ের উপর হামলাকে দেশের জন্য ‘এক অশনিসংকেত’ হিসেবে দেখছেন বাংলা একাডেমির মহাপরিচালক শামসুজ্জামান খান।

ফেইসবুক পোস্টে তিনি বলেন, “এটি (সাম্প্রদায়িক হামলা) যে বিক্ষিপ্তভাবে এখানে ওখানে হচ্ছে তা নয়, এটা ছড়িয়ে গেছে সারা দেশব্যাপী। সর্তক পরিকল্পনা ছাড়া সারা দেশব্যাপী এ ঘটনা এত ব্যাপকতা পেত না।”

এ ধরনের হামলার ঘটনাকে আওয়ামী লীগের বিরুদ্ধে ‘চক্রান্ত’ হতে পারে বলেও সন্দেহ প্রকাশ করেন শামসুজ্জামান খান।

সদ্য সমাপ্ত ‘সফল’ জাতীয় কাউন্সিলে দলটি ‘রাজনৈতিকভাবে সংহত’ হয়েছে মন্তব্য করে তিনি লিখেন, “আমার কাছে মনে হচ্ছে এটি আসলে সরকার ও আওয়ামী লীগের বিপক্ষে একটি চক্রান্ত। আওয়ামী লীগের বদনাম ছড়াতে খুব বিচক্ষণ একটি কাজ।”

বিষয়টিকে আওয়ামী লীগের গুরুত্বের সঙ্গে নেওয়া উচিত বলে ওই ফেইসবুক পোস্টে লেখেন বাংলা একাডেমির এই মহাপরিচালক।